সর্বশেষ আপডেট : ৩ ঘন্টা আগে
বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

প্রথমবারের মতো কোরিয়ান ভাষায় কোরআন অনুবাদ

সাত বছরের কঠোর পরিশ্রম ও গবেষণা শেষে প্রথমবারের মতো কোরিয়ান ভাষায় পবিত্র কুরআনের অনুবাদ করেছেন দক্ষিণ কোরিয়ার ইসলামিক স্কলার, গবেষক ও অনুবাদক ড. হামিদ চৈ ইয়াং কিল। ১২০০ বছর আগে কোরিয়ানরা প্রথমবারের মত ইসলামের সংস্পর্শে আসলেও এর আগে কোরিয়ান ভাষায় পবিত্র কুরআনের কোনো অনুবাদ গ্রন্থ ছিলো না। সে হিসেবে কোরিয়ান মুসলিমদের জন্য এটি একটি অনন্য ঘটনা।

কোরিয়ার বিখ্যাত ইসলামিক স্কলার ড. হামিদ চৈ (৭০)- এর শৈশব ও পারিবারিক ইতিহাস সম্পর্কে বিস্তারিত কোনো তথ্য না পাওয়া গেলেও জানা যায় যে, তিনি ১৯৭৫ সালে কোরিয়ার হানকুক বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আরবি ভাষা ও সাহিত্যে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন।

এরপর তিনি ইসলামিক ইউনিভার্সিটি অব মদিনা থেকে ফান্ডামেন্টালস অফ রিলিজিয়ন অ্যান্ড দাওয়াহ বিষয়ে পিএইচডি অর্জন করেন (১৯৭৬-১৯৮০)। এ সময় তিনি আরব অঞ্চলের বিখ্যাত শায়খ আব্দুল্লাহ বিন বাজ বিশ্ববিদ্যালয়ের রেক্টর হিসেবে দায়িত্বরত ছিলেন।

এরপর, ২০০৮ সালে তিনি আল্লামা শফিউর রহমান মোবারকপুরী রচিত মহানবী (সা.)-এর বিখ্যাত জীবনী গ্রন্থ ‘আর-রাহিকুল মাখতুম’-এর কোরিয়ান অনুবাদের জন্য কিং আবদুল আজিজ ইন্টারন্যাশনাল অ্যাওয়ার্ড ফর ট্রান্সলেশন লাভ করেন।

ড. হামিদ চৈ-এর জীবনের সবচেয়ে বড় সাফল্য হলো কোরিয়ান ভাষায় পবিত্র কুরআনের অনুবাদ সম্পন্ন করা। এটিই এখন পর্যন্ত কোরিয়ান ভাষায় কুরআনের একমাত্র ও প্রথম অনুবাদ।

এছাড়া তিনি এ পর্যন্ত ৩০টির বেশি বিখ্যাত ও ঐতিহাসিক ইসলামী বই কোরিয়ান ভাষায় অনুবাদ করেছেন। পেশাগত জীবনে ড. হামিদ চৈ একজন শিক্ষক, তিনি মিয়নজি বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেছেন।

উল্লেখ্য, মুসলিম ঐতিহাসিকদের মতে কোরীয় উপদ্বীপের সঙ্গে মুসলিম ব্যবসায়ীদের সংযোগ স্থায়িত্ব খ্রিস্টীয় সপ্তম শতাব্দীর মধ্যভাগে। মুসলিম ঐতিহাসিক ও ভূগোলবিদ ইবনে খারদাজবাহের বর্ণনা মতে কোরিয়ান উপদ্বীপে খ্রিস্টীয় নবম শতকে শিলা রাজ্যে মুসলিমদের স্থায়ী আবাস গড়ে ওঠে। যখন আরব ও পার্সিয়ান মুসলিম ব্যবসায়ীদের কেউ কেউ সেখানে থেকে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়।

খ্রিস্টীয় ১৬ শতক পর্যন্ত কোরীয় উপদ্বীপে বিভিন্ন অঞ্চলের সঙ্গে মুসলিম ব্যবসায়ীদের যোগাযোগ, মুসলিমদের সঙ্গে সখ্যতা, বিক্ষিপ্তভাবে বিভিন্ন স্থানে মসজিদ নির্মাণ। এমনকি প্রশাসনিক পদে মুসলিমদের দায়িত্ব পালনের বিবরণ পাওয়া যায়। এরপর শাসকদের বৈরী মনোভব, আন্তর্ধর্মীয় বিয়ে, ইসলামী জ্ঞানচর্চার অভাব এবং ইসলামী ভূখণ্ডের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্নতা ইত্যাদি কারণে কোরীয় উপদ্বীপে মুসলিমদের স্বকীয়তা ও অস্তিত্ব প্রায় বিলীন হয়ে যায়। ১৯১০ সালে জাপান কোরীয় উপদ্বীপের দখল নেওয়ার পর বহু সংখ্যক কোরিয়ান নাগরিক চীনে আশ্রয় নেয় এবং মুসলিম জনগোষ্ঠীর সঙ্গে পরিচয় ঘটে।

এছাড়া কোরিয়া যুদ্ধের সময় তুরস্ক দক্ষিণ কোরিয়ার পক্ষ নেয় এবং এখানে প্রায় কয়েক হাজার সৈন্য দেশটিতে দায়িত্ব পালন করে। তখন তুর্কি সেনাদের সংশ্রবে বহু কোরিয়ান নাগরিক ইসলাম গ্রহণ করেন। এছাড়া মধ্যপ্রাচ্যে কর্মরত কোরিয়ান নাগরিকরাও ইসলাম গ্রহণ করে, অন্যদিকে দক্ষিণ কোরিয়ায় কর্মরত মুসলিম অভিবাসীদের মাধ্যমেও বহুজন ইসলাম গ্রহণ করেছে। ১৯৫৫ সালে তুর্কি সেনাদের তত্ত্বাবধানে সিউলে প্রথম অস্থায়ী মসজিদ নির্মিত হয়। ১৯৭৬ সালে মুসলিম দেশগুলোর সহযোগিতায় সিউলে স্থায়ী মসজিদ নির্মিত হয়। তথ্যসূত্র : আরব নিউজ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: