সর্বশেষ আপডেট : ৯ ঘন্টা আগে
শুক্রবার, ২০ মে ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

এবার বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব

গ্যাসের পর এবার বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। বিদ্যুতের পাইকারি দাম প্রায় ৬৯ শতাংশ বাড়াতে চায় এ খাতের শীর্ষ সরকারি সংস্থা বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (বিপিডিবি)। এ সংক্রান্ত প্রস্তাব মঙ্গলবার বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনে (বিইআরসি) জমা দিয়েছে সংস্থাটি।

এদিকে বিদ্যুতের পাইকারি দাম বাড়লে খুচরা দামও বাড়াতে হবে বলে জানিয়েছে বিতরণ কোম্পানিগুলো। নভেম্বরে ডিজে’ল ও কেরোসিনের দাম বৃদ্ধি কার্যকর এবং জানুয়ারিতে গ্যাসের দাম বৃদ্ধির প্রস্তাব দেওয়ার মধ্যেই গ্যাসের দাম বাড়ানোর এ উদ্যোগ গ্রহণ করা হলো।

উল্লিখিত তথ্য যুগান্তরকে নিশ্চিত করে বিইআরসির সদস্য মোহাম্ম’দ বজলুর রহমান বলেছেন, বিপিডিবি পাইকারি দর বৃদ্ধির একটি প্রস্তাব জমা দিয়েছে। প্রস্তাবটি জমা দেওয়ার সময় যথাযথ আইনি পদ্ধতি অনুসরণ করা হয়নি। তাই পূর্ণাঙ্গ প্রস্তাব দিতে বলা হয়েছে। আইনের কী’ ধরনের ব্যত্যয় ঘটেছে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, প্রস্তাবের সঙ্গে তিন বছরের অডিট রিপোর্ট, এক বছরের প্রাক্কলিত আয়-ব্যয়ের হিসাব এবং প্রস্তাব অনুযায়ী দর বাড়ানো হলে ভোক্তাদের ওপর কি ধরনের প্রভাব পড়তে পারে-এ সংক্রান্ত রিপোর্টও জমা দিতে হয়। এছাড়া অন্যান্য কয়েকটি বিষয়েও রিপোর্ট জমা দেওয়ার নিয়ম রয়েছে, যা আবেদনের সঙ্গে ছিল না। তাই বিপিডিবির আবেদনটি বাতিল কিংবা গ্রহণ কোনোটাই না করে পূর্ণাঙ্গ প্রস্তাব জমা দিতে বলা হয়েছে।

বিইআরসি (বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন) এবং পিডিবি সূত্র জানায়, বিদ্যুতের উৎপাদন খরচ বেড়ে যাওয়ায় এর পাইকারি ও খুচরা বিক্রয়মূল্য বাড়ানোর জন্য গত কয়েক মাস ধরে সরকারের সংশ্লিষ্ট মহলে আলোচনা চলছে। সেই ধারাবাহিকতায় গত সপ্তাহে এ খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনে বিদ্যুতের পাইকারি দাম বাড়ানোর প্রস্তাব পাঠানো হয়।

গ্যাসের দামের নতুন প্রস্তাব : যথাযথ আইনি প্রক্রিয়া শেষ করে নতুন করে গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব জমা দিয়েছে ৬টি বিতরণ কোম্পানি। এবার গ্রাহক পর্যায়ে গ্যাসের দাম প্রতি ঘনমিটার গড়ে ১১৭ শতাংশ বাড়নোর প্রস্তাব করা হয়। অর্থাৎ প্রতি ঘনমিটার গ্যাসের দাম ৯ টাকা ৩৬ পয়সা থেকে বেড়ে ২০ টাকা ৩৫ পয়সা হবে। এই প্রস্তাব অনুসারে বাসা-বাড়ির দুই চুলার মাসিক বিল হবে দুই হাজার ১০০ টাকা যা এখন ৯৭৫ টাকা। শিল্পে প্রতি ঘনমিটারের দাম ১০ টাকা ৭০ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ২৩ টাকা ২৪ পয়সা এবং ক্যাপটিভে ১৩ টাকা ৮৫ পয়সার স্থলে ৩০ টাকা করার প্রস্তাব করেছে একাধিক বিতরণ কোম্পানি। ছয়টি বিতরণ কোম্পানির মধ্যে তিতাস, বাখরাবাদ ও পশ্চিমাঞ্চল গ্যাস কোম্পানি গত সপ্তাহে এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনে (বিইআরসি) পৃথকভাবে এ প্রস্তাব জমা দিয়েছে। এ সপ্তাহে অন্য কোম্পানিগুলো তাদের প্রস্তাব জমা দিয়েছে। পেট্রোবাংলা সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব প্রসঙ্গে বিপিডিবির জনসংযোগ পরিদপ্তরের পরিচালক সাইফুল হাসান চৌধুরী বলেছেন, বিদ্যুতের উৎপাদন খরচের চেয়ে কম দামে বিক্রি করা হচ্ছে। এ কারণে লোকসান দিয়ে যাচ্ছে বিপিডিবি। তাই পাইকারি দাম সমন্ব^য়ের একটি প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে।

বর্তমান অবস্থায় দাম সমন্বয় করা না হলে ২০২২ সালে ৩০ হাজার কোটি টাকা লোকসান হবে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের। তাই সেই দাম সমন্বয়ের প্রস্তাব করা হয়েছে বলে পিডিবি সূত্রে জানা গেছে। এর পাশাপাশি যদি গ্যাসের দাম বৃদ্ধি পায় তাহলে লোকসান আরও বাড়বে। গ্যাসের দাম বৃদ্ধি করা হলে সেটিও সমন্ব^য় করার আবেদন করা হয়েছে বিইআরসির কাছে।

বিদ্যুৎ-গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রস্তাবকে হাস্যকর বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। তারা বলেছেন, বর্তমান প্রেক্ষাপটে গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব দেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। আগে পেট্রোবাংলাকে পাইকারি দাম বাড়াতে হবে। তখন কোম্পানিগুলো আসবে সেই টাকা তোলার জন্য খুচরা দাম বাড়ানোর প্রস্তাব নিয়ে। অ’তীতে এটাই হয়ে এসেছে। এলএনজির দাম বেড়ে যাওয়ায় লোকসান গুনতে হচ্ছে উল্লেখ করে গ্যাসের দাম বাড়ানোর একটি চিঠি দেয় পেট্রোবাংলা। আবেদন যথাযথ না হওয়ায় বিইআরসির প্রস্তাবটি ফিরিয়ে দিয়েছে। একই সময়ে বিতরণ কোম্পানিগুলো ১১৭ শতাংশ দাম বাড়ানোর প্রস্তাব জমা দেয়। সঙ্গত কারণেই বিইআরসি আবেদনগুলো ফেরত দিয়েছে।

জ্বালানি বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ড. শামসুল আলম বলেন, জনগণকে বোকা বানানোর চেষ্টা চলছে। দীর্ঘমেয়াদি চুক্তি ও স্পট মা’র্কেট থেকে এলএনজি (তরলিকৃত প্রকৃতিক গ্যাস) আম’দানি করছে বাংলাদেশ। দাম বেড়েছে স্পট মা’র্কেট থেকে আনা ৫-৬ শতাংশ গ্যাসের। ৫-৬ শতাংশের দাম বেড়েছে বলে ১০০ ভাগ গ্যাসের দাম ১১৭ শতাংশ বাড়াতে হয় এটা বিশ্বা’সযোগ্য! তারা গোঁজামিল দিয়ে হিসাব দেখাচ্ছে, এসব হিসাব বাস্তবসম্মত নয়।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: