সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
বৃহস্পতিবার, ৬ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২১ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

আবারও বাড়ছে বিদ্যুতের দাম, ঘোষণা দেবে বিইআরসি!

আবারও বাড়ছে বিদ্যুতের পাইকারি দাম। বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি) প্রায় ২০ শতাংশ বাড়ানোর প্রস্তুতি সম্পন্ন করে রেখেছে। সরকারের গ্রিন সিগন্যাল পেলে যে কোনদিন বিদ্যুতের নতুন দাম ঘোষণা করা হবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে। এদিকে দাম না বাড়ালে ২০২২ সালে ৩০ হাজার ২৫১ কোটি ৮০ লাখ টাকা লোকসান হবে বলে জানিয়েছে বিপিডিবি।

বিইআরসির আইন অনুযায়ী গণশুনানির পর ৯০ কর্ম’দিবসের মধ্যে আদেশ দেওয়ার আইনি বাধ্যবাধকতা রয়েছে। গত ১৮ মে গণশুনানি অনুষ্ঠিত হয়েছে। সে হিসেবে ১৪ অক্টোবর পর্যন্ত হাতে সময় আছে। এর মধ্যেই বিদ্যুতের নতুন দাম ঘোষণা করবে বিইআরসি।

সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (বিপিডিবি) বর্তমান দর ইউনিট প্রতি ৫.১৭ টাকা থেকে ৬৬ শতাংশ বাড়িয়ে ৮.৫৮ টাকা করার আবেদন করে। বিইআরসির টেকনিক্যাল কমিটি ভর্তুকি ছাড়া ৮.১৬ টাকা করার মতামত দেয়। অ’তীতে কখনও এতো বেশি পরিমাণে দাম বৃদ্ধির প্রস্তাব দেওয়ার নজির নেই। ২০ শতাংশ দাম বৃদ্ধি হলে তাও হবে নজির বিহীন। সর্বশেষ ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে বিদ্যুতের পাইকারি দর ইউনিট প্রতি ৫.১৭ টাকা নির্ধারণ করে দেয় বিইআরসি।

বিপিডিবির পাইকারি দাম বৃদ্ধির প্রস্তাবে বলা হয়েছে, চাহিদা মতো গ্যাস সরবরাহ না পাওয়ায় তেল দিয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে গিয়ে খরচ বেড়ে গেছে। ২০১৯-২০ অর্থ বছরে বিদ্যুতে গড় উৎপাদন খরচ ছিল ২.১৩ টাকা, ২০২০-২১ অর্থ বছরে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩.১৬ টাকায়।

জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি, কয়লার মু’সক বৃদ্ধির কারণে ২০২২ সালে ইউনিট প্রতি উৎপাদন খরচ দাঁড়াবে ৪.২৪ টাকায়। তাই পাইকারি দাম না বাড়ালে ২০২২ সালে ৩০ হাজার ২৫১ কোটি ৮০ লাখ টাকা লোকসান হবে বলে জানিয়েছে বিপিডিবি। বিপিডিবি বিদ্যুতের একক পাইকারি বিক্রেতা। ৫টি বিতরণ কোম্পানির কাছে পাইকারি দরে বিক্রির পাশাপাশি নিজে ময়মনসিংহ, সিলেট ও চট্টগ্রাম বিভাগের শহরাঞ্চলে বিতরণ করছে বিদ্যুৎ।

জ্বালানি বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, সম্প্রতি গ্যাসের দাম বেড়েছে। এরপর জ্বালানি তেলের দাম ব্যাপক পরিমাণে বাড়ানো হয়েছে। সেই ধাক্কা এখনও সামাল দিতে পারছেনা জনগণ। এসব দাম বৃদ্ধির কারণে নিত্যপণ্যের বাজার অস্থিতিশীল হয়ে পড়েছে। পাইকারি দাম বৃদ্ধি হলে সরাসরি ভোক্তাদের উপর প্রভাব পড়বে না। তবে পাইকারি দাম বাড়লেই খুচরা দাম বৃদ্ধি আবশ্যক হয়ে পড়বে। তাতে বাজার পরিস্থিতি আরও নাজুক পড়ে পড়বে।

তবে বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির কোন যৌক্তিকতা দেখছেন না ক্যাবের সিনিয়র সহসভাপতি জ্বালানি বিশেষজ্ঞ ড. শামসুল আলম। তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, ব্যয়বহুল বলে ডিজে’ল ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র বন্ধ রয়েছে, একই কারণে স্পর্ট মা’র্কেট থেকে এলএনজি আম’দানি বন্ধ। তাই বর্তমান সময়ে বিদ্যুতের দাম কমানো উচিত।

এ প্রসঙ্গে বিইআরসি চেয়ারম্যান আব্দুল জলিল বলেছেন, আম’রা সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করে এনেছি। তবে ভর্তুকিসহ সরকারের কিছু নীতি সিদ্ধান্তের বিষয় আছে। দাম বৃদ্ধি না করেও কোন উপায় করা যায় কিনা তা চিন্তা-ভাবনা করা হচ্ছে। তবে দাম বৃদ্ধি হলেও সামান্য পরিমাণে বাড়বে। এ খাতে সরকার যদি আরেকটু ভর্তুকি বাড়াতে রাজি হয় তাহলে দাম নাও বাড়তে পারে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: