সর্বশেষ আপডেট : ৬ ঘন্টা আগে
শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২৯ শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

হাওরাঞ্চলে বিধ্বস্ত বসত বাড়িতে বিবর্ণ কোরবানির ঈদ

গতকাল ছিল কোরবানির ঈদ। উৎসব আয়োজন ছিল না হাওরাঞ্চলের পরিবারগুলোতে। সুনামগঞ্জের হাওরাঞ্চলে ব’ন্যা পরবর্তী ভোগান্তির গো’লাজলে বি’ধ্বস্ত বসত বাড়িতে এবারের কোরবানি ঈদ বিবর্ণ। টাংগুয়ার হাওর, মাটিয়ান, শনি, মহালিয়া হাওর পাড়ের চার দিকে পানি, বানের পানিতে সব শেষ।

গত ঈদে হাওর পাড়ের কৃষক শ্রমিক দিনমজুর পরিবারে অনুন জ্বালালেও এবার তার বেতিক্রম বেঁচে থাকা টাই এখন বড় দায়। সব খানেই শুনশান নীরবতা। কোথাও নেই কোলাহল, ঈদের আনন্দের পরিবর্তে শুনশান নীরবতা আর ভাল খাবার তাও আজ আকাশের তারার মত। তাই ফিকে হয়ে গেছে ঈদ আনন্দ বানভাসী মানুষ জনের।

সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজে’লার হাওর পাড়ের প্রবল ডেউয়েধ্বং,সস্তূপে পরিনত হওয়া বসত বাড়ি, আর আসবাবপত্রসহ প্রয়োজনীয় সব হারিয়ে নিঃস্ব। তারা এখন কিংকর্তব্যবিমূঢ হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছে। ফলে ঈদের আনন্দ তাদের ছুতে পারছে না, তাদের এখন ঘর গোছানো তেই সময় শেষ। কথা হয় উপজে’লা সদর ইউনিয়নের সূর্যেরগাও গ্রামের খালেদ মিয়ার সাথে।

তার মনে ঈদের আনন্দ নেই। দুবেলা খেয়ে কোনোভাবে বেঁচে থাকা’টাই এখন বড় চ্যালেঞ্জ তাদের কাছে। বানের পানি আর হাওরের ডেউয়ের তা’ন্ডবে ঘর তার লন্ড ব’ন্ড। ব’ন্যায় শুরু থেকে ১৫দিন পর পানি কমলে কোন রখমে ঘর মেরামত করে উঠেছেন তার বাড়িতে বৌ ছে’লে নিয়ে। কিন্তু ঘর মেরামতের জন্য প্রধানমন্ত্রীর দেয়া নগদ অর্থ না পাওয়ায় মনে ক’ষ্ট তার। তিনি বলেন, এই টাকা টা পেলেও আমা’র অনেক উপকার হত। ছোট ফলের ব্যবসার অবস্থাও ভাল না। ব’ন্যায় ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে ব্যবসায়।

তিনি আরও বলেন, গত ১৬ জুন আকস্মিক ব’ন্যায় বাড়ি ঘরের আসবাবপত্র ও সঞ্চিত খাদ্যসহ কিছুই বাঁ’চাতে পারেনি, বেশী ক্ষতিগ্রস্থ। এ ছাড়া ভাঙন থেকে বাঁচতে আরও অর্লধক্ষাধিক পরিবার বিভিন্ন আশ্রয় কেন্দ্রে আশ্রয় নেয়। পানি কমলেও এখনও মানবেতর জীবনযাপন করছে তারা। গত কয়েকদিন আশপাশের মানুষের কাছ থেকে চেয়ে আধপে’টা খেয়ে কোনোভাবে দিন পার করেছেন রংরাজ বেগম। তিনি উপজে’লার শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের দলইরগাঁও গ্রামের সুলতান মিয়া স্ত্রী’। কথা হয় তার সাথে তখন নিজের বসত বাড়িতে পানি থাকায় তিনি ফরেষ্ট অফিসে আশ্রয় কেন্দ্র অবস্থান করছে।

রংরাজ বেগম বলেন, দুবেলা দুমুঠো ভাত খেয়ে বেঁচে থাকা’টাই কঠিন। ঈদ নিয়ে ভাবার সুযোগ নেই আমাদের। মাটিয়ান হাওর আর পাটলাই নদী ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্ত বসত বাড়ি। ইউনিয়ন পরিষদের সামনে একটি দোকান দিয়ে কোন রখমে সংসার চলত। কিন্তু বানের পানিতে ষ্টল আর ঘর, আসবাব, সঞ্চিত খাদ্য, অর্থ সব ভেসে চলে গেছে বানের পানিতে। এখন মানবেতর জীবন কা’টাচ্ছেন। তিনি বলেন, ঘরে খাবার ছিল। সব ভেসে গেছে। এখন আত্মীয়-স্বজনের কাছে হাত পাততে হচ্ছে। ঈদে একটু ভালো খাবারের ব্যবস্থা করার সঙ্গতি নেই। এমনি কথা শুধু খালেদ মিয়া, রংরাজ বেগমের নয় হাওরাঞ্চলের ই’মাম মিয়া, কালাম মিয়াসহ প্রতিটি পরিবার।

তাহিরপুর উপজে’লার সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জুনাব আলী জানান, আমা’র ইউনিয়নের ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার গুলোর প্রতিটি বাড়ি বাড়ি গিয়ে গুরুত্ব সহকারে চিহ্নিত করে কঠোর ভাবে যাচাই বাচাই করে সরকারী সহায়তা বিতরণ করেছি। সরকারী সহায়তা আর বাড়ানো হলে ক্ষতিগ্রস্থরা উপকৃত হবে। ভ’য়াবহ ব’ন্যায় ক্ষতির কারনে এবার কোরবানি ঈদের আনন্দ নেই।

হাওর বেষ্টিত তাহিরপুর উপজে’লার দক্ষিণ শ্রীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলী আহম’দ মোরাদ জানান, পুনর্বাসনের জন্য ঢেউ টিন ও নগদ টাকা বরাদ্দ পেলে ব’ন্যায় চরম দুর্ভোগের শিকার ও ক্ষতিগ্রস্থ হাওর পাড়ের কৃষক, দিন মজুর পরিবারগুলো পুনর্বাসনের কাজ শুরু করে আবারও মা’থা তুলে দাড়াতে পারবে। এখন হাওর পাড়ে ঈদের আনন্দ নেই।

উপজে’লা নির্বাহী কর্মক’র্তা মোঃ রায়হান কবির জানান, ক্ষতিগ্রস্ত সবাইকে সরকারীভাবে ত্রাণ সহায়তা দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি বেসরকারী বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তি উদ্যোগে ত্রান সহায়তা পেয়েছেন ক্ষতিগ্রস্থরা। ইতোমধ্যে উপজে’লায় আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত ১৯৯৭টি পরিবারের তালিকা করা হয়েছে। এর পরিমান বাড়তেও পারে কমতেও পারে। পুর্নাঙ্গ তালিকা করছি।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: