সর্বশেষ আপডেট : ৩ ঘন্টা আগে
সোমবার, ২৬ জুলাই ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১১ শ্রাবণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

সিলেটে ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ রাজা ম্যানশন ভাঙতে চায় রাজা পরিবার

ওয়েছ খছরু: সিলেটের রাজা ম্যানশন। জিন্দাবাজারকেন্দ্রিক ব্যবসার অন্যতম কেন্দ্র। ঐতিহ্য আছে মা’র্কে’টের। সিলেটের রাজা পরিবারের সম্পত্তি এই মা’র্কেট। ওই বংশের পূর্ব পুরুষ ম’রমি কবি হাছন রাজা। অর্ধশতাব্দি বছর বয়সী এই রাজা ম্যানশন এবার ভাঙতে চায় রাজা পরিবার। ভাঙার পেছনের কারণ হলো- রাজা ম্যানশনটি ঝুঁ’কিপূর্ণ। প্রায়
বছর আগেই সিটি করপোরেশন থেকে মা’র্কেটটিকে ঝুঁ’কিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করে রেখেছে।

এবারের কয়েক দফা ভূমিকম্পের পর ঝুঁ’কিপূর্ণ হওয়ায় চলতি মাসের শুরুতে ১০ দিন বন্ধ রাখা হয়েছিল মা’র্কেটটি। ‘মানবিক’- বিবেচনায় মা’র্কেটটি খুলে দেয়া হলেও এখন পুরাতন মা’র্কেট ভেঙে নতুন ভবন নির্মাণ নিয়ে রাজা পরিবারের মুখোমুখি হয়েছেন ব্যবসায়ীরা। ৩০ দিনের মধ্যে মা’র্কে’টের পজিশন খালি করতে ইতিমধ্যে আইনগত বি’জ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে। কিন্তু ব্যবসায়ীরা সিটি করপোরেশনের ঝুঁ’কিপূর্ণ চিহ্নিত ও রাজা পরিবারের সিদ্ধান্ত মানতে নারাজ। সিলেট নগরীর জিন্দাবাজারের প্রা’ণকেন্দ্রে অবস্থিত রাজা ম্যানশন। ১৯৭৫ সালের শেষ দিকে রাজা পরিবার তাদের পারিবারিক সম্পত্তিতে ৫ তলা ফাউন্ডেশনে ৪৫ শতক ভূমির ওপর একটি মা’র্কেট নির্মাণ করেন। পরবর্তীতে পর্যায়ক্রমে রাজা পরিবারের পক্ষ থেকে দোকান কোঠা ভাড়া দেয়া হয়। বর্তমানে তিনতলাবিশিষ্ট ওই মা’র্কে’টের দোকানের সংখ্যা প্রায় ১৮৭টি। বইয়ের মা’র্কেট হিসেবে এটি পরিচিত। মাসিক ভাড়ার ভিত্তিতে ব্যবসায়ীরা ব্যবসা পরিচালনা করছেন। ২০১৬ সালে ভূমিকম্পে ঝুঁ’কিপূর্ণ বিবেচনায় নগরের কয়েকটি পুরাতন মা’র্কেট’কে চিহ্নিত করে সিলেট সিটি করপোরেশন।

এর মধ্যে রাজা ম্যানশনটি অন্যতম। ওই সময় সিটি করপোরেশনের নোটিশের প্রেক্ষিতে রাজা পরিবার মা’র্কে’টের ব্যবসায়ীদের ভবন ত্যাগ করার জন্য অনুরোধ জানালেও ব্যবসায়ীরা সেটি মানেননি। বরং তারা ঝুঁ’কিপূর্ণ ভবনে ব্যবসা পরিচালনা করতে থাকেন। এই অবস্থায় গত ২৯ ও ৩০শে মে সিলেটে কয়েক দফা ভূমিকম্প হয়। এই ভূমিকম্পের পর সিলেট সিটি করপোরেশন কর্তৃপক্ষ আগেই ঝুঁ’কিপূর্ণ চিহ্নিত করা রাজা ম্যানশনকে বন্ধ ঘোষণা করে। ফলে ৩১শে মে থেকে পরবর্তী ১০ দিন মা’র্কেটটি বন্ধ ছিল। এ সময় রাজা পরিবারের পক্ষ থেকে সিলেটের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর সঙ্গে যোগাযোগ করেন। মেয়র মা’র্কেটটি ঝুঁ’কিমুক্ত করতে দ্রুত কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণের কথা জানান। নতুবা সিটি করপোরেশন থেকে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে রাজা পরিবারকে জানিয়ে দেয়া হয়। এই অবস্থায় মা’র্কে’টের মালিকপক্ষ বেকায়দায় পড়েন।

একদিকে সিটি করপোরেশনের চোখ রাঙানি, অন্যদিকে নতুন করে মা’র্কেট নির্মাণে ব্যবসায়ীদের অনীহা- এই দুই বিষয় নিয়ে তারা দোটানায় পড়েন। মা’র্কে’টের এসব বিষয় নিয়ে গতকাল সিলেটে রাজা পরিবারের পক্ষ থেকে সংবাদ সম্মেলন করেছেন দেওয়ান সমশের রাজা চৌধুরী। তিনি জানিয়েছেন- সিটি করপোরেশনের কঠোর নির্দেশনার প্রেক্ষিতে তাদের পরিবারের পক্ষ থেকে ১৩ই জুন মা’র্কে’টের ব্যবসায়ীদের জ্ঞাতার্থে আইনগত বি’জ্ঞপ্তি দেয়া হয়েছে। এতে বলা হয়েছে- ঝুঁ’কিপূর্ণ ভবন ধসে জানমালের ক্ষতিরোধে ৩০ দিনের মধ্যে ভবন খালি করে মালিকপক্ষকে দখল সমঝে দেয়ার জন্য। মালিকপক্ষের আইনি উদ্যোগের পর রাজা ম্যানশন দোকান মালিক সমন্বয় কমিটির পক্ষে আরেকটি আইনি নোটিশ প্রদান করা হয়। সমশের রাজা জানান- ওই নোটিশেও স্বীকার করে নেয়া হয়েছে ভবনটি ঝুঁ’কিপূর্ণ।

একটি ঝুঁ’কিপূর্ণ ভবনকে মেরামত করতে হলে মা’র্কেট খালি করা প্রয়োজন। কিন্তু সে ব্যাপারে কিছু বলা হয়নি। সংবাদ সম্মেলনে দেওয়ান সমশের রাজা চৌধুরী দাবি করেন- ১৮৭টি দোকান কোঠা থেকে প্রতিমাসে রাজা পরিবারকে নামমাত্র ৫০ হাজার টাকা ভাড়া দেয়া হয়। এখনো অনেক ভাড়াটিয়ার কাছে বকেয়া পড়ে আছে। কিন্তু ভাড়াটিয়ারা সাবভাড়া দিয়ে মাসে ন্যূনতম ২৫ লাখ টাকা আদায় করছেন। প্রশ্ন তুলে তিনি বলেন- সিটি করপোরেশন ঝুঁ’কিপূর্ণ ভবন বিবেচনায় সেটি বন্ধ করে দিয়েছিল। এখন খুলে দিলো কী’ কারণে সেটি বোধগম্য হচ্ছে না।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি জানান- ‘ঝুঁ’কিপূর্ণ এই ভবন যেহেতু সংস্কার করে ব্যবহার করা সম্ভব নয়, সেহেতু ভবনটি ভেঙে অ’ত্যাধুনিক সুবিধা সংবলিত আধুনিক বিপণি বিতান নির্মাণ করতে রাজা পরিবার ইচ্ছুক। একই সঙ্গে মা’র্কে’টের প্রথম থেকে তৃতীয় তলার তালিকাভুক্ত ভাড়াটিয়াদের দিতেও রাজি। এ কারণে দ্রুত মা’র্কেট ভেঙে ফেলতে তিনি ব্যবসায়ীসহ সকল মহলের সহযোগিতা কা’মনা করেন।’ এদিকে গতকাল মা’র্কে’টের মালিক সমিতির নেতারা জানিয়েছেন- সিটি করপোরেশনের নোটিশ প্রাপ্তির পর তারা মা’র্কে’টে নতুন করে মেরামত কাজ শুরু করে দিয়েছেন।

এই কাজ এখনো চলমান। কাজ শেষ হলে মা’র্কেটটি ঝুঁ’কিমুক্ত হবে। আর এই মেরামতের ব্যয়ভা’র ব্যবসায়ীরা বহন করছেন বলে জানান তারা। রাজা ম্যানশন ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি মাসুদ হোসেন খান গতকাল বিকালে মানবজমিনকে জানিয়েছেন- ‘রাজা ম্যানশন কেন ঝুকিপূর্ণ; সেটি কেউ বলছে না। যেহেতু মা’র্কে’টের ফাউন্ডেশন ৫ তলা, এ কারণে ব্যবসায়ীরা মা’র্কেট’কে ঝুঁ’কিপূর্ণ মনে করছেন না। সিটি করপোরেশনের কথামতো মেরামত কাজ করা হচ্ছে।’

তিনি বলেন- ‘মা’র্কে’টের যারা দোকানের মালিক হয়েছেন তারা পজিশন কিনে হয়েছেন। জমিদারি ট্যাক্স নিচ্ছেন রাজা পরিবার। তারা যদি মা’র্কেট ভাঙতে চান তাহলে সেটি ব্যবসায়ীদের সঙ্গে আলোচনা করে করতে হবে। একই সঙ্গে মা’র্কেট পুনঃনির্মাণকালীন সময়ে ব্যবসায়ীদের ক্ষতিপূরণের কী’ হবে সেটি নিয়ে আলোচনা প্রয়োজন বলে জানান তিনি।

সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী জানিয়েছেন- কয়েক দফা ভুমিকম্পের পর যে বিশেষজ্ঞ কমিটি গঠন করা হয়েছিল তাদের প্রাথমিক রিপোর্টেও মা’র্কেটটি ঝুঁ’কিপূর্ণ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। এখন কতটুকু ঝুঁ’কিপূর্ণ সেটি নির্ণয় করা সময় সা’পেক্ষ ও ব্যয়বহুল বিষয়। এ নিয়ে চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে। মা’র্কে’টের মালিক রাজা পরিবার সিদ্ধান্ত নেবে মা’র্কেট পুনঃনির্মাণ করবে না মেরামত করবে। সিদ্বান্ত তারা নিতে হবে। এবং দ্রুততম সময়ের মধ্যে এই সিদ্ধান্ত সিটি করপোরেশনকে জানাতে হবে। এই নিয়ম সিলেটের ঝুঁ’কিপূর্ণ সব মা’র্কে’টের বেলায় প্রযোজ্য হবে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  • 108
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    108
    Shares
নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: