সর্বশেষ আপডেট : ২ ঘন্টা আগে
রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪ খ্রীষ্টাব্দ | ১ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

বড়লেখায় ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের উত্তেজনা, পুলিশের বাঁধা

ডেইলি সিলেট ডেস্ক ::

মৌলভীবাজারের বড়লেখায় উপজেলা, পৌর ও কলেজ ছাত্রলীগের মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটিকে বিলুপ্ত করায় এবং জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি-সম্পাদককে কটুক্তির প্রতিবাদে বড়লেখায় ছাত্রলীগের (বিলুপ্ত কমিটি) একাংশের আয়োজনে আনন্দ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। একই সময়ে কমিটি বিলুপ্তের জেরে ছাত্রলীগের অপরগ্রুপ পৌরশহরে অবস্থান নেয়। এতে উভয়পক্ষের মধ্যে চরম উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। এসময় আইনশঙ্খলা পরিস্থিতি অবনতির আশঙ্কায় পুলিশ ছাত্রলীগের উভয়পক্ষকে সরিয়ে দেয়।

রোববার (২৫ ফেব্রুয়ারি) বেলা আড়াইটার দিকে ছাত্রলীগের মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি’ বিলুপ্ত করায় জেলা ছাত্রলীগকে অভিনন্দন জানিয়ে সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক (বিলুপ্ত কমিটি) তাওহিদুল ইসলাম ফরহাদের নেতৃত্বে বড়লেখা পি.সি হাই স্কুল মাঠ থেকে আনন্দ মিছিলটি শুরু হয়ে প্রধান সড়কের সম্মূখে আসতেই পুলিশের বাধাঁর সম্মুখীন হয়। এতে প্রায় ঘন্টাব্যাপী পুলিশের সাথে ব্যাপক ধস্তাধস্তি-বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পড়েন নেতাকর্মীরা। বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনা ছাড়া বড়ধরণের হতাহতের কোন ঘটনা ঘটেনি। তবে তাওহীদুল ইসলাম ফরহাদ (বিলুপ্ত কমিটির) অভিযোগ, মিছিলে পুলিশ তাদের ওপর লাঠিচার্জ করেছে। এতে ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতা আহতও হয়েছেন।

মিছিলে শত-শত নেতাকর্মীদের মধ্যে অংশ নেন বড়লেখা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম সুন্দর, উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক কামাল হোসেন, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি আইনজীবী জিল্লুর রহমান, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আছকির আলী, সাবেক উপজেলা যুবলীগের অর্থ সম্পাদক সামছুল ইসলাম টুকু, বড়লেখা পৌরসভার প্যানেল মেয়র ও উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রেহান পারভেজ রিপন প্রমুখ। পরে মৌলভীবাজার জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে কটুক্তির প্রতিবাদে পিসি মডেল উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

এতে সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের (বিলুপ্ত কমিটি) সাধারণ সম্পাদক তাওহিদুল ইসলাম ফরহাদের সভাপতিত্বে ও উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক প্যানেল মেয়র রেহান পারভেজ রিপনের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদ রফিকুল ইসলাম সুন্দর প্রমুখ।

অপরদিকে বড়লেখা পৌরশহরের ডাকবাংলো এলাকায় বড়লেখা উপজেলা ছাত্রলীগের (বিলুপ্ত কমিটি) সভাপতি ইমরান হোসেনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক জুনেদ আহমদের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন বড়লেখা উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং বড়লেখা সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ছালেহ আহমদ জুয়েল। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বড়লেখা সদর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি জালাল আহমদ, বড়লেখা উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক ফরহাদ আহমদ, বড়লেখা উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ সভাপতি ময়নুল ইসলাম, জেলা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি সুমন আহমদ, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত) বাকের আহমদ, পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি আলী হোসেন, বড়লেখা সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি কামরুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এ বিষয়ে সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের (বিলুপ্ত কমিটি) সাধারণ সম্পাদক তাওহিদুল ইসলাম ফরহাদ রোববার রাত আটটায় মুঠোফোনে বলেন, ‘আজকে আমরা শান্তিপূর্ণভাবে মিছিলের আয়োজন করেছিলাম। মূলত উপজেলা,পৌর ও সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের ‘মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি’ বিলুপ্ত করায় জেলা ছাত্রলীগকে অভিনন্দন জানিয়ে এবং জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি-সম্পাদককে কটূক্তির প্রতিবাদে আমরা মিছিল ও প্রতিবাদ সভার আয়োজন করি। মিছিল চলাকালে পুলিশ আমাদের বাধা দিয়েছে। আমাদের ওপর লাঠিচার্জ করেছে। এতে আমাদের কয়েকজনের হাত কেটে গেছে। কয়েকজন নেতাকর্মী আহত হয়েছেন।’ পুলিশের বাধা দেওয়ার কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘তারা (ছাত্রলীগের অপর গ্রুপ) অন্যপাশে লাটিসোটা নিয়ে অবস্থান নিয়েছিল। পুলিশ আমাদের পেশার দিচ্ছে মিছিল না করতে। আমার বাড়ির সামনেও পুলিশ অবস্থান নিয়েছে। ছাত্রলীগের আনন্দ মিছিলে পুলিশ বাধা দেবে কেন? তারা যখন (ছাত্রলীগের অপর গ্রুপ) মিছিল করল তখন পুলিশ বাধা দিল না ? ঘুরেফিরে তারা ‘লাগাবাজার’ মিছিল দিল। পুলিশ তাদের বাধা দিল না। অথচ এই কমিটির মেয়াদ শেষ এবং বিবাহিত ও অছাত্র দিয়ে কমিটি চলছিল।’

উপজেলা ছাত্রলীগের (বিলুপ্ত কমিটি) সাধারণ সম্পাদক জুনেদ আহমদ বলেন, ‘কোনো কারণ ছাড়াই কালো টাকার বিনিময়ে জেলা ছাত্রলীগ বড়লেখা উপজেলা, পৌর, সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত করেছে। মূলত একটি কুচক্রী মহলের ইন্ধনে জেলা ছাত্রলীগ সুসংগঠিত বড়লেখা ছাত্রলীগকে অযৌক্তিক সিদ্ধান্তের মাধ্যমে বিলুপ্ত করেছে। এর প্রতিবাদে আমরা বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করছি। আজকে ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত নয়-এমন কয়েকজন পৌরশহরে মিছিল দেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিল। ছাত্রলীগের নাম ব্যবহার করে তারা মিছিলের আয়োজন করে। বিষয়টি শুনে আমরা পৌরশহরে অবস্থান নিই। মিছিলে যারা অংশ নিয়েছিল তাদের বেশিরভাগই বখাটে। এমনকি মাদক কারবারিরাও ছিল। পরে পুলিশ আমাদের সরে যেতে অনুরোধ করেছে। আমরা ডাকবাংলোর সামনে অবস্থান করেছি।’

প্রসঙ্গত, স্থানীয় ও ছাত্রলীগ সূত্রে জানা গেছে, গত ১৭ ফেব্রুয়ারি মৌলভীবাজার জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আমীরুল হোসেন চৌধুরী (আমীন) ও সাধারণ সম্পাদক মাহবুব আলম স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বড়লেখা উপজেলা, পৌর, সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করে। পাশাপাশি গেল ২০ ফেব্রুয়ারির মধ্যে জেলা ছাত্রলীগ বরাবরে পদ প্রত্যাশীদের জীবন বৃত্তান্তও আহ্বান করা হয়। এদিকে কমিটি বিলুপ্তির প্রতিবাদে গত শুক্রবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে বড়লেখা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান হোসেনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক জুনেদ আহমদের নেতৃত্বে বড়লেখা উপজেলা, পৌর, সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের উদ্যোগে পৌর শহরের উত্তর বাজারের ডাকবাংলো এলাকা থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল করে। পরে তারা প্রতিবাদ সভা করেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: