সর্বশেষ আপডেট : ৫ ঘন্টা আগে
মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪ খ্রীষ্টাব্দ | ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

সিলেটের নিরুত্তাপ ভোটে শুরু, সংঘাতে অস্ত্রের মহড়া শেষ

ডেইলি সিলেট ডেস্ক ::

অনেকটা আতঙ্কের মধ্য দিয়ে ৬ষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে সিলেটে ভোট গ্রহণ সম্পন্ন হলো। সকালে নিরুত্তাপ ছিল ভোটের ময়দান। ভোটারদের আনাগোনা ছিল কম। প্রার্থী ও তাদের সমর্থকরা কেন্দ্রে কেন্দ্রে ঘুরলেও ভোটার টানতে পারেননি। এ অবস্থায় দুপুর থেকে কেন্দ্রে আধিপত্য বিস্তার করতে গেলে বিভিন্ন স্থানে প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। কেন্দ্রের সামনে প্রকাশ্যে যুবলীগ নেতার নেতৃত্বে রাম দা হাতে মহড়া দিয়েছেন। বিকেলে বৃষ্টিভেজা ভোটের মাঠ উত্তপ্ত করে তোলেন প্রার্থীর পক্ষের সমর্থকরা।

বুধবার (৮ মে) সিলেট জেলার চারটিসহ বিভাগের ১১টি উপজেলায় ভোট গ্রহণ সকাল ৮টা থেকে শুরুটা ছিল শান্তিপূর্ণ। কিন্হতু বিকেল ৪টায় শেষ হওয়ার আগ পর্যন্ত সেই শান্তি বজায় থাকেনি। সবদিকে কেবল চরম উত্তেজনার খবর ছড়িয়ে পড়ছিল।

এ অবস্থায় বিকাল ৪টায় ভোট গ্রহণ শেষে চলছে গণনা কার্যক্রম। বিভাগে নির্বাচন অনুষ্ঠিত ১১টি উপজেলা হলো- সিলেট জেলার সদর, দক্ষিণ সুরমা, বিশ্বনাথ ও গোলাপগঞ্জ, সুনামগঞ্জের দিরাই ও শাল্লা, মৌলভীবাজারের জুড়ি, কুলাউড়া ও বড়লেখা এবং হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জ ও বানিয়াচং।

সিলেটের জেলার সদর উপজেলায় দুটি কেন্দ্র দখলের চেষ্টা, গোলাপগঞ্জ উপজেলার একটি কেন্দ্র দখল নিয়ে গিয়ে রাম দা হাতে প্রতিপক্ষকে ধাওয়া করেছে যুবলীগ নেতার নেতৃত্বে সন্ত্রাসীরা।

স্থানীয়রা জানান, গোলাপগঞ্জ উপজেলার কাইস্তগ্রাম সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে বেলা আড়াইটার দিকে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। বেলা আড়াইটার দিকে ওই বিদ্যালয় কেন্দ্রে উপজেলা চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী শাহিদুর রহমান চৌধুরী জাবেদ (ঘোড়া) ও আবু সুফিয়ান উজ্জ্বল (আনারস) কর্মী সমর্থকরা একসাথে কেন্দ্রে ঢুকেন। কেন্দ্রের বাইরে স্থানীয় ইউপি সদস্যের বক্তব্যের প্রেক্ষিতে উত্তেজনা দেখা দেয়। এক পর্যায়ে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এসময় অপর প্রার্থী মঞ্জুর কাদির শাফি চৌধুরী এলিমের (দোয়াত-কলম) কর্মী সমর্থকদের মধ্যেও উত্তেজনা ছড়ায়।

এই ঘটনার জের ধরে আনারস প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী আবু সুফিয়ান উজ্জলের পক্ষে জেলা যুবলীগের উপ দপ্তর সম্পাদক মনিরুল হক পিনু নেতৃত্বে কর্মীরা প্রকাশ্যে কেন্দ্রের সামনে এসে প্রতিপক্ষকে ধাওয়া করে। ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনায় আতঙ্কে ভোটারশূণ্য হয়ে পড়ে কেন্দ্রটি। উপস্থিত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা তাদের নিভৃত করতে পারেনি। খবর পেয়ে স্ট্রাইকিং ফোর্স ও মোবাইল টিম ঘটনাস্থলে পৌছালে অস্ত্রধারীরা পালিয়ে যায়।

তবে এ ঘটনায় ভোটগ্রহণে কোনো প্রভাব পড়েনি দাবি করে কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার আব্দুস শহীদ বলেন, ঘটনার পরও কার্য্যক্রম স্বাভাবিকভাবেই চলেছে। অবশ্য নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছিল।

গোলাপগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট অভিজিৎ চৌধুরী গণমাধ্যমকে বলেন, বাইরে বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটেছে। তবে ভোটে কোন প্রভাব পড়েনি।

এরআগে দুপুর ১২টার দিকে সিলেট সদর উপজেলার খাদিমপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা দলবেঁধে নারীদের ৩টি বুথে ঢুকে জাল ভোট দেওয়ার চেষ্টা করেন। এসময় নির্বাচনী কর্মকর্তারা ভয়ে প্রিসাইডিং অফিসারের কক্ষে চলে যান। খবর পেয়ে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে স্ট্রাইকিং ফোর্স কেন্দ্রে অবস্থান করে। এসময় বিশৃঙ্খলার কারণে কোনো ভোটার উপস্থিত ছিল না।

এরপর দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বাধীন স্ট্রাইকিং ফোর্স ওই কেন্দ্র ত্যাগ করে। পরে আবারো ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা কেন্দ্রে ঢুকে জাল ভোট দেওয়ার চেষ্টা করে। এক পুলিশ সদস্য বাধা দিতে গেলে বাকবিতণ্ডায় লিপ্ত হন কর্মী সমর্থকরা। তারা পুলিশ সদস্যকে ধরে টানা হেঁচড়া শুরু করেন। এসময় উত্তপ্ত পরিস্থিতি সৃষ্টি হলে পুলিশের মারমুখী অবস্থানের কারণে নেতাকর্মীরা কেন্দ্র ত্যাগ করেন। ছাত্রলীগের বিশৃঙ্খল পরিস্থিতিতে কেন্দ্র পরিদর্শনে গিয়ে কিছুক্ষণ আটকা পড়েন সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আশফাক আহমদ চৌধুরী। পরে পরিস্থিতি শান্ত হলে তিনি কেন্দ্র ত্যাগ করেন।

ওই কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার দ্বিরাজ বর্মণ বলেন, দুপুরে ১২টার সময় একদল বহিরাগত যুবক ভেতরে ঢুকে জোরপূর্বক ভোট দেওয়ার চেষ্টা করে। তখন ভোট দানে নিয়োজিত কর্মকর্তারা নিরাপত্তার কারণে ব্যালট নিয়ে প্রিসাইডিং অফিসারের কক্ষে গিয়ে অবস্থান নেন। বেলা ১২টা ২০ মিনিটে আবারো ভোটগ্রহণ শুরু হলেও বহিরাগতদের ঝামেলার কারণে ভোটগ্রহণ বন্ধ রাখা হয়। তরে পরিস্থিতি শান্ত হওয়ার পর ফের পৌনে ১টা থেকে ভোটগ্রহণ শুরু হয়।

এছাড়া সদর উপজেলার টুকেরবাজার ইউনিয়নের দলদলি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রে দুপুরে একঘন্টা ভোট গ্রহণ সাময়িকভাবে বন্ধ ছিল। ওই কেন্দ্রে জাল ভোট দেওয়ার অভিযোগ তুলে ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন চা শ্রমিকরা। এসময় জাল ভোটারের ছবি তুলতে গেলে রেজা রুবেল নামে এক ফটো সাংবাদিকের ওপর হামলার ঘটনা ঘটে।

এরআগে ১ কেন্দ্রে প্রার্থীর এজেন্টকে ঢুকতে না দেওয়ার অভিযোগ করেন চেয়ারম্যান পদে কাপ-পিরিচ প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগ নেতা অধ্যক্ষ সুজাত আলী রফিক। আর টেলিফোন প্রতীকের প্রার্থী মো. খলিলুর রহমান ভোটারদের কেন্দ্রে আসতে ভয়-ভীতি দেখানো হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন।

সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার (মিডিয়া) মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম বলেন, সিলেট সদর উপজেলার কয়েকটি কেন্দ্রে বিশৃঙ্খলা হয়েছে। ভোটারদের উপস্থিতি কম থাকায় প্রার্থীর পক্ষের লোকজন ভোট দেওয়ার চেষ্টা করেছেন। এছাড়া দুপুরে নগর সংলগ্ন দলদলি চা বাগান বিদ্যালয় কেন্দ্র দখলের চেষ্টায় কিছুক্ষণ ভোটগ্রহণ স্থগিত ছিল। পরে আবার ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। তবে বিশৃঙ্খলার দায়ে কাউকে আটক করা হয়নি। কেবল নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে চলা বেশ কিছু মোটরসাইকেল জব্দ করা হয়েছে।

সিলেটের চার উপজেলার ৩০২টি ভোটকেন্দ্রের মধ্যে ১৭৪টি কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ ধরে নিরাপত্তা পরিকল্পনা করে সিলেট জেলা ও মহানগর পুলিশ। নির্বাচন সুষ্ঠু করতে ছয় হাজারের বেশি পুলিশ ও আসনার সদস্য মোতায়েন করা হয়।

সিলেট বিভাগের চারটি উপজেলায় মোট ভোটার সংখ্যা আট লাখ ১৪ হাজার ৫২ এবং ভোটকেন্দ্র ৩০২টি। এর মধ্যে ২২টিতে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম)-এর মাধ্যমে এবং বাকিগুলোতে ব্যালটের মাধ্যমে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। ভোট শেষে এবার গণনার পর ফলাফলের অপেক্ষায় নির্বাচনী এলাকার মানুষ ও নেতাকর্মীরা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: