সর্বশেষ আপডেট : ৩ ঘন্টা আগে
মঙ্গলবার, ৯ অগাস্ট ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২৫ শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

অ’বৈধ সম্পদের খবর গো’পন রাখতে পারলেন না সিলেটের সাবেক কাস্টমস কমিশনার দম্পতি!

শেষ রক্ষা হলো না সিলেটের সাবেক কাস্টমস কমিশনার দম্পতির। ধ’রা খেলেন অ’বৈধ সম্পদ অর্জন ঘটনায়। এবার সাবেক কমিশনার, কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট শফিকুল ইস’লাম ও তার স্ত্রী’ মাহবুবা ইস’লামের বি’রুদ্ধে জ্ঞাত আয় বহির্ভূত অ’বৈধ সম্পদ অর্জনের ঘটনায় দু’টি পৃথক চার্জশীট প্রদান করেছেন দু’র্নীতি দমন কমিশন (দুদক), সিলেট। ২০২০ সালের ২০ জানুয়ারী শফিকুল ইস’লামের বি’রুদ্ধে (মা’মলা নং-১) ও একই তারিখে তার স্ত্রী’ মিসেস মাহবুবা ইস’লামের বি’রুদ্ধে (মা’মলা নং-২) দায়ের করা হয়েছিল পৃথক দু’টি মা’মলা। দীর্ঘ ত’দন্ত শেষে গত ২২ মা’র্চ শফিকুল ইস’লামের বি’রুদ্ধে চার্জশীট (নং-২) ও ২৩ মা’র্চ তার স্ত্রী’ মাহবুবা ইস’লামের বি’রুদ্ধে (নং- ৩) আ’দালতে পৃথক চার্জশীট মহানগর জ্যেষ্ঠ বিশেষ জজ আ’দালতে দাখিল করেছেন মা’মলার ত’দন্তকারী কর্মক’র্তা দু’র্নীতি দমন কমিশন (দুদক) সমন্বিত জে’লা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক মো: নূর-ই-আলম।

সিলেটের সাবেক এ কাস্টমস কমিশনার দম্পত্তির গ্রামের বাড়ি কি’শোরগঞ্জের তারাপাশ এলাকার ষ্টেশন রোড সংলগ্ন ‘নিকলী ভবনে’। এ দম্পত্তির অ’বৈধভাবে অর্জিত সম্পদের পরিমান ৫ কোটি, ২১ লাখ, ৬৭ হাজার, ৩শত, ৩৪ টাকা। এর মধ্যে সিলেটের সাবেক কাস্টমস কমিশনার ্ও বর্তমানে ঢাকায় কর্ম’রত মো: শফিকুল ইস’লামের অ’বৈধ সম্পদ মূল্য ১ কোটি ১৬ লাখ ৮৬ হাজার ৬৫ টাকার ও তার স্ত্রী’র মাহবুবা ইস’লামের অ’বৈধ সম্পদের পরিমান ৪ কোটি ৪ লাখ ৮১ হাজার ২শত ৬৯ টাকার। এ অ’বৈধ সম্পদ জ্ঞাত আয় বহির্ভূতভাবেই অর্জন করে ভোগ দখল করছেন তারা।

সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, ২০১৬ সালের ৯ আগস্ট কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট, সিলেটের কমিশনার হিসাবে যোগ দেন মো. শফিকুল ইস’লাম। বর্তমানে তিনি কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট (আপীল) কমিশনারেট হিসেবে কর্ম’রত রয়েছেন ঢাকায়। তার বি’রুদ্ধে অ’বৈধ ভাবে সম্পদ অর্জনের অ’ভিযোগ উঠলে অনুসন্ধানে নামে দুদক, সিলেট। এরই ধারাবাহিকতায় ২০১৮ সালের ২৮ জুন কমিশনার শফিকুল ইস’লাম ও তার স্ত্রী’ মাহবুবা ইস’লাম দুদকে দাখিল করেন পৃথক পৃথক সম্পদ বিবরনী। কিন্তু সেই বিবরণীর সাথে বাস্তবিক আয়-ব্যয় সহ সম্পদের ভিত্তিহীন তথ্য প্রদানের প্রমান পায় দুদক।

একপর্যায়ে অনুসন্ধান শেষে গত বছরের ২০ জানুয়ারি শফিকুল ইস’লাম ও তার স্ত্রী’ মাহবুবা ইস’লামের বি’রুদ্ধে দায়ের করা হয় পৃথক দুইটি মা’মলা। দীর্ঘ ত’দন্তে দেখা যায়, কমিশনার মো: শফিকুল ইস’লাম নিজের অ’বৈধ অর্থ উপার্জনের তথ্য গো’পন রাখতে ছে’লের নামে ক্রয় করেছেন ৮৬৮.৫ শতাংশ জমি। এছাড়া স্ত্রী’ সন্তান নিয়ে একই সংসারের বাসিন্দা হলেও নিজে পারিবারিক সহ অন্য খাতে ব্যয় দেখিয়েছেন ৩২ লাখ ৭৩ হাজার ৫ শত ১৮ টাকা। তার স্ত্রী’ মাহবুবা ইস’লাম একভভাবে পরিবার সহ অন্য খাতে ব্যয় করেছেন ১৪ লাখ ৭ হাজার ১শত ১৫ টাকা।

অথচ মো: শফিকুল ইস’লামের বৈধ আয় ১ কোটি ২০ লাখ ৩০ হাজার ১ শত ২৫ টাকা ও তার স্ত্রী’ মাহবুবা ইস’লামের বৈধ আয় ৩১ লাখ ৬২ হাজার টাকা মাত্র। এছাড়া স্বামী মো: শফিকুল ইস’লামের অ’বৈধভাবে উপার্জিত অর্থ গো’পন রাখতে নিজ নামে ফ্ল্যাট ও বাণিজ্যিক স্পেস ক্রয়ের জন্য ডেভেলপার কোম্পানীকে প্রদত্ত টাকার পরিমানের বিপরীতে বিভিন্ন মানি রিসিটে সম্পদের মূল্য কম দেখিয়ে দলিল সম্পাদন করিয়া মিসেস মাহবুবা ইস’লাম।

দুদকে প্রদত্ত সম্পদ বিবরনীতে কাস্টমস কমিশনার মো: শফিকুল ইস’লাম উল্লেখ করেছিলেন, তার স্থাবর সম্পদের পরিমান ৩৭ লাখ ৪৫ হাজার মাত্র। কিন্তু ত’দন্তে প্রমাণীত হয় তার নিজ নাম সহ মে’য়ে ও ছে’লের নামে স্থাবর সম্পদের পরিমান ৫২ লাখ ৯৬ হাজার টাকা মূল্যের। এতে ১৫ লাখ ৫১ হাজার টাকা মূল্যের স্থাবর সম্পদের তথ্য গো’পন রাখেন তিনি। এছাড়া অস্থাবর সম্পদের ঘোষনা দিয়েছিলেন, ৯৫ লাখ ১৩ হাজার ৪ শত ৫৭ টাকা মূল্যের।

কিন্তু ত’দন্তে মো: শফিকুল ইস’লাম সহ তার ছে’লে ও মে’য়ের নামে ১ কোটি ৫১ লাখ ৪৬ হাজার ৬শত ৭২ টাকা মূল্যের অস্থাবর সম্পদের চিত্র বেরিয়ে আসে। এক্ষেত্রেও ঘোষিত তথ্যের চেয়ে প্রকৃত অস্থাবর সম্পদের ব্যবধান দাঁড়ায় ৭১ লাখ ৮৪ হাজার ২ শত ১৫ টাকার। ত’দন্তে বেরিয়ে আসে কমিশনার শফিকুল ইস’লাম নিজে ও তার সন্তানের নামে ৫২ লাখ ৯৬ হাজার টাকার মূল্যের স্থাবর সম্পদ ও ১ কোটি ৫১ লাখ ৪৬ হাজার ৬শত ৭২ টাকা মূল্যের অস্থাবর সম্পদের তথ্যে। এভাবে ২ কোটি ৪ লাখ ৪২ হাজার ৬শত ৭২ টাকার সম্পদ অর্জন করেছেন তিনি।

এছাড়া পরিবার সহ অন্যখাতে ব্যয় করেছেন ৩২ লাখ ৭৩ হাজার ৫শত ১৮ টাকা। এতে করে তার উপার্জিত সম্পদের পরিমান দাঁড়ায় ২ কোটি ৩৭ লাখ ১৬ হাজার ১শত ৯০ টাকা মূল্যের। অথচ তার নিজ নামে বৈধ আয়ের উৎসের পরিমান মাত্র ১ কোটি ২০ লাখ ৩০ হাজার ১২৫ টাকা। এর মধ্যে দিয়ে প্রমান হয় প্রদত্ত সম্পদ বিবরনী ও তার বৈধ আয় উৎসের বাইরে অর্জিত সম্পদের পরিমান ১ কোটি ১৬ লাখ ৮৬ হাজার ৬৫ টাকা।

এই সম্পদ অর্জনের বৈধ উৎস প্রমানেও ব্যর্থ হয়েছেন তিনি। কমিনার মো: শফিকুল ইস’লাম জ্ঞাত আয়ের সাথে অসংগতিপূর্ণ ১ কোটি ১৬ রাখ ৮৬ হাজার ৬৫ টাকা মূল্যের সম্পদ নিজে ভোগ দখলে রাখার অ’ভিযোগে দুদক আইন ২০০৪ এর ২৭ (১) ধারায় শা’স্তিযোগ্য অ’প’রাধ সংগঠিত করেন। এছাড়া অ’বৈধভাবে উপার্জিত সম্পদ গো’পন রাখার নিমিত্তে নিজ পূত্রের নামে ৮৬৮.৫ শতাংশ জমি ক্রয় করলেও প্রদত্ত সম্পদ বিবরনীতে লুকিয়ে রাখেন এ তথ্য। সেকারনে মানি লন্ডারিং প্রতিরোধে আইন ২০১২ এর ৪(২) ধারায় শা’স্তিযোগ্য অ’প’রাধ করেছেন তিনি।

অন্যদিকে, সিলেটের সাবেক কাস্টমস কমিশানের স্ত্রী’ মিসেস মাহবুবা ইস’লাম দুদকে তার প্রদত্ত সম্পদ বিবরনীতে উল্লেখ করেন, ১ কোটি ১০ হাজার টাকার মূল্যের স্থাবর সম্পদের তথ্য। কিন্তু ত’দন্তে বেরিয়ে আসে সেই স্থাবর সম্পদের পরিমান ১ কোটি ৮১ লাখ৩৩ হাজার ৭ শত ৬ টাকা মূল্যের। প্রকৃত চিত্রের চেয়ে ৮১ লাখ ২৩ হাজার ৭শত ৬টাকা মূল্যের অস্থাবর সম্পদের হিসেব গো’পন রেখেছিলেন তিনি। ঘোষিত তথ্যে উল্লেখ করেছিলেন অস্থাবর সম্পদের পরিমান ২ কোটি ২৫ লাখ ৮৮হাজার ১ শত ১৯ টাকা মূল্যের।

কিন্তু ত’দন্তে দেখা যায়, তার প্রকৃত অস্থাবর সম্পদের পরিমান ২ কোটি ৪১ লাখ ২ হাজার ৪ শত ১২টাকার। এক্ষেত্রে গো’পন করেছেন ১৫ লাখ ১৪ হাজার ২৯৩ টাকা মূল্যের অস্থাবর সম্পদের তথ্য। ত’দন্তে প্রমান হয়, মিসেস মাহবুবা ইস’লামের স্থাবর ও অস্থাবর সম্পদ অর্জন করেছেন ৪ কোটি ২২ লাখ ৩৬ হাজার ১শত ১৮ টাকা মূল্যের। এছাড়া পারিবারিক সহ অন্য খাতে ব্যয় দেখিয়েছেন ১৪ লাখ ৭হাজার ১ শত ১৫ টাকা।

এর মধ্যে দিয়ে মাহবুবা ইস’লামের মোট সম্পদের পরিমান দাঁড়ায় ৪ কোটি ৩৬ লাখ ৪৩ হাজার ২শ ৬৯ টাকায়। অথচ সার্বিক পর্যালোচনা শেষ তার বৈধ আয়ের উৎসের পরিমান ছিল ৩১ লাখ ৬২ হাজার টাকা। অথচ ৪ কোটি ৪ লাখ ৮১ হাজার ২শত ৬৯ টাকা মূল্যের সম্পদ অ’বৈধ ভাবে অর্জন করে ভোগ দখল করছেন তিনি। এর মধ্যে দিয়ে দু’র্নীতি দমন কমিশন (দুদক) আইনের ২০০৪ এর ২৭(১) ধারায় শা’স্তিযোগ্য অ’প’রাধ করেছেন। এছাড়া স্বামী মো: শফিকুল ইস’লামের অ’বৈধভাবে উপার্জিত অর্থ গো’পন রাখতে নিজ নামে ফ্ল্যাট ও বাণিজ্যিক স্পেস ক্রয়ের জন্য ডেভেলপার কোম্পানীকে প্রদত্ত টাকার পরিমানের বিপরীতে বিভিন্ন মানি রিসিটে সম্পদের মূল্য কম দেখিয়ে দলিল সম্পাদন করিয়া মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইন ২০১২ এর ৪(২) ধারায় শা’স্তি যোগ্য অ’প’রাধ সংগঠিত করেন মিসেস মাহবুবা ইস’লাম । সূত্র: ইনকিলাব

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Comments are closed.

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: