সর্বশেষ আপডেট : ১১ ঘন্টা আগে
সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

অসুস্থ ও বয়স্করা রোজা রাখতে না পারলে যা করতে হবে

লাইফ স্টাইল ডেস্ক ::

রমজান মাসে জ্ঞানসম্পন্ন, প্রাপ্তবয়স্ক সুস্থ ও সক্ষম সব মুমিন নারী-পুরুষের উপর রোজা পালন করা ফরজ। রমজানে রোজা ফরজ হওয়ার শর্তগুলো হলো- স্বাভাবিক জ্ঞানসম্পন্ন হওয়া, সাবালক হওয়া, সুস্থ ও সক্ষম হওয়া, নারীদের পবিত্র অবস্থায় থাকা, সফর বা ভ্রমণে না থাকা।

পবিত্র কোরআনে আল্লাহ তা’আলা এরশাদ করেন, সুতরাং তোমাদের মধ্যে যে ব্যক্তিই এ মাস পাবে সে যেন এ মাসে রোজা রাখে।” (সুরা বাকারা : ১৮৫)।

কিন্তু যারা অসুস্থতা বা বার্ধক্যের কারণে রমজানের রোজা আদায় করতে সক্ষম নয়, পরম করুণাময় বিধানদাতা আল্লাহ তাদের জন্য বিকল্প ব্যবস্থা দিয়েছেন। ইসলামের পরিভাষায় ফরজ বিধান শিথিলতার বিশেষ অবস্থাকে রুখসত বলা হয়।

স্বাভাবিক অবস্থায় প্রাপ্তবয়স্ক সকল নর-নারীর উপর রোজা ফরজ হলেও বিশেষ কিছু ক্ষেত্রে এই বিধানে কিছু শিথিলতা রয়েছে।

রমজান মাসে যাদের উপর এই রুখসত বা শিথিলতার বিধান রয়েছে তারা মোট পাঁচ শ্রেণির: ১. মুসাফির ২. অসুস্থ ৩. অতিবৃদ্ধ ৪. গর্ভবতী ও দুগ্ধদানকারী নারী ৫. হায়েজ ও নেফাসগ্রস্ত নারী।

১. সফররত ব্যক্তি সম্ভব হলে রোজা পালন করবে, এটাই উত্তম। আর কষ্ট হলে রোজা ভাঙতে পারবে। তবে এই রোজা পরে কাজা আদায় করতে হবে। প্রখ্যাত সাহাবি হজরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) কোনও এক রমজানে রোজা অবস্থায় মক্কার পথে যাত্রা করলেন। কাদিদ নামক স্থানে পৌঁছার পর তিনি রোজা ছেড়ে দিলে সবাই রোজা ছেড়ে দিলেন। (সহি বুখারী: হাদিস নং: ১৮২০)।

এ প্রসঙ্গে বিখ্যাত সাহাবি আনাস বিন মালেক (রা.)-এর বর্ণিত ঘটনাটি প্রসিদ্ধ। তিনি বলেন, আল্লাহ তাআলা মুসাফিরের রোজা ও অর্ধেক নামাজ হ্রাস করে দিয়েছেন আর গর্ভবতী ও দুগ্ধদানকারী নারীদের রোজা (পরবর্তীতে কাজা করার শর্তে) মাফ করে দিয়েছেন। (সুনানে তিরমিজি, হাদিস : ৭১৫)।

২. অসুস্থ বা রোগীর রোজা রাখার দরুন অসুস্থ বেড়ে যাওয়া বা প্রাণনাশের আশংকা সৃষ্টি হলে রোজা ছেড়ে দিতে পারবে। রোগ থেকে দ্রুত আরোগ্য লাভ করে পরবর্তীতে রোজা রাখার সক্ষমতা ফিরে পেলে কাজা আদায় করতে হবে অন্যথায় ফিদইয়া দিতে হবে। উল্লেখ্য, সামান্য অসুখ, যেমন, মাথা ব্যথা, সর্দি, কাশি অনুরূপ কোনও সাধারণ অসুখের কারণে রোজা ভঙ্গ করা জায়েজ নয়। রোজা পালন করার দরুন রোগ বৃদ্ধি নিশ্চিত হলে অতি পরহেজগারি মনে করে রোজা পালন করা অনুচিত। এ অবস্থায় রোজা ভঙ্গ করা জরুরি।

আল্লাহ তা’আলা বলেন, ‘তোমরা তোমাদের নিজেদের হত্যা করো না। নিঃসন্দেহে আল্লাহ তোমাদের প্রতি অতিশয় দয়ালু।’ (সুরা নিসা : ২৯)।

মৃত্যুমুখী বৃদ্ধলোক অথবা এমন রোগে আক্রান্ত হলে, যা থেকে সুস্থ হওয়ার সম্ভাবনা নেই, এমন অক্ষম ব্যক্তি প্রতিটি রোজার পরিবর্তে পৌনে দুই সের গম (ফিতরার পরিমাণ) অথবা তৎপরিমাণ মূল্য আদায় করবে। ইসলামের পরিভাষায় এটাকে ফিদয়া বলা হয়। (জাওয়াহিরুল ফিকহ : ১/২৯)।

৩. অতিবৃদ্ধ ব্যক্তি যিনি রোজা রাখতে অক্ষম এবং পরবর্তীতে রোজা কাজা করার সক্ষমতাও ফিরে পাওয়ার সম্ভবনা নেই এমতাবস্থায় এই ব্যক্তির প্রতিটি রোজার জন্য একটি সদকাতুল ফিতরের পরিমাণ সদকা আদায় করতে হবে। অতিবৃদ্ধ ব্যক্তির রোজার সকল বিধান অসুস্থ ও রোগীর অনুরূপ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Comments are closed.

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: