সর্বশেষ আপডেট : ৩ ঘন্টা আগে
শনিবার, ২৫ জুন ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১১ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

চীনের উইঘুর নির্যাতন অস্বীকার করলেন ইমরান খান

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান চীনের উইঘুর মুসলিম নিপীড়ন নীতি অন্ধভাবে সমর্থন করে বলেছেন, জিনজিয়াং উইঘুর স্বায়ত্বশাসিত অঞ্চল (এক্সইউএআর) নিয়ে পশ্চিমা সংবাদমাধ্যমগুলো যা বর্ণনা করে, বাস্তব পরিস্থিতি তা নয়। সিএনএনের ফরিদ জাকারিয়াকে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে চীনের সব পরিস্থিতির মিত্র ইমরান খান এ মন্তব্য করেছেন।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, চীনে নিযুক্ত পাকিস্তানি রাষ্ট্রদূত মইনুল হক এক্সইউএআর পরিদর্শন করেছেন এবং বলেছেন, পশ্চিমা মিডিয়াগুলো সেখানকার পরিস্থিতি নিয়ে যা বর্ণনা করে বাস্তব চিত্র তা নয়।

ইসলামী বিভিন্ন ইস্যুতে ইমরান খান দীর্ঘদিন ধরে নিজেকে চ্যাম্পিয়ন হিসেবে তুলে ধরলেও জিনজিয়াংয়ের বিষয়ে চীনের নীতি সমর্থনই করছেন। যদিও বিশ্ব সম্প্রদায় ওই অঞ্চলে উইঘুর নিপীড়নের জন্য বেইজিংকে জবাবদিহিতার আওতায় আনার চেষ্টা চালাচ্ছে।

অর্থনৈতিক সহায়তা ও কূটনৈতিক সমর্থনের জন্য চীনের ওপর ইসলামাবাদের ক্রমবর্ধমান নির্ভরতাই এর প্রধান কারণ। এ কারণে উইঘুর মুসলিম গণহত্যার জন্য দায়ী চীনের কৌশল নিয়ে প্রকাশ্যে তাদের নীতির প্রতি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হওয়া ছাড়া কোনো বিকল্প নেই পাকিস্তানি নেতৃত্বের কাছে। তাই বেইজিং অলিম্পিক ২০২২ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জিনজিয়াং ইস্যুর পাশাপাশি দক্ষিণ চীন সাগর নিয়েও এক চীন নীতিকে সমর্থন করেছেন ইমরান।

বেইজিংয়ে প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং ও ইমরান খানের বৈঠকের পর যৌথ বিবৃতিতে পাকিস্তান জানায়, তারা এক চীন নীতিতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ এবং তাইওয়ান, দক্ষিণ চীন সাগর, হংকং, জিনজিয়াং ও তিব্বত ইস্যুতে চীনকে সমর্থন করবে। অথচ এগুলোকে চীনের সাম্রাজ্যবাদী দৃষ্টিভঙ্গিকে জোরালোর করার স্বেচ্ছাচারী নিয়ম-নীতি হিসেবে দেখে পশ্চিমা বিশ্ব।

যৌথ বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, পাকিস্তানের সার্বভৌমত্ব, স্বাধীনতা এবং নিরাপত্তা রক্ষার পাশাপাশি তার আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন ও সমৃদ্ধি প্রচারে সমর্থন পুনর্ব্যক্ত করেছে চীন।

বেইজিংয়ের প্রতি ইসলামাবাদের এই সমর্থন এমন এক সময়ে এসেছে, যখন বিশ্বের ২৪৩টি সংস্থা চীনের মানবাধিকার লঙ্ঘনের জন্য ব্যবস্থা নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে।

উইঘুর মুসলিমদের প্রতি চীনের আচরণ সম্পর্কে প্রশ্ন করা হলে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান স্বাভাবিকভাবে প্রতিদ্বন্দ্বী ভারতের দিকে আঙুল তুলে বলেছেন, কাশ্মীরে ভারতের নিরপরাধ মানুষকে গণহত্যার বিষয়ে পাকিস্তানের নিন্দার সঙ্গে জিনজিয়াং ইস্যুর তুলনা ন্যায়সঙ্গত নয়। তিনি বলেন, কাশ্মীর পাকিস্তান ও ভারতের মধ্যে একটি বিতর্কিত অঞ্চল এবং ভারত আরএসএস মতাদর্শ দ্বারা শাসিত।

দুই পারমাণবিক শক্তিধর দেশের মধ্যে যুদ্ধের আশঙ্কা প্রকাশ করে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, কাশ্মীর সমস্যার সমাধান না হওয়া পর্যন্ত দুই পারমাণবিক শক্তির মধ্যে যুদ্ধের আশঙ্কা বিদ্যমান থাকবে।

ভারতে সংখ্যালঘুদের অধিকার নিয়ে ইমরান খান বলেছেন, ভারতে একটি ট্র্যাজেডি উন্মোচিত হয়েছে। আরএসএস মতাদর্শ দেশটিকে নিয়ন্ত্রণ করছে। আপনি কীভাবে এটি মোকাবিলা করবেন..ঘৃণা, জাতিগত শ্রেষ্ঠত্ব এবং মুসলিম, সংখ্যালঘু, খ্রিষ্টান বিদ্বেষ, অবশ্য পাকিস্তান বিদ্বেষের ওপর ভিত্তিতে গড়ে ওঠা এই আদর্শকে।

যদিও খ্রিষ্টানরা ঐতিহাসিকভাবে পাকিস্তানে দুর্ব্যবহার, প্রান্তিক ও আক্রোশের শিকার হয়েছেন। দেশটিতে হিন্দু, খ্রিস্টান,আহমাদিয়া ও শিয়াদের মতো সংখ্যালঘুরা প্রায় হয়রানি ও নির্যাতিত হন। এ ছাড়া এই মাসে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) জেনারেলাইজড স্কিম অফ প্রেফারেন্স প্লাস জিএসপি স্ট্যাটাস পর্যালোচনা ইসলামাবাদে করার প্রস্তাবের কারণে পাকিস্তান বিভ্রান্ত হয়েছে। ইইউ তখন পর্যবেক্ষণ করেছিল যে পাকিস্তান মানবাধিকার রক্ষায় অর্থপূর্ণ অগ্রগতি করতে ব্যর্থ হয়েছে, বিশেষ করে সংখ্যালঘুদের লক্ষ্য করে দেশটির বিতর্কিত ব্লাসফেমি আইনের ক্ষেত্রে। সূত্র : আমাদের সময়

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: