সর্বশেষ আপডেট : ৩৬ মিনিট ৩৯ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ৪ ডিসেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

সোমাইয়ার ছোঁয়ায় বদলে গেছে কমলগঞ্জ উপজেলা ভূমি অফিস

সালাহ্উদ্দিন শুভ ::

সেবাগ্রহীতা নিজে উপস্থিত হয়ে তার সমস্যা জানাতেই পেয়ে যাচ্ছেন সেবা। সকল শ্রেণী-পেশার মানুষকে এই অফিসে সমানভাবে মূল্যায়ন করা হয়। দুর্নীতি ও দালালমুক্ত এবং হয়রানি ছাড়াই করা যায় সব কাজ। উপজেলা ভূমি অফিসের বিরুদ্ধে সাধারণত যেসব অনিয়মের অভিযোগ ওঠে এখানে নেই সেসব। বলা হচ্ছে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার ভূমি অফিসের কথা। এমন ব্যতিক্রমী কাজ সম্ভব হয়েছে বর্তমান সহকারী কমিশনার (ভূমি) কর্মকর্তা সোমাইয়া আক্তারের ঐকান্তিক ও নিরলস চেষ্টার ফলে।

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জবাসীর দীর্ঘদিনের প্রত্যাশা ছিল ভূমি অফিস দুর্নীতি, দালালমুক্ত ও হয়রানিবিহীন সেবা পাওয়ার, যা বর্তমানে পাওয়া যাচ্ছে। সহকারী কমিশনার ও অফিস স্টাফদের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় এটা সম্ভব হয়েছে বলে মনে করে এলাকাবাসী। ভূমি অফিসের সেবায় তারা সন্তোষ প্রকাশ করেছেন। বিভিন্ন পেশার মানুষ সরাসরি এসে ভূমি অফিস থেকে স্বল্প সময়ে কোনো মাধ্যম বা জটিলতা ছাড়াই সেবা গ্রহণ করতে পারছেন। কমলগঞ্জ সাব-রেজিস্ট্রার অফিসের দলিল লেখক ইফতেহার আহমদ রাজু বলেন, ‘আমার একাধিক নামজারি ছিল। কোনো রকম তদবির ছাড়াই এগুলো যথাসময়ে পেয়ে যাই। ভূমি অফিসের সকলেই দায়িত্ব নিয়ে কাজ করছেন, যা আগে দেখিনি।’ এ উপজেলার শমশেরনগর বাজারের ব্যবসায়ী মহিউদ্দিন আহমদ মুহিত বলেন, ‘বর্তমান সহকারী কমিশনার (ভূমি) একজন সৎ ও কর্মঠ ব্যক্তি। আমার ২২ বছর আগের ক্রয়কৃত একটি বাসার জায়গার বিষয়ে তিনি নিজে দাঁড়িয়ে থেকে সরকারি সার্ভেয়ার এনে ম্যাপ দেখে মেপে যে রায় দিয়েছেন, তা ছিল যুগান্তকারী।

একই এলাকার আব্দুল মছব্বির একাডেমীর ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি হাজী আকমল মাহমুদ বলেন, ‘আমার একটি নামজারি ছিল। খুব সহজেই নামজারিটি হয়ে যায়। ভূমি অফিসের স্বচ্ছতা ও দায়িত্বশীলতার জন্যই এটা সম্ভব হয়েছে।’ স্থানীয় সাংবাদিক কামরুল হাসান মারুফ বলেন, ভূমি অফিসের সকল কাজের স্বচ্ছতা লক্ষণীয়। প্রত্যন্ত গ্রামের সাদামাটা সাধারণ মানুষটিও কত সহজে সঠিক কাগজপত্র দেখিয়ে নামজারি থেকে শুরু করে সকল সেবা নিয়ে যাচ্ছেন, যা সত্যিই অকল্পনীয়। আর এসবই হচ্ছে সহকারী কমিশনারের সততা, ঐকান্তিক ও নিরলস প্রচেষ্টায়।

এ বিষয়ে কমলগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সোমাইয়া আক্তার বলেন, ‘অফিসে জরুরি কাজে আসা ভুক্তভোগী জনসাধারণের কাক্সিক্ষত সেবা নিশ্চিত, ঘুষ, দুর্নীতি প্রতিরোধ ও দালালদের দৌরাত্ম্য রোধে আমি নিজেই এসব উদ্যোগ নিয়েছি। এখন কাক্সিক্ষত সেবা পেয়ে স্থানীয় লোকজন অনেক খুশি। সাধারণ লোকজনকে আমি সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিই। কারণ তাদের জন্য হয়তো কেউ আমাকে ফোন দিয়ে বলবে না তার কাজটা করে দিতে। তবে সকল সেবাগ্রহীতাই আমার কাছে সমান গুরুত্বপূর্ণ। সবাইকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে সঠিকভাবে, সঠিক সময়ে ও সহজতর উপায়ে সকল সেবা প্রদানে সচেষ্ট থাকি। আমি সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে আমার দায়িত্ব ও কর্তব্য পালনের চেষ্টা করছি।’

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: