সর্বশেষ আপডেট : ৯ ঘন্টা আগে
শুক্রবার, ৭ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২২ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

সিলেটে রায়হান হত্যা, মায়ের চাঞ্চল্যকর তথ্য

সিলেটের বন্দরবাজার পু’লিশ ফাঁড়িতে পি’টিয়ে হ’ত্যা করা রায়হানের মা সালমা বেগম চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছেন। তিনি দাবি করছেন, রায়হান হ’ত্যা মা’মলার অ’ত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সাক্ষী চুনাই লাল আত্মহ’ত্যা করেছেন। অ’পর সাক্ষী হাসানকে হু’মকি দেওয়া হচ্ছে, যাতে সাক্ষী না দেন।

চুনাই লালের বাসা থেকে যুবক রায়হানকে ধরে নেওয়া হয়েছিল আর ফাঁড়িতে নেওয়ার পর রাতভর নি’র্যা’তন-কা’ন্নার আর্তনাদের সাক্ষী হলেন হাসান।

রোববার (৫ ডিসেম্বর) রায়হান হ’ত্যা মা’মলার শুনানিতে আসা রায়হানের মা সালমা বেগম আ’দালতপাড়ায় অ’পেক্ষমাণ সাংবাদিকদের কাছে এমন অ’ভিযোগ করেন।

সিলেট কোতোয়ালি থা’নার ওসি মো. আলী মাহমুদ জানান, সাক্ষী চুনাই লাল আত্মহ’ত্যা করেছেন এটা সত্য। গত ১ ডিসেম্বর আত্মহ’ত্যা করলে ময়নাত’দন্ত ছাড়াই লা’শ দাফনের তদবির করা হয়েছিল। আম’রা ময়নাত’দন্ত করেই লা’শ দিয়েছি।

সালমা বেগম বলেন, সুস্থ নিরপরাধ আমা’র ছে’লে রায়হানকে কাষ্টঘরের চুনাই লালের ঘর থেকে ধরে নিয়ে বন্দর ফাঁড়িতে নিয়ে রাতভর পি’টিয়ে হ’ত্যা করে পু’লিশ। ধরে নেওয়া এবং রাতভর নি’র্যা’তনের মাধ্যমে হ’ত্যার সাক্ষী চুনাই লাল ও হাসান।

তিনি বলেন, গুরুত্বপূর্ণ দুই সাক্ষীর মধ্যে চুনাই লাল নাকি দুই মাস আগে আত্মহ’ত্যা করেছেন। অ’পর সাক্ষী হাসান বন্দর ফাঁড়ি সংলগ্ন কুদরত উল্লাহ মা’র্কে’টের দোতলা থেকে রায়হানকে নি’র্যা’তন ও তার কা’ন্না শুনেছিল। তাকেও সাক্ষী না দেওয়ার হু’মকি দেওয়া হচ্ছে। এই হাসানই আমাদের জানিয়েছিলেন নি’র্যা’তনে রায়হান মা’রা গেছে। হু’মকিতে থাকা হাসান এখন ঢাকায়।

রায়হানের মা শ’ঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, দুই সাক্ষীরই যেখানে এমন অবস্থা সেখানে আমিসহ আমা’র পরিবার মোটেও নিরাপদ নয়। আ’সামিরা জে’লে থাকলেও পু’লিশের প্রভাবশালী লোক। জে’লে থাকলেও তারা প্রভাব খাটাচ্ছে। তারা জে’ল থেকে বেরুলে আরও বেপরোয়া হয়ে উঠবে, তাই তাদের ফাঁ’সির দাবি জানান তিনি।

গত বছরের ১১ অক্টোবর যুবক রায়হান আহম’দকে বন্দরবাজার পু’লিশ ফাঁড়িতে নিয়ে পি’টিয়ে হ’ত্যা করা হয়। পু’লিশ হেফাজতে নি’হত রায়হানের ময়নাত’দন্ত রিপোর্টে তার শরীরে ১১১টি আ’ঘাতের চিহ্ন থাকার কথা উল্লেখ করা হয়। পু’লিশের পর পিবিআই ত’দন্ত করে মা’মলার চার্জশিট দেয়।

চলতি বছরের ৫ মে মা’মলার পিবিআইয়ের পরিদর্শক আওলাদ হোসেন ১ হাজার ৯০০ পৃষ্ঠার চার্জশিট আ’দালতে দাখিল করেন। এতে অ’ভিযু’ক্ত করা হয় পাঁচ পু’লিশসহ ৬ জনকে। তারা হলেন- বন্দরবাজার পু’লিশ ফাঁড়ির তৎকালীন ইনচার্জ এসআই আকবর হোসেন ভুঁইয়া, এসআই হাসান উদ্দিন, এএসআই আশেক এলাহী, কনস্টেবল টিটুচন্দ্র দাস ও হারুনুর রশিদ। অ’ভিযু’ক্ত অ’পরজন কথিত সাংবাদিক আব্দুল্লাহ আল নোমান এখনো পলাতক।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: