সর্বশেষ আপডেট : ৪ মিনিট ১২ সেকেন্ড আগে
বুধবার, ২৭ অক্টোবর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

ক্ষমা চেয়ে রায়হানের মায়ের কাছে প্রাণভিক্ষা চাইলেন আকবর

সিলেটের বন্দরবাজার পু’লিশ ফাঁড়িতে নি’র্যা’তনে নি’হত রায়হান আহম’দের মায়ের কাছে ক্ষমা প্রার্থীনা করছেন এই ঘটনায় প্রথান অ’ভিযু’ক্ত পু’লিশের বহিস্কৃত উপ পরিদর্শক (এসাআই) আকবর হোসেন ভূইয়া।

রায়হানের মা সালমা বেগম ও সৎ বাবা হাবিবুল্লার কাছে ক্ষমা চেয়ে প্রা’ণভিক্ষা চান বহিস্কৃত এই পু’লিশ সদস্য। তবে আকবরকে কখনো ক্ষমা করবেন না বলে জানিয়েছেন সালমা বেগম ও হাবিবুল্লাহ।

বৃহস্পতিবার (৩০ সেপ্টেম্বর) রায়হান হত্য মা’মলার অ’ভিযোগপত্র গ্রহণ শেষে আ’দালত চত্বরে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে এসব তথ্য জানান রায়হানের মা ও সৎ বাবা।

গতবছরের ১১ অক্টোবর বন্দরবাজার পু’লিশ ফাঁড়িতে নি’র্যা’তনে মা’রা যান নগরের আখালিয়া এলাকার যুবক রাহয়হান আহম’দ। সে সময় বন্দরবাজার ফাঁ’সির ইনচার্জ ছিলেন এসআই আকবর হোসেন ভূইয়া। তার নি’র্যা’তনেই রায়হানের মৃ’ত্যুর অ’ভিযোগ ওঠে।

পু’লিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) ত’দন্তেও রায়হানের মৃ’ত্যুতে আকবরের সংশ্লিস্টতার প্রমাণ মেলে। গত ৫ মে আকবর হোসেনসহ ৬ জনকে অ’ভিযু’ক্ত করে অ’ভিযোগপত্র প্রদান করে পিবিআই।

বৃহস্পতিবার (৩০ সেপ্টেম্বর) এই অ’ভিযোগপত্র গৃহণ করেন সিলেটের অ’তিরিক্ত মূখ্য মহানগর হাকিম আব্দুল মোমেনের আ’দালত।

অ’ভিযোগপত্র আ’দালতে গ্রহণের পর আ’দালত প্রাঙ্গনে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে সালমা বেগম ও হাবিবুল্লাহ জানান, কিছুদিন আগে রায়হান হ’ত্যা মা’মলার বিচারবিভাগীয় ত’দন্তের জন্য রায়হানের মা সালমা, স্ত্রী’ তাহমিনা আক্তার তান্নী ও সৎ বাবা হাবিবুল্লাহকে পু’লিশ সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগার ফট’কে নিয়ে সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়। সাক্ষ্যগ্রহণকালে কারান্তরীণ আ’সামি আকবর হোসেন ভুঁইয়া, এসআই হাসান উদ্দিন, এএসআই আশেক এলাহী, কনস্টেবল টিটুচন্দ্র দাস ও হারুনুর রশিদকে রায়হানের পরিবারের সদস্যদের সামনে নিয়ে আসা হয়।

এসময় তারা রায়হানের মা ও সৎ বাবার পা ধরে কেঁদে কেঁদে ক্ষমা চান। তবে সালমা ও হাবিবুল্লাহ এস.আই আকবরদের কখনো ক্ষমা করবেন না বলে জানান।

এসময় আকবরসহ অন্য পু’লিশ সদস্যরা সালমা বেগমকে বলেন, ‘আম’রা ভুল তথ্য পেয়ে রায়হানের মতো ভালো একটি ছে’লেকে নি’র্যা’তন করেছি। আমাদের ভুল হয়েছে। আম’রা বুঝতে পারিনি। আমাদের ক্ষমা করে দিন।’

এর উত্তরে সালমা বেগম বলেন, ‘আমা’র ছে’লেও তো তোমাদের কাছে সেদিন প্রা’ণ ভিক্ষা চেয়েছিলো। কিন্তু তোম’রা সেদিন পাষণ্ড ছিলে। আমা’র ছে’লের প্রা’ণ ভিক্ষা দাওনি। তাই আজ আম’রাও তোমাদের কোনোভাবেই ক্ষমা করবো না।’

এদিকে, বৃহস্পতিবার সকালে অ’তিরিক্ত মুখ্য মহানগর আ’দালতে এই মা’মলার অ’ভিযোগপত্র গ্রহণের পর পলাতক আ’সামি আব্দুল্লাহ আল নোমানের বি’রুদ্ধে গ্রে’প্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়।

প্রসঙ্গত, গত বছরের ১১ অক্টোবর ভোরে সিলেট শহরের আখালিয়ার এলাকার বাসিন্দা রায়হান আহম’দকে বন্দরবাজার পু’লিশ ফাঁড়িতে নিয়ে নি’র্যা’তন করা হয়। পরে তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতা’লে ভর্তি করা হলে তিনি সেখানে মা’রা যান। পরদিন তার স্ত্রী’ তাহমিনা আক্তার তান্নী কোতোয়ালি থা’নায় হ’ত্যা মা’মলা দায়ের করেন।

মা’মলা’টির ত’দন্তে প্রথমে পু’লিশ ছিল। পরে ১৩ অক্টোবর মা’মলা’টি স্থা’নান্তর করা হয় পু’লিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) কাছে। গত ৫ মে মা’মলার ত’দন্ত কর্মক’র্তা পিবিআইয়ের পরিদর্শক আওলাদ হোসেন আ’দালতে অ’ভিযোগপত্র দাখিল করেন। ১ হাজার ৯০০ পৃষ্ঠার প্রতিবেদন দাখিল করা হয়।

যে ছয়জনের বি’রুদ্ধে চার্জশিট দেওয়া হয়, তাদের পাঁচজনই পু’লিশ সদস্য। তারা হলেন- বন্দরবাজার পু’লিশ ফাঁড়ির তৎকালীন ইনচার্জ এসআই আকবর হোসেন ভুঁইয়া, এসআই হাসান উদ্দিন, এএসআই আশেক এলাহী, কনস্টেবল টিটুচন্দ্র দাস ও হারুনুর রশিদ।

অ’ভিযু’ক্ত অ’পরজন আব্দুল্লাহ আল নোমান, যার বাড়ি কোম্পানীগঞ্জে। তার বি’রুদ্ধে ঘটনার পর ভিডিও ফুটেজ গায়েব করার অ’ভিযোগ রয়েছে।

অ’ভিযু’ক্ত পাঁচ পু’লিশ সদস্য কারাগারে থাকলেও নোমান এখনও পলাতক রয়েছেন। ধারণা করা হচ্ছে, তিনি ভা’রতে পালিয়ে গেছে।

এদিকে, পু’লিশ হেফাজতে রায়হানের মৃ’ত্যুর ঘটনায় ময়নাত’দন্ত রিপোর্টে তার শরীরে ১১১টি আ’ঘাতের চিহ্ন থাকার কথা উল্লেখ করা হয়।

রায়হানের মৃ’ত্যুর পরই পালিয়ে যান এসআই আকবর। গেল বছরের ৯ নভেম্বর দুপুরে সিলেটের কানাইঘাট উপজে’লার লক্ষীপ্রসাদ ইউনিয়নের ডোনা সীমান্ত এলাকা থেকে আকবর হোসেন ভূঁইয়া গ্রে’প্তার করে পু’লিশ।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  • 571
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    571
    Shares
নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: