সর্বশেষ আপডেট : ২ ঘন্টা আগে
বৃহস্পতিবার, ৬ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২১ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

১৫ আগস্ট, ইতিহাসের কালিমালিপ্ত বেদনাবিধুর এক দিন

১৫ আগস্ট, জাতীয় শোক দিবস। মানব সভ্যতার ইতিহাসে ঘৃণ্য ও নৃ’শংসতম হ’ত্যাকা’ণ্ডের কালিমালিপ্ত বেদনাবিধুর এক দিন। ১৯৭৫ সালের এ দিনে প্রতিক্রিয়াশীল ঘা’তকচক্রের হাতে বাঙালি জাতির মুক্তি আ’ন্দোলনের মহানায়ক, স্বাধীন বাংলাদেশ রাষ্ট্রের স্থপতি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হ’ত্যা করা হয়।

সেদিন ইতিহাসের নিষ্ঠুরতম এ হ’ত্যাকা’ণ্ডের শিকার হন বঙ্গবন্ধুর সহধ’র্মিণী মহীয়সী নারী শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিব, একমাত্র ভাই শেখ আবু নাসের, মুজিব দম্পতির জ্যেষ্ঠ পুত্র বীর মুক্তিযোদ্ধা ক্যাপ্টেন শেখ কা’মাল, দ্বিতীয় পুত্র বীর মুক্তিযোদ্ধা লেফটেন্যান্ট শেখ জামাল, কনিষ্ঠ পুত্র নিষ্পাপ শি’শু শেখ রাসেল, নবপরিণিতা পুত্রবধূ সুলতানা কা’মাল ও রোজী জামাল, মুক্তিযু’দ্ধের অন্যতম সংগঠক শেখ ফজলুল হক মণি ও তার অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী’ বেগম আরজু মণি, স্বাধীনতা সংগ্রামের অন্যতম সংগঠক ও জাতির পিতার ভগ্নিপতি আব্দুর রব সেরনিয়াবাত, তার ছোট মে’য়ে বেবী সেরনিয়াবাত, কনিষ্ঠ পুত্র আরিফ সেরনিয়াবাত, দৌহিত্র সুকান্ত আব্দুল্লাহ বাবু, ভ্রাতুষ্পুত্র শহীদ সেরনিয়াবাত, আব্দুল নঈম খান রিন্টু, বঙ্গবন্ধুর প্রধান সাম’রিক সচিব কর্নেল জামিল উদ্দিন আহমেদ ও কর্তব্যরত কর্মক’র্তা-কর্মচারীরা।

বাংলা ও বাঙালির মুক্তির ল’ড়াইয়ে বঙ্গবন্ধু তার সব অনুভূতি, ত্যাগ, সংগ্রাম, বীরত্বপূর্ণ নেতৃত্ব, অদম্য স্পৃহা, দৃঢ়প্রত্যয়, বাঙালি জাতির প্রতি গভীর ভালোবাসা, মমত্ববোধ, রাজনৈতিক দূরদর্শিতা ও আদর্শের মাধ্যমে গোটা জাতিকে উজ্জীবিত করে স্বাধীনতা অর্জনের চূড়ান্ত আত্মত্যাগে দীক্ষিত করে তুলেছিলেন। শেখ মুজিবের নেতৃত্বে ১৯৪৮ সালের ৪ জানুয়ারি উপমহাদেশের অন্যতম ঐতিহ্যবাহী ছাত্র সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের জন্ম লাভ, ’৪৮-এর মা’র্চে উর্দুকে রাষ্ট্রভাষা ঘোষণার প্রতিবাদে আ’ন্দোলন, ’৪৯-এর ২৩ জুন আওয়ামী লীগের আত্মপ্রকাশ, ’৫২-এর রাষ্ট্রভাষা আ’ন্দোলন, ’৫৪-এর যু’ক্তফ্রন্ট নির্বাচন, ’৬২-এর শিক্ষা আ’ন্দোলন, ’৬৬-এর ৬ দফা, ’৬৮-এর আগরতলা ষড়যন্ত্র মা’মলা ও ১১ দফা, ’৬৯-এর গণঅভ্যুত্থান, ’৭০-এর নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নিরঙ্কুশ বিজয়সহ ইতিহাস সৃষ্টিকারী নানা ঘটনার মধ্য দিয়ে বাঙালি জাতির স্বাধীনতা অর্জনের আকাঙ্ক্ষা চূড়ান্ত লক্ষ্যে এগিয়ে যায়।

১৯৭১ সালের ৭ মা’র্চ বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ভাষণে স্বাধীনতা সংগ্রামের অ’গ্নিশপথে ঐক্যবদ্ধ হয় বাঙালি জাতি। ২৬ মা’র্চের প্রথম প্রহরে তিনি বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করলে শুরু হয় সশস্ত্র মুক্তিযু’দ্ধ। তার কালজয়ী নেতৃত্বে পা’কিস্তানি দুঃশাসনের বি’রুদ্ধে দীর্ঘ ২৪ বছরের আ’ন্দোলন-সংগ্রামের স্ফূলি’ঙ্গে উজ্জীবিত নয় মাসের র’ক্তক্ষয়ী মুক্তিযু’দ্ধের মধ্য দিয়ে অর্জিত হয় বাংলাদেশের স্বাধীনতা।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাঙালির স্বাধীনতা ও মুক্তির প্রতীক। তিনি বাংলার মাটি ও মানুষের পরম আত্মীয়, শত বছরের ঘোর নিশীথিনীর তিমির বিদারী অরুণ, ইতিহাসের বিস্ময়কর নেতৃত্বের কালজয়ী স্রষ্টা, বাংলার ইতিহাসের মহানায়ক, স্বাধীন বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্টা, স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠাতা। তিনি বাঙালির জাতির পিতা। সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি। উন্নত সমৃদ্ধ ‘সোনার বাংলা’র স্বপ্নসারথি।

পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট খু’নিরা জাতির পিতাকে হ’ত্যা করেই ক্ষান্ত হয়নি, বর্বরোচিত এ হ’ত্যাকা’ণ্ডের বিচার প্রক্রিয়া বন্ধ করতে ঘৃণ্য ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ জারি করে। ফলে পরবর্তীকালে দীর্ঘ ২১ বছর বাঙালি জাতি বিচারহীনতার ক’লঙ্কের বোঝা বহন করতে বাধ্য হয়। জাতির পিতার সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গঠিত সরকার বঙ্গবন্ধুর হ’ত্যাকারীদের বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে নিয়মতান্ত্রিক বিচারিক প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ২০১০ সালে ঘা’তকদের ফাঁ’সির রায় কার্যকর করার মধ্য দিয়ে বাঙালি জাতিকে ক’লঙ্কমুক্ত করে। বঙ্গবন্ধুকন্যা সব ষড়যন্ত্র উপেক্ষা করে নানা প্রতিকূলতার মুখোমুখি হয়েও যু’দ্ধাপরাধীদের বিচার প্রক্রিয়া শুরু করেছিলেন।

বাঙালির মহান নেতা শেখ মুজিব চিরঞ্জীব, তার চেতনা অবিনশ্বর। বাঙালি জাতির অস্থিমজ্জায় মিশে আছেন মুক্তির অবিসংবাদিত এ মহানায়ক। আজ মুজিবাদর্শে উদ্ভাসিত বাংলার আকাশ-বাতাস ও জল-সমতল। প্রজন্ম থেকে প্রজন্মের কাছে শেখ মুজিবের অবিনাশী চেতনা ও আদর্শ চির প্রবাহমান থাকবে।

জাতির পিতা চেয়েছিলেন ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত বৈষম্যহীন সমাজ প্রতিষ্ঠা করতে। তিনি বাংলার মানুষের মুক্তির যে স্বপ্ন দেখেছিলেন তারই সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্বে আজ সে স্বপ্ন বাস্তবায়ন হচ্ছে। ক্ষুধা-দারিদ্র্য জয় করে বাংলাদেশ আজ বিশ্বসভায় উন্নয়নশীল ও ম’র্যাদাবান জাতি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে। বিশ্বে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের রোল মডেল।

শোকাবহ ১৫ আগস্টে সমগ্র জাতির সঙ্গে একাত্ম হয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও তার সহযোগী, ভ্রাতৃপ্রতিম এবং বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক-রাজনৈতিক সংগঠনসমূহ যথাযোগ্য ম’র্যাদা, শ্রদ্ধা, ভালোবাসা ও ভাবগম্ভীর বেদনাবিধুর পরিবেশে নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে জাতীয় শোক দিবস পালন করবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: