সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
সোমবার, ৮ অগাস্ট ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২৪ শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

নকশার ত্রুটিতে স্থবির ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর উন্নয়ন প্রকল্প

বাংলাদেশ নিয়ে বিশ্বের নানা প্রান্তের ভ্রমণপিপাসু মানুষের আগ্রহ বাড়ছে। আবার কর্মঘণ্টা বাঁচাতে দেশের অভ্যন্তরেও মানুষের কাছে প্রিয় হয়ে উঠছে আকাশপথ। তবে সেই তুলনায় বাড়েনি দেশের আন্তর্জাতিক ও অভ্যন্তরীণ বিমানবন্দরগুলোর আধুনিকায়ন। ফলে যাত্রীরাও পাচ্ছে না যথাযথ সেবা।

আর নির্বিঘ্ন বিমান অবতরণও থেকে যাচ্ছে প্রশ্নের মুখে। এ পরিস্থিতিতে দেশের বিমানবন্দরগুলোর আধুনিকায়নে সরকার উদ্যোগ নিলেও নানা অব্যবস্থাপনায় থমকে আছে কাজ।

সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর, কক্সবাজার বিমানবন্দর, রাজশাহীর শাহ মখদুম বিমানবন্দর ও সৈয়দপুর বিমানবন্দর আধুনিকায়নে প্রকল্প চুক্তিও হয়েছিল। নানা জটিলতায় এসব প্রকল্প বাস্তবায়ন হচ্ছে না। দেশি-বিদেশি বিভিন্ন কম্পানিকে দেওয়া এসব প্রকল্পের কাজ উদ্বোধনের পর আর এগোয়নি। কারণ নানা অনিয়মের অভিযোগে বেসরকারি বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক) এসব চুক্তি বাতিল করে দেয়।

জানা গেছে, সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর, চট্টগ্রামের শাহ আমানত, ও কক্সবাজার বিমানবন্দরের পাঁচটি উন্নয়ন প্রকল্পের পিডির দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল বেবিচকের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী হাবিবুর রহমানকে।

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন,এতগুলো প্রকল্পে একজন মাত্র প্রকৌশলীকে দায়িত্ব দেওয়ায় কোনো কাজ ঠিকমতো এগোয়নি।

অন্য দেশের নাগরিকদের বাংলাদেশ ভ্রমণে আকৃষ্ট করতে গত কয়েক বছর ব্যাপক প্রচারণা চালিয়েছে বিমান ও পর্যটন মন্ত্রণালয়। তবে আকাশপথে তাদের নির্বিঘ্নে চলাচল নিশ্চিত করা যায়নি। ঢাকা ও চট্টগ্রাম—এ দুটি বিমানবন্দর ছাড়া অন্য বিমানবন্দরগুলো পরিচালিত হচ্ছে পুরনো প্রযুক্তিতে। কক্সবাজার, সিলেট, রাজশাহী ও সৈয়দপুর বিমানবন্দরে নির্বিঘ্নে বিমান চলাচলের ব্যবস্থা নেই। এসব বিমানবন্দরে যাত্রীদের ব্যাপক ভোগান্তিতে পড়তে হয়।

সরকার অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর উন্নয়নে বিভিন্ন প্রকল্প গ্রহণ করলেও সেগুলো আলোর মুখ দেখছে না। এই বিমানবন্দরে বর্তমানে দুটি প্রকল্প চলমান রয়েছে। এর মধ্যে অত্যাধুনিক টার্মিনাল ভবন, একটি কার্গো ভবন, আধুনিক এটিসি টাওয়ার, ট্যাক্সিওয়ে ও অ্যাপ্রোন এবং আধুনিক ফায়ার স্টেশন স্থাপনে নেওয়া হয় একটি প্রকল্প।

দুই হাজার ১১৬ কোটি টাকা ব্যয়ে প্রকল্পটি বাস্তবায়নে ২০২০ সালের ১৯ এপ্রিল টেন্ডার আহ্বান করা হয়। টেন্ডারে চীনের বেইজিং আরবান কনস্ট্রাকশন গ্রুপ (বিইউসিজি) কাজ পায়। প্রকল্প বাস্তবায়নে বিইউসিজির সঙ্গে ২০২০ সালের ১১ মে চুক্তি স্বাক্ষর করে বেবিচক। চুক্তি স্বাক্ষরের পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একই বছরের ১ অক্টোবর এ কাজের উদ্বোধনও করেন।

প্রকল্পের পরিচালক নিয়োগ দেওয়া হয় উপসচিব শাহ জুলফিকার হায়দায়রকে। প্রকল্পটির কাজ শেষ হলে বিমানবন্দরটির যাত্রী ধারণক্ষমতা বছরে ৬ লাখ থেকে ২০ লাখে উন্নীত হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু কাজ চলা অবস্থায়ই প্রকল্পটির কাজ থমকে পড়ে।এ পর্যন্ত প্রকল্পটির মাত্র ১৩ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে প্রকল্পসংশ্লিষ্ট একজন বলেন, ‘প্রকল্পটির নকশায় ত্রুটি ছিল। এ কারণে প্রকল্পের কাজ এগোয়নি। নতুন করে ডিজাইন করার পর প্রকল্পের কাজ ফের শুরু হয়েছে। বর্তমানে চলছে পাইলিংয়ের কাজ। আশা করা যায়, ২০২৩ সালের শেষের দিকে কাজ শেষ হবে।

এদিকে ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ৪৫১ কোটি ৯৮ লাখ টাকা ব্যয়ে রানওয়ে শক্তিশালীকরণ ও এয়ার ফিল্ড গ্রাউন্ড লাইটিং সিস্টেম স্থাপনের আরেকটি প্রকল্পের কাজ বর্তমানে শেষ পর্যায়ে বলে জানিয়েছেন প্রকল্পের পিডি হাবিবুর রহমান।

তিনি বলেন, ‘এ প্রকল্পের কাজ প্রায় ৯৭ শতাংশ শেষ। বর্তমানে লাইটিংয়ের কাজ চলছে। আগামী মে মাসের মধ্যে বাকি কাজ শেষ করতে পারব বলে আশা করছি। ’

অন্যদিকে ডিজাইন ত্রুটির কারণে বিমানবন্দরের প্রধান উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ প্রায় দুই বছর বন্ধ রয়েছে। এই প্রকল্পের আওতায় ৩৪ হাজার ৯১৯ বর্গমিটারের আধুনিক প্যাসেঞ্জার টার্মিনাল ভবন নির্মাণ করার কথা রয়েছে। কাজ শেষ হলে এই টার্মিনালে আটটি বিমান একসঙ্গে ওঠানামা করতে পারবে। এর বাইরে ছয় হাজার ৮৯২ বর্গমিটারের কার্গো ভবন, দুই হাজার ৪১৫ বর্গমিটারের ফায়ার স্টেশন, দুই হাজার ৭৭২ বর্গমিটারের কন্ট্রোল টাওয়ার, এক হাজার ৩৯৫ বর্গমিটারের প্রশাসনিক ভবন নির্মিত হওয়ার কথা রয়েছে।-কালেরকন্ঠ

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: