সর্বশেষ আপডেট : ২ ঘন্টা আগে
সোমবার, ২৭ জুন ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৩ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

হারিছ চৌধুরীর মৃত্যু লন্ডনে নাকি ঢাকায়

ঢাকায় না লন্ডনে, কোথায় মা’রা গেলেন পলাতক বিএনপি নেতা আবুল হারিছ চৌধুরী? এ নিয়েই আলোচনা চলছে দেশের রাজনৈতিক মহলে। একই আলোচনা চলছে লন্ডন এবং সিলেটেও। হারিছ চৌধুরীর পারিবারিক সূত্র জানায়, চার মাস আগে তার মৃ’ত্যু হলেও এত দিন বিষয়টি গো’পন রাখা হয়েছিল। তবে ওয়ারিশ সনদ ও স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি বেহাত হওয়া ঠেকাতে মৃ’ত্যুর খবরটি আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হয়।

একই সূত্র জানায়, এক-এগারোর সময় তৎকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকার ক্ষমতায় এলে হারিছ চৌধুরী চলে যান আসামের করিমগঞ্জে নানাবাড়িতে। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় এলে দেশে ফিরে এসে আর বিদেশে যাননি। তবে ভা’রত, ই’রান, লন্ডনসহ বিভিন্ন দেশে পালিয়ে থাকার খবর প্রচার করা হয়। গতকাল মৃ’ত্যুর খবর প্রকাশ হওয়ার পর লন্ডন থেকে তার পরিবারের একাধিক সূত্র বাংলাদেশ প্রতিদিনকে জানান, উন্নত বিশ্বে একটি কুকুর বা বিড়াল মা’রা গেলেও তার ডেথ সার্টিফিকেটসহ বিভিন্ন ডকুমেন্ট তৈরি করতে হয়। কিন্তু হারিছ চৌধুরী লন্ডনে মা’রা গেছেন এমন কোনো প্রমাণ কারও কাছেই নেই।

সূত্রটির দাবি, হারিছ চৌধুরী ঢাকায়ই মা’রা গেছেন। তার মৃ’ত্যুর কিছুদিনের মধ্যেই রাজধানীর শাহ’জাহানপুরে ইস’লামী ব্যাংক হাসপাতা’লে মা’রা যান হারিছ চৌধুরীর আপন ছোট ভাই সেলিম চৌধুরী। সেলিম চৌধুরীর বিষয়টি তখন জানানো হলেও সরকার ও বিভিন্ন সংস্থার চাপ আসতে পারে এ ভ’য়ে তখন গো’পন করা হয় হারিছ চৌধুরীর মৃ’ত্যুর খবর। লন্ডনের ওই সূত্রটির দাবি, লন্ডনে কারও মৃ’ত্যুর পর দাফন বা দাহ করতে হলে বাধ্যতামূলকভাবে মৃ’ত্যুসনদ প্রয়োজন হয়। তবে বাংলাদেশে এমন কোনো বাধ্যবাধকতা নেই। যে কাউকে যে কোনো পরিচয়ে যে কোনো কবরস্থানে দাফন করা সম্ভব উল্লেখ করে ঢাকার কোনো কবরস্থানেই হারিছ চৌধুরীকে দাফন করা হয়েছে বলে দাবি সূত্রটির।

এ সূত্রের দাবি, এখন ওয়ারিশ সনদসহ অন্যান্য ডকুমেন্ট ঠিক করতেই চার মাস পর এসে হারিছ চৌধুরীর মৃ’ত্যুর খবর তার পরিবারের পক্ষ থেকে প্রকাশ করা হয়েছে। রাজনৈতিক মহলে হারিছ চৌধুরী ব্যাপক আ’লোচিত ছিলেন। বিএনপি ক্ষমতায় থাকার সময় ব্যাপক ক্ষমতাবানও ছিলেন তিনি। এক-এগারোর সময় একুশে আগস্ট গ্রেনেড হা’মলাসহ বিভিন্ন হ’ত্যাকা’ন্ডে তার নাম উঠে আসে। এর পরই আত্মগো’পনে চলে যান তিনি। তখন থেকে শুধু পরিবারের কয়েকজন ছাড়া বাকি সবার সঙ্গেই যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে ফেলেন হারিছ চৌধুরী।

২১ আগস্ট গ্রেনেড হা’মলা মা’মলায় ২০১৮ সালে যাব’জ্জীবন সাজা হয় হারিছ চৌধুরীর। একই বছরের ২৯ অক্টোবর জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দু’র্নীতি মা’মলায় হারিছ চৌধুরীর সাত বছরের জে’ল ও ১০ লাখ টাকা জ’রিমানা হয়। এ ছাড়া সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়া হ’ত্যা মা’মলায়ও আ’সামি হারিছ চৌধুরী।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: