সর্বশেষ আপডেট : ৪ মিনিট ২৩ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ২৬ জুন ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

লুঙ্গি পরা গ্রাহককেও স্যার ডাকতে হবে, ব্যাংক কর্মক’র্তাকে হাই’কোর্ট

এবি ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ের এভিপি আমিনুল ইস’লাম ও সাতক্ষীরা ব্রাঞ্চের ম্যানেজারকে গ্রে’প্তার করে হাই’কোর্টে হাজির করা হয়েছে। এ সময় তারা আ’দালতের নির্দেশ প্রতিপালন না করায় নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা করেন হাই’কোর্টের কাছে। তবে আ’দালত তাদের বি’রুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা না নিয়ে ব্যাংকের নিয়ম অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বলেন।

রোববার (৫ জুন) হাই’কোর্টের বিচারপতি আবু তাহের মো. সাইফুর রহমান ও বিচারপতি একেএম জহিরুল হকের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এমন মন্তব্য করে আদেশ দেন।

এ সময় হাই’কোর্টে তাদের সঙ্গে এবি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তারিক আফজাল উপস্থিত ছিলেন। তারিক আফজাল সেসময় বলেন, দেশের একজন সাবেক প্রধান বিচারপতির (এটিএম আফজাল হোসেন) ছে’লেও ব্যাংকের উপরস্থ কর্মক’র্তা।

তিনি আ’দালতকে জানান, আ’দালতের আদেশের বিষয়ে তারা (এবি ব্যাংকের কর্মক’র্তারা) সঠিকভাবে প্রতিপালন না করায় তিনি নিজেও লজ্জিত। তাদের ভুলের কারণে তিনি লজ্জিত হয়ে দুঃখ প্রকাশ করেন আ’দালতের কাছে। আর আ’দালত বললে এই দুই কর্মক’র্তার বি’রুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও জানান।

এরপর ওই দুই কর্মক’র্তা ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক তারিক আফজালকে উদ্দেশ্য করে হাই’কোর্ট বলেন, ধনী-গরিব নির্বিশেষে সবাই ব্যাংকের গ্রাহক। তাদের জমানো টাকায় আপনাদের বেতন-ভাতা হয় ও পরিবার চলে। সুতরাং একজন লুঙ্গি পরে আসা গ্রাহককেও মূল্যায়ন করতে হবে। তারা লুঙ্গি পরে আসলেও তাদেরকে স্যার বলে সম্বোধন করতে হবে। কারণ গ্রাহকরাই প্রতিষ্ঠানের (ব্যাংকের) প্রা’ণ। তাই একজন লুঙ্গি পরা ব্যাক্তিকেও স্যার বলতে হবে।

আ’দালতে এদিন রিটের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট মো. ইয়ারুল ইস’লাম। তাকে সহযোগিতা করেন অ্যাডভোকেট গো’লাম রব্বানী। অন্যদিকে আ’সামিপক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার বিএম ইলিয়াস হোসেন কচি, ব্যারিস্টার এবিএম রবিউল হোসেন সুমন, অ্যাডভোকেট খায়রুল আলম চৌধুরী ও অ্যাডভোকেট আবু তা’লেব। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ওয়ায়েস হারুনী।

আ’দালতের শুনানির শুরুতেই হাই’কোর্টের আদেশের পরও সাতক্ষীরার ব্যবসায়ী শফিউর রহমানকে ব্যাংক স্টেটমেন্ট না দেওয়ার ঘটনায় হাই’কোর্টে নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা করেন গ্রে’প্তার করে নিয়ে আসা এবি ব্যাংকের দুই কর্মক’র্তা।

এ সময় আ’দালত কোনো গ্রাহক চাইলে তাকে ব্যাংক স্টেটমেন্ট দিতে হবে- সব শাখায় এমন সার্কুলার জারি করতে বলেন এবি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তারিক আফজালকে। পরে আ’দালত দুই কর্মক’র্তাকে ভবিষ্যতের জন্যে সতর্ক করে আ’দালত অবমানা থেকে অব্যাহতি দেন।

এর আগে মঙ্গলবার (৩১ মে) এবি ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ের এভিপি আমিনুল ইস’লাম ও সাতক্ষীরা ব্রাঞ্চের ম্যানেজারকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে গ্রে’প্তারের নির্দেশ দেন হাই’কোর্ট। গুলশান ও সাতক্ষীরা সদর থা’না পু’লিশকে এ নির্দেশ বাস্তবায়ন করতে বলা হয়। ৫ জুন তাদেরকে আ’দালতে হাজির করতে বলা হয়।

এর পরে এবি ব্যাংকের কর্মক’র্তারা পরের দিন আপিল আবেদন করেন। গত ১ জুন এবি ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ের এভিপি আমিনুল ইস’লাম ও সাতক্ষীরা ব্রাঞ্চের ম্যানেজারকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে গ্রে’প্তার করতে হাই’কোর্টের দেওয়া নির্দেশ বহাল রাখেন আপিল বিভাগের চেম্বার জজ আ’দালত।

হাই’কোর্টের আদেশ স্থগিত চেয়ে দুই কর্মক’র্তার পক্ষে এবি ব্যাংকের আবেদনের শুনানি নিয়ে ১ জুন আপিল বিভাগের বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিমের চেম্বারজজ আ’দালত ‘নো অর্ডার’ দেন।

আ’দালতে ওইদিন এবি ব্যাংকের কর্মক’র্তাদের আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট মো. আহসানুল করিম।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ওয়ায়েস আল হারুনী বলেন, সাতক্ষীরার সফি এন্টারপ্রাইজের মালিক মো. সফিউর রহমান এবি ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়েছিলেন। ঋণের বিপরীতে তিনি একটি ব্যাংক স্টেটমেন্ট চান। কিন্তু এবি ব্যাংক থেকে তাকে ব্যাংক স্টেটমেন্ট দেওয়া হয়নি। ব্যাংক স্টেটমেন্ট দিতে তারা অস্বীকার করে। পরে সফিউর রহমান হাই’কোর্টে রিট করেন।

তিনি বলেন, রিটের শুনানির এক পর্যায়ে হাই’কোর্ট আমাকে এবি ব্যাংকের হেড অফিসে ও সাতক্ষীরা শাখার ম্যানেজারের সঙ্গে কথা বলতে বলেন। আমি হেড অফিসের এভিপি আমিনুল ইস’লাম ও সাতক্ষীরা ব্রাঞ্চের ম্যানেজারকে আ’দালতের আদেশের কথা জানিয়ে দেই। তাদেরকে ব্যবসায়ী সফিউর রহমানকে ব্যাংক স্টেটমেন্ট দেওয়ার কথা বলি। এছাড়া এভিপি আমিনুল ইস’লামকে কোর্টে হাজির থাকার কথা বলেছিলাম।

রিট’কারী এবি ব্যাংকের সাতক্ষীরা শাখায় গিয়েছিলেন স্টেটমেন্ট আনতে। কিন্তু কর্তৃপক্ষ তা দেয়নি। আ’দালতের আদেশের পরও ব্যাংক স্টেটমেন্ট না দেওয়ায় তাদের গ্রে’প্তারের আদেশ দিয়েছেন আ’দালত। পরে এই আদেশ স্থগিত চেয়ে আবেদন করেছিলেন এবি ব্যাংক কর্মক’র্তারা।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: