সর্বশেষ আপডেট : ৪ ঘন্টা আগে
সোমবার, ৩ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৮ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

সম্মাননা পেয়ে নিজেকে গর্বিত মনে করছি : মুহিত

সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, আমি একান্তভাবে সিলেটের মানুষ। প্রাপ্তির একটি নিয়ম আছে। সিলেট সিটি করপোরেশনের গুণীশ্রেষ্ঠ সম্মাননা পেয়ে নিজেকে গর্বিত মনে করছি। নিজের জন্মস্থানে এমন একটি সম্মাননা গৌরবের। এই যে আমাকে সম্মান জানাচ্ছেন, আমি সেই মাহাত্ম্যের কাছে মা’থা নত করি। আমা’র ভুলত্রুটি সব মাফ করে দেবেন।

বুধবার (১৬ মা’র্চ) রাতে সিলেটের ঐতিহ্যবাহী আলী আমজদের ঘড়ি ঘরের সামনে সিলেট সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে আজীবন সুকী’র্তির স্বীকৃতি স্বরূপ গুণীশ্রেষ্ঠ সম্মাননা পেয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

রাত ৮টায় আবুল মাল আবদুল মুহিত অনুষ্ঠানস্থলে হাজির হলে সিলেট মহানগর পু’লিশের বাদক দল তাকে অভ্যর্থনা জানায়। এরপর মঞ্চে মেয়র, কাউন্সিলরসহ সিটি করপোরেশনের কর্মক’র্তারা তাকে ফুল দিয়ে বরণ করে নেন। মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী গুণীশ্রেষ্ঠ সম্মাননা স্মা’রক হিসেবে তার হাতে শতবর্ষী আলী আমজদের ঘড়ির স্বর্ণখচিত র‌্যাপলিকা আনুষ্ঠানিকভাবে হস্তান্তর করেন।

অনুষ্ঠানে আবুল মাল আবদুল মুহিত তার বক্তব্যে নানা স্মৃ’তিচারণ করেন। তিনি বলেন, আম’রা ১৪ জন ভাই-বোন। আপনারা জানেন আমি এই দেশের বৃদ্ধ ব্যক্তিদের মধ্যে একজন। এই বছরের জানুয়ারি মাসে আমা’র বয়স ৮৮ বছর হয়েছে। আমাকে দীর্ঘ জীবন দান করায় মহান আল্লাহর কাছে শুকরিয়া জানাই। এমন অনুষ্ঠানে কি বক্তব্য দেওয়া যায়? একটি হলো প্রস্তুতি নিয়ে বক্তব্য দেওয়া। আরেকটি হলো উপস্থিত পরিস্থিতি বিবেচনায় বক্তব্য প্রদান করা। আমি দ্বিতীয় পদ্ধতিটি অনুসরণ করলাম। এতে অবশ্য বেশি স্মৃ’তিচারণ করতে হয়। আমি স্মৃ’তিচারণ করতেই স্বাচ্ছন্দবোধ করবো।

ছোটবেলার স্মৃ’তিচারণায় গ্রামীণ জীবন থেকে শহর জীবনের নানা দিক তিনি তুলে ধরেন। আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, ছোটবেলার আনন্দময়, স্বাধীনতার দিনগুলো খুবই উপভোগ্য ছিল। সেইসব দিনের সুখকর স্মৃ’তির স্ম’রণে আজকে সবাইকে ধন্যবাদ জানাই। সিলেটের পরিবেশেই আমা’র জন্ম। আমা’র বেড়ে ওঠা। আমি গর্ববোধ করি এখানে জন্মে। এখান থেকে অনেক জ্ঞানীগুণীর জন্ম হবে। আজকে সিলেট নগরে আমি একজন অ’তিথি। এটা একটা গর্বের বিষয়। নিজের জন্মস্থানে নিজে এমন একটি সম্মান পাওয়া গর্বের।

সিলেট’কে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির ঐতিহ্যমণ্ডিত স্থান উল্লেখ করে তিনি বলেন, জন্মভূমির প্রতি কৃতজ্ঞতা স্বীকার করছি। সিলেটে ইস’লাম ধ’র্ম প্রচার করতে হযরত শাহ’জালাল (রহ) এসেছিলেন। আম’রা বেশিরভাগ মানুষই তার মাধ্যমে ইস’লাম ধ’র্মগ্রহণ করেছি। ধ’র্মাচার পালন করেও আসছি। আমাদের এখানে অন্যান্য ধ’র্মের আনুষ্ঠানিকতাও সমানভাবে পালিত হয়। ধ’র্মীয় সম্প্রীতির ঐতিহ্য বহু পুরোনো।

অনুষ্ঠানে নাগরিক সমাজের পক্ষ থেকে স্বাগত বক্তব্য দেন নর্থ ইস্ট ইউনিভা’র্সিটির উপাচার্য ড. ইলিয়াস উদ্দিন বিশ্বা’স। অনুষ্ঠানে মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মক’র্তা বিধায়ক রায় চৌধুরী।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: