সর্বশেষ আপডেট : ৩ ঘন্টা আগে
রবিবার, ২৬ জুন ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

ভূ-মধ্যসাগরে নিখোঁজ ৩১ জনের পরিবারে শোকের মাতম

লিবিয়া থেকে অ’বৈধ পথে ইতালি যাওয়ার সময় ভূ-মধ্যসাগরে নৌকাডুবিতে নরসিংদীসহ বিভিন্ন জে’লার ৩১ জন যুবকের নিখোঁজ হওয়ার খরব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ব্যাপক তোলপাড় সৃষ্টি করেছে। নি’খোঁজের প্রায় দেড় মাস পর এ খবর পেয়ে শোকের মাতম চলছে নি’খোঁজদের পরিবারে।

লিবিয়া হয়ে ইতালি যাওয়ার স্বপ্ন নিয়ে বাংলাদেশ থেকে লিবিয়া যাওয়া বাংলাদেশী যুবকদের প্রায় দেড় মাস ধরে নি’খোঁজ থাকার পর তাদেরই সহযাত্রী একজনের কাছ থেকে পাওয়া গেল সেই খবর। তবে তা ছিলো তাদের মৃ’ত্যুর খবর।

একই পথের যাত্রী প্রা’ণে বেঁচে যাওয়া ইউসুফ মৃধার দাবি, ৩৭ জনের মধ্য আম’রা ৬ জন বেঁচে আছি। তবে চোখের সামনে উল্টে যাওয়া বোটে ধরে রাখা ইতালিগামী সহযাত্রী একের পর এক অনেকেই ভূ-মধ্যসাগরের পানিতে তলিয়ে গেছে বলে নিশ্চিত করেন প্রা’ণে বেঁচে যাওয়া ইউসুফ মৃধা (আমি ইউসুফ বলছি)।

নি’খোঁজ ইতালিযাত্রী যুবকরা হলেন – নরসিংদী রায়পুরা উপজে’লার এস এম তারুণ্য নাহিদ (২৮), পিতা- ওসমান গনি, গ্রাম- দক্ষিণ মির্জানগর পূর্বপাড়া, শাওন মিয়া (২২), পিতা- কবির মিয়া, গ্রাম- হাইরমা’রা, ইম’রান ভূইয়া (২১), পিতা- আব্দুল করিম ভূইয়া, গ্রাম- আগানগর, নাদিম সরকার (২২), পিতা সোবহান সরকার, গ্রাম- ডৌকারচর, আল-আমিন ফরাজী (৩৩), পিতা- বাচ্চু ফরাজী, গ্রাম- ডৌকারচর, আশিষ সূত্রধর (২২), পিতা- অনিল সূত্রধর, গ্রাম- হাসনাবাদ বাজার, সেলিম মিয়া (৩৪), পিতা- এয়াকুব আলী, গ্রাম- দড়ি হাইরমা’রা, সবুজ মিয়া (৩৮), গ্রাম- বালুয়াকান্দি; বেলাবো উপজে’লার সল্লাবাদ ইউনিয়নের ইব্রাহীমপুর গ্রামের ইউনুছ মিয়ার ছে’লে সালাউদ্দিন (৩৫), একই গ্রামের হাবিবুর রহমানের ছে’লে শরিফুল ইস’লাম (২৪), নারায়ণপুর ইউনিয়নের দুলালকান্দি গ্রামের নূরুল ইস’লামের ছে’লে মতিউর রহমান (৩২) এবং ফরিদপুর জে’লার নগরকান্দা উপজে’লার বাবুর কাইচাইল গ্রামের মাজেদ মিয়ার ছে’লে হোসেন নাজমুল ইস’লাম (১৯), একই গ্রামের ফারুক মাতুব্বরের ছে’লে মইন মিয়া ফয়সাল (১৮); পিরোজপুর জে’লার খানাকুনিয়ারি গ্রামের মজিবুর রহমান শেখের ছে’লে রুহুল আমিনসহ (২৩) নি’খোঁজ ইতালিগামীদের পরিবারে শোকের মাতম চলছে। আবার কেউ কেউ এখনও সন্তানরা ফিরে আসার স্বপ্ন দেখছেন।

নিখোঁজ পরিবারের তথ্য ও অ’ভিযোগের সূত্রে জানা গেছে, বিগত ২৭ জানুয়ারি লিবিয়া সময় রাত ৮টায় লিবিয়া থেকে ইতালির উদ্দেশ্যে ইঞ্জিনচালিত প্লাস্টিক নৌকায় ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিতে দালালরা ৩৭ জন অ’ভিবাসীকে নৌকায় তোলে। এ সময় অ’তিরিক্ত বোঝায় নৌকায় উঠেনি রায়পুরা উপজে’লার করিমগঞ্জ গ্রামের আউয়াল মোল্লার ছে’লে ওয়াকিল মোল্লা, নয়নসহ ৩ জন। তারা ফিরে যায় ঘোম ঘরে এবং তাদের চোখের সামনে ৩৭ জন ইতালি অ’ভিবাসীকে নিয়ে নৌকা ছেড়ে দেয়।

এর পর থেকেই পরিবারের সাথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে ইতালি যাওয়ার স্বপ্নবাজ বাংলাদেশী ৩১ যুবকের। দালাল চক্র নি’খোঁজদের ফিরে আসার আশ্বা’স দিয়ে চুক্তিবদ্ধ টাকা পেতে অ’ভিবাসীদের চাপ দিতে থাকেন।

কিন্তু দেড় মাস পর নৌকাডুবিতে প্রা’ণে বেঁচে যাওয়া ইউসুফসহ ৬ জনের তথ্যমতে, মাল্টা সাগরে এসে নৌকাডুবির এক লোম’র্হষক ঘটে। ঘটনাস্থলে অচেতন ৬ জনকে লিবিয়ার কোস্টগার্ড উ’দ্ধার করে খামছা-খামছিন জে’লে প্রেরণ করে। নি’খোঁজরা বেঁচে আছে কিনা বা আর ফিরে আসবে কিনা সে বিষয়ে তারা সন্দিহান।

মৃ’ত্যুর মুখ থেকে বেঁচে যাওয়া ইউসুফ জানান, বোটটিতে যাত্রী ধারণ ক্ষমতা ছিল ২৪-২৫ জনের, সেখানে ৩৭ জনকে তুলে দেয়া হয়। ২৬ হাত লম্বা বোট দেয়ার কথা থাকলেও দেয়া হয় ১২ হাত লম্বা বোট। লাইফ সা’পোর্ট জ্যাকেট দেয়া হয়নি। বোটে ২টি ইঞ্জিন দেয়ার কথা থাকলেও ইঞ্জিন ছিল ১টি। নাবিক ছিলেন মিসরীয়।

তিনি জানান, ভোর ৩টার দিকে মাল্টার কাছাকাছি পৌঁছলে আচ’মকা এক ঢেউয়ের ধাক্কায় বোট উল্টে গেলে আম’রা বাঁ’চার চেষ্টা করি। প্লাস্টিক গ্যালনসহ নানা উপকরণ ধরে বাঁচতে ছুটাছুটি করি। এমন সময় একটু দূরে নৌকাটি পানির উপরে ভেসে উঠে। আর এই বোটের দুই পাশে আম’রা ২০ জন বোট ধরে ভাসতে থাকি। লবণাক্ত পানি পান করে মুখ দিয়ে অনেকের র’ক্ত বের হতে থাকে। প্রায় ১৩ ঘণ্টা সাগরের বরফ পানিতে ২৮ তারিখ বিকেলে শেষ পর্যন্ত আম’রা মাত্র ৭ জন ভাসমান নৌকার উল্টো পিঠে ধরে নিস্তেজ হয়ে পড়ে থাকি।

রাত পেরিয়ে দিন আসে, শেষ বিকেলে অনেক দূরে একটি টহল কোস্টগার্ড বোট যাচ্ছিল। এমন সময় তাদের দেখতে পেয়ে একজন লাল গেঞ্জি উঁচিয়ে ধরি। তখন তারা দেখতে পায়। আমাদের উ’দ্ধার করে ডাঙ্গায় ওঠার পর ৭ জন থেকে ১ জনের মৃ’ত্যু হয়। আমাদের চিকিৎসা দিয়ে জে’লে রাখা হয়। ৩ দিনের মা’থায় দালালকে ফোন দিলে সে আর আসেনি। তারপর অন্য এক জে’লখানায় আমাদের স্থা’নান্তর করা হয়। সেখান থেকে ৩ ফেব্রুয়ারি ৬ জনের মধ্য থেকে ২ জনকে দেশে ফেরত পাঠায় এবং ৪ জনকে পরবর্তি ফ্লাইটে পাঠাবে।

প্রা’ণে বেঁচে যাওয়া ৬ জনের মধ্যে হাসনাবাদ গ্রামের খোরশেদ মৃধার ছে’লে ইউসুফ মৃধা, নিলক্ষা গ্রামের ১ জন, বেলাবো উপজে’লার ১ জন, বি-বাড়িয়ার ১ জন এবং মাদারীপুর জে’লার ২ জন।

দালাল চক্রের মূলহোতা নরসিংদীর রায়পুরা উপজে’লার আমিরগঞ্জ ইউনিয়নের আগানগর গ্রামের পরিমল সূত্রধরের ছে’লে লিবিয়া প্রবাসী মনির চন্দ্র শীল। তার রয়েছে বাংলাদেশে অসংখ্য স্থানীয় ছেচকে দালাল। মনির চন্দ্র শীল হাসনাবাদ বাজারের হারুন প্লাজায় সেলুন ব্যবসায়ী ছিলেন ও বিকাশে টাকা লেনদেনের ঘটনায় রেব-১১ তাকে আ’ট’ক করে। মা’মলা হওয়ার পর তিনি লিবিয়া অবস্থান করেন। রায়পুরার মনির চন্দ্র শীল, ফরিদপুরের লিবিয়ায় অবস্থানরত দালাল রাসেল, শাহিন, ইলিয়াসের মাধ্যমে এ অঞ্চলের মানবপাচার হয়ে থাকে।

শাওন মিয়ার পিতা কবির মিয়া বলেন, ২৭ নভেম্বর আমা’র ছে’লে শাওনকে লিবিয়া পাঠানো হয় স্থানীয় লিবিয়া প্রবাসী মাহবুব পাঠানের মাধ্যমে। সেখানে সে ভালো চাকরি করবে এমনটাই প্রত্যাশা ছিল। কিন্তু দালালচক্রের অ’তি প্র’রোচনায় মনির দালালের সাথে ফোনের মাধ্যমে চার লাখ টাকা চুক্তি হয়। চুক্তির চার লাখের মধ্যে ৩ লাখ টাকা তার মেসেজে পাঠানো এনসিসি ব্যাংক মহিপাল শাখায় গত ২০ ডিসেম্বর ২০২১ তারিখে রহিমা সুলতানা পপি নামের হিসাব নাম্বারে পাঠানো হয়। পরে আরো টাকা পাঠানোর কথা বলে। আর আমা’র ছোট ছে’লেকে যারা প্রলো’ভন দেখিয়ে বিদেশ পাঠিয়েছে তাদের বিচার চাই। আমি এর সুষ্ঠু বিচার চাই। আমা’র মতো আর কোনো পিতামাতার যেন বুক খালি না হয়।

সেলিমের বড় ভাই রতন মিয়া জানান, সেলিমের ২টি মাছুম সন্তান রয়েছে। দালালের খপ্পরে পড়ে জীবন দিতে হলো তাকে।

নাদিম সরকারের পিতা সোবহান সরকার বলেন, সাড়ে ৮ লাখ টাকা এবং সন্তানকে হরালাম। আমি অ’বৈধ পথে মানব পাচারকারী দালালচক্রের বিচার চাই।

এ ব্যাপারে ডৌকারচর ইউপি চেয়ারম্যান মাসুদ ফরাজী বলেন, বিষয়টি দুঃখজনক। অ’বৈধ পথে বিদেশ যাওয়ার চেয়ে না খেয়ে থাকা অনেক ভালো। কেউ যেন এভাবে অ’বৈধভাবে বিদেশ না যায় সকলকে সর্তক থাকার আহ্বান করছি।

তবে দালাল চক্র ওই নি’খোঁজ যুবকরা বেঁচে আছে বলে এলাকায় প্রচার চালাচ্ছে।

এদিকে ইতালিগামী ওই যুবকদের মৃ’ত্যুর খবরে তাদের পরিবার-স্বজনসহ এলাকায় শোকের মাতম চলছে। অ’প’রাধী দালাল চক্রের অ’বৈধভাবে মানবপাচারের বি’রুদ্ধে মা’মলা করবেন বলে জানিয়েছেন অনেকে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: