সর্বশেষ আপডেট : ৪ ঘন্টা আগে
সোমবার, ৩ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৮ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

৬৭ বছর বয়সে দিচ্ছেন এসএসসি, প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে লিখেছেন ২৭ কবিতা

নিজের ইচ্ছে পূরণ করতে ৬৭ বছর বয়সে এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছেন আবুল কালাম আজাদ (৬৭) নামে এক বৃদ্ধ। উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছেন। ইতিমধ্যে দুই বিষয়ের পরীক্ষাও দিয়েছেন। বাকি রয়েছে আরেকটি। সেটি আগামী ১৬ সেপ্টেম্বর। ছে’লেরা প্রকৌশলী ও অধ্যাপক হলেও স্কুল বেঞ্চে বসে বাবার এসএসসি পরীক্ষা দেওয়ায় ঘটনা এলাকায় আলোড়ন সৃষ্টি করেছে।

তার বাড়ি শেরপুর জে’লার শ্রীবরদী উপজে’লার খড়িয়া কাজীরচর ইউনিয়নের লংগরপাড়া গ্রামে। কি’শোর বয়সে পরিবার অভাবে থাকায় বেশি পড়ালেখা করতে পারেননি। তবে নিজের তিন ছে’লেকে উচ্চ শিক্ষায় পড়িয়েছেন। তিন ছে’লের মধ্যে বড় ছে’লে ইংরেজির শিক্ষক, মেজো ছে’লেকে কা’মিল পাস ও ছোট ছে’লে প্রকৌশলী। এবার তিনি এসএসসি পাসের লক্ষ্য নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছেন। তার এমন আগ্রহে পড়ালেখার প্রতি উদ্বুদ্ধ হচ্ছেন এলাকার তরুণরা।

জানা গেছে, আবুল কালাম আজাদ লংগরপাড়ার মৃ’ত আব্দুল রশিদ মন্ডলের ছে’লে। ১৯৭৫ সালে এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিলেন তিনি। আর্থিক অনটনের কারণে পরীক্ষা না দিয়ে ঢাকায় চলে যান। সেখানে থাকেন ২২ বছর। ঢাকায় থেকে বিয়ে করেন তিনি। তারপর সৌদি আরবে যান। প্রবাসে কা’টান দীর্ঘ ১৮ বছর। বাড়ি ফিরে সাংসারিক কাজের ফাঁকে শুরু করেন লেখালেখি। ইতিমধ্যে তিনি লিখেছেন অসংখ্য কবিতা, ছড়া, উপন্যাস ও গান। এর মধ্যে দেহদাহ ও দেশরত্ব নামে দুইটি কবিতার বইও প্রকাশ করেছেন।

আবুল কালাম আজাদ জানান, ১৯৭৫ সালে এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিলেন তিনি। ১৯৭৪ সালে দেশে দুর্ভিক্ষ দেখা দেওয়ায় অভাবের কারণে পড়তে পারেনি। পরিবার চালাতে ক’ষ্টসাধ্য হয়ে পড়েছিল। চলে আসেন ঢাকায়। এখানে এসেও পড়ালেখা করতে চেয়েছেন। তা আর সম্ভব হয়ে ওঠেনি। পরে ঢাকা থেকে সৌদি আরব চলে যান।

তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে ২৭টি কবিতা লিখেছি। আর বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে লিখেছি পাঁচটি। আমি চাই, আমা’র লেখা কবিতা যেন প্রধানমন্ত্রী হাতে পৌঁছায়- সে জন্য সুযোগ চাই।’

ছোট বেলা থেকেই স্বপ্ন দেখতেন তিনি শিক্ষিত হবেন। এ কারণে শেষ বয়সে ছে’লেদের সহযোগিতায় শুরু করেন পড়ালেখা। এবার তিনি উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে স্থানীয় একটি বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছেন।

নতুন করে পড়ালেখা করার অ’ভিজ্ঞতা তুলে ধরে কালাম বলেন, ‘এলাকার অনেকেই প্রথম হাসাহাসি করলেও এখন আর কেউ এমন করে না। আর শিক্ষার কোনও বয়স নেই।’

মেজো ছে’লে আরিফুল ইস’লাম বলেন, ‘বাবা সংসার জীবনে অনেক ক’ষ্ট করেছেন। এই কারণে ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও পড়াশোনা করতে পারেননি। শেষ বয়সে তার চাওয়া পূরণ করতে আম’রা সর্বাত্মক সহযোগিতা করছি। আমা’র বাবা এখন পর্যন্ত প্রায় আট হাজার গান, কবিতা ও ছাড়া লিখেছেন।’

স্থানীয় তরুণ রাজিব বলেন, ‘আম’রা তরুণ বয়সেও পড়ালেখা করতেই চাই না। আর আবুল কালাম দাদা বৃদ্ধ বয়সে পড়ালেখা করে এলাকায় সাড়া ফেলেছেন। তার মাধ্যমে আম’রাও পড়ালেখার প্রতি মনযোগী হবো।’

খড়িয়া কাজীরচর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান দুলাল মিয়া বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু, প্রধানমন্ত্রী ও দেশের উন্নয়ন নিয়ে লেখা কবিতার বই প্রকাশ করে এলাকায় প্রশংসিত হয়েছেন আবুল কালাম আজাদ। গ্রামে তিনি কবি কালাম নামে অধিক পরিচিত। এই বয়সে এসে ধৈর্যের সঙ্গে এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছেন- এ কারণে আম’রা তাকে নিয়ে গর্বিত।’

শ্রীবরদী উপজে’লা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মক’র্তা রুহুল আলম তালুকদার বলেন, ‘তিনি চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছেন, শিক্ষার কোনও বয়স নেই। এই ঘটনা দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। এখন পর্যন্ত তিনটি বই রচনা করেছেন- যা আমাদের মুক্তিযু’দ্ধ ও স্বাধীনতার জন্য অনুপ্রেরণা হয়ে থাকবে।’

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: