সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
মঙ্গলবার, ৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ খ্রীষ্টাব্দ | ২৫ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

দিনে সবজি বিক্রেতা, রাতে দুর্ধর্ষ ডাকাত তারা

রাজধানীসহ পাশ্ববর্তী এলাকায় সংঘবদ্ধ আন্তঃজেলা ডাকাত দলের মূলহোতাসহ ১০ জনকে গ্রফতার করেছে র‌্যাব।

সোমবার (২০ ডিসেম্বর) দিনগত রাতে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের কাঞ্চনব্রিজ এলাকা থেকে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়।

এসময় তাদের কাছ থেকে দুটি বিদেশি পিস্তল, দুটি ম্যাগাজিন, পাঁচ রাউন্ড গুলি, একটি ওয়ান শুটারগান, একটি শর্টগান, একটি পাইপগান, নগদ ৩১ হাজার টাকা এবং দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয়।

গ্রেফতাররা হলেন—হিটু মিয়া (৪০), ফরহাদ আলী (৫৮), লিটন শেখ (৩৮), রিপন মৃধা ওরফে জামাই রিপন (২৯), স্বপন মিয়া (২৭), জাকির ব্যাপারী (২৯), জলিল খাঁন (৪০), শ্রী লক্ষণ চন্দ্র দাস (২৬), শ্রী অজিত চন্দ্র সূত্রধর (২৭) ও ইখতিয়ার হোসেন (৪৭)।

র‌্যাব জানায়, গ্রেফতাররা দিনে সবজি বিক্রি, মুদি দোকানি ও শ্রমিকের কাজ করলেও রাতে তারা এক হয়ে ডাকাতি করতেন।

মঙ্গলবার (২১ ডিসেম্বর) দুপুরে রাজধানীর কারওয়ান বাজার র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান র‌্যাব-১-এর অধিনায়ক লে. কর্নেল আব্দুল্লাহ আল মোমেন।

র‌্যাব-১-এর অধিনায়ক লে. কর্নেল আব্দুল্লাহ আল মোমেন বলেন, ‘তারা আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সদস্য। তারা দিনে বিভিন্ন পেশায় (সবজি বিক্রি, মুদি দোকানি ও শ্রমিক) নিয়োজিত থাকলেও সন্ধ্যায় ভয়ংকর হয়ে ওঠেন। চক্রের সদস্যরা স্বর্ণের দোকান, শিল্পকারখানা এবং ব্যাংকে ডাকাতি করতেন। গতরাতে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে র‌্যাব-১-এর একটি দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রূপগঞ্জে অভিযান চালায়। এসময় ডাকাতির উদ্দেশ্যে মাইক্রোবাসে অবস্থান করা ১০ ডাকাতকে গ্রেফতার করা হয়।’

তিনি বলেন, চক্রের সদস্যরা দেশের ভিন্ন ভিন্ন জেলায় বসবাস করেন। ডাকাতির পূর্বে তারা পরিকল্পনা অনুযায়ী নির্ধারিত স্থানে একত্রিত হতেন। ছদ্মবেশে ব্যাংক, স্বর্ণের দোকান, শিল্পকারখানার বাইরে অবস্থান করে ২/৩ জন ভেতরে প্রবেশ করে এবং মূল দলটি মাইক্রোবাসসহ সুবিধাজনক স্থানে অপেক্ষা করতে থাকে। এ চক্রের সদস্যরা একে-অপরের যোগসাজশে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় ইতোপূর্বে ১১টি ডাকাতি সংগঠিত করেছে। তাদের বিরুদ্ধে ঢাকার দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ, কেরানীগঞ্জ মডেল ও সাভার থানা, ডিএমপির শাহআলী, মতিঝিল ও ডেমরা থানা, নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও ও সিদ্ধিরগঞ্জ থানা, গাজীপুরের কালিয়াকৈর থানা, টাঙ্গাইলের মির্জাপুর থানা, মানিকগঞ্জের ঘিওর থানাসহ বিভিন্ন থানায় ডাকাতি মামলা রয়েছে।

এক প্রশ্নের জবাবে র‌্যাব-১-এর অধিনায়ক বলেন, ডাকাতদলের অন্যতম হোতা ফরহাদ হোসেন। তাদের কথোপকথনের মধ্যে আমরা দেখেছি, ফরহাদ বলেছেন, অনেক তো ডাকাতি করেছি, এটাই শেষ। যেসব দেশি-বিদেশি অস্ত্র তাদের কাছ উদ্ধার করেছি, সেগুলো তারা ঢাকা থেকেই সংগ্রহ করেছে। ফরহাদ ও হিটু মিয়ার কাছ থেকেই অস্ত্রগুলো পাওয়া গেছে। তারাই মূলত অস্ত্রের যোগানদাতা।

ডাকাতির বাইরে নাশকতার কোনো পরিকল্পনা তাদের ছিল কি না, জানতে চাইলে র‌্যাব-১ এর অধিনায়ক বলেন, ডাকাতির বাইরে নাশকতার কোনো পরিকল্পনা আমরা পাইনি। তাদের প্রধান পেশায় হলো ডাকাতি। এর আগে তারা অন্তত ১১টি ডাকাতি করেছে বলে স্বীকার করেছে। সূত্র: জাগো নিউজ

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: