সর্বশেষ আপডেট : ৯ ঘন্টা আগে
শনিবার, ২২ জানুয়ারী ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

আফ্রিকা নয়, ওমিক্রনের উৎস লন্ডন!

দক্ষিণ আফ্রিকা নয়, করো’নাভাই’রাসের নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রনের উৎস নাকি লন্ডন! সম্প্রতি ইস’রায়েলের এক চিকিৎসকের দাবির ভিত্তিতে এমন ইঙ্গিত দেখছেন বিশেষজ্ঞরা।

একেবারে প্রথম দিকে ওমিক্রন-এ আ’ক্রান্তদের একজন ইস’রায়েলি চিকিৎসক ড. এলাড মোর। নভেম্বরের মাঝামাঝি তিনি লন্ডনে গিয়েছিলেন এক চিকিৎসক সম্মেলনে যোগ দিতে। ফিরে এসেই তিনি অ’সুস্থ হয়ে পড়েন। তার দাবি, লন্ডনের ওই সম্মেলন থেকেই তিনি সংক্রমিত হয়েছিলেন এবং তা ওমিক্রন প্রজাতির ভাই’রাসেই।

ড. এলাড মোর একজন হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ। তিনি তেল আভিবের শেবা মেডিক্যাল সেন্টারে কর্ম’রত। সম্প্রতি ‘দ্য গার্ডিয়ান’কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি দাবি করেন, তিনি নভেম্বরেই একটি আন্তর্জাতিক চিকিৎসক সম্মেলনে যোগ দিতে লন্ডন গিয়েছিলেন। ওই সম্মেলনে দেশ বিদেশের প্রায় ১২০০ চিকিৎসক যোগ দিয়েছিলেন। মোরের কথা অনুযায়ী, তিনি লন্ডন পৌঁছান ১৯ নভেম্বর। চার রাত তিনি ছিলেন উত্তর লন্ডনের ইসলিংটন এলাকার একটি হোটেলে। সম্মেলন শেষ করে ওই চিকিৎসক ইস’রায়েল ফিরেছেন ২৩ নভেম্বর এবং তার পরেই তিনি অ’সুস্থ হয়ে পড়েন। সামান্য জ্বর, পেশীতে এবং গলা ব্যথা ছিল। করো’না পরীক্ষা করা হলে গত ২৭ নভেম্বর তার রিপোর্ট পজিটিভ আসে। দেখা যায় তিনি ওমিক্রন -এ সংক্রমিত।

মোরের দাবি, যদিও মনে করা হয় সংক্রমিত হওয়ার ১৪ দিন পরেও উপসর্গ দেখা দিতে পারে। তবু সাধারণ ভাবে দিন পাঁচেকের মধ্যেই করো’না উপসর্গ দেখা দেয়। এখনও পর্যন্ত মোরের শরীরে মৃদু উপসর্গই দেখা গিয়েছে বলে তার দাবি।

করো’না সংক্রমণ ঠিক কোথা থেকে হয়েছে তা বলা সম্ভব নয়। কিন্তু লন্ডনের সম্মেলন নিয়ে ওই চিকিৎসকের স’ন্দেহের কারণ তার এক সহকর্মী। তিনিও করো’না সংক্রমিত। মোর বলেন, ‘আমি নিশ্চিত ওই সম্মেলনে যোগ দেওয়া বহু চিকিৎসা কর্মীই ওমিক্রন সংক্রমিত হয়ে থাকতে পারেন। তা হলে দেখা যাচ্ছে বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার কাছে রিপোর্ট পৌঁছনোর অন্তত ১০ দিন আগে নতুন ভাই’রাসের অস্তিত্ব ছিল।’

এর আগে একাধিক রিপোর্টে দাবি করা হয়েছিল, দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রথম ওমিক্রন ধ’রা পড়ার অনেক আগে থেকেই ওই করো’না ভাই’রাসের নতুন রূপ পৃথিবীতে ঘুরে বেড়া্চ্ছিল। গত ২৪ নভেম্বর বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা ঘোষণা করে দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রথম ওমিক্রন সংক্রমণের কথা।

এর আগে নেদারল্যান্ডের একটি স্বাস্থ্য সংস্থার তরফে দাবি করা হয়েছিল তাদের কাছে ওমিক্রন এর নমুনা এসেছে ১৯ থেকে ২৩ নভেম্বরের মধ্যে। তার মানে, যেমনটা আগে ধারণা করা হয়েছিল, তার অনেক আগে থেকেই নেদারল্যান্ডে জাল ছড়িয়েছে ওমিক্রন ।

ইস’রায়েলি চিকিৎসকের সাক্ষাৎকার থেকে আবারও নতুন করে মা’থাচাড়া দিচ্ছে বিতর্ক। কবে, কোথা থেকে ওমিক্রন -এর সংক্রমণ শুরু হয়েছে তা একেবারেই নিশ্চিত নয়। অথচ, ইতিমধ্যেই দক্ষিণ আফ্রিকার বি’রুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা জারি করে ফেলেছে। বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে আন্তর্জাতিক উড়ানও। এ বিষয়ে এর আগেই প্রতিবাদ করেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও বিষয়টির কড়া সমালোচনা করেছে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  • 174
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    174
    Shares

Comments are closed.

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: