সর্বশেষ আপডেট : ২ ঘন্টা আগে
বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

চেয়ারম্যান প্রার্থী হচ্ছেন ৬ মাস কারাগারে থাকা শাল্লার সেই ঝুমন দাস

হেফাজতের সাবেক নেতা মামুনুল হকের সমালোচনা করে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দীর্ঘ ৬ মাস কারাগারে থাকা শাল্লার ঝুমন দাস নির্বাচনে ল’ড়ার ঘোষণা দিয়েছেন। শাল্লা থা’না পু’লিশের ‘ওপেন হাউজে ডে’ অনুষ্ঠানে মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তিনি নিজে প্রার্থী হওয়ার ঘোষণা দেন। তবে কোনো রাজনৈতিক ব্যানারে নয় স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে শাল্লা উপজে’লার হবিবপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদে ল’ড়তে চান তিনি।

এ ব্যাপারে ঝুমন দাস বলেন, ‘এলাকার মানুষ নির্বাচন করার জন্য আমাকে বার বার বলছে। তাই সবাইকে সঙ্গে নিয়েই নির্বাচনে প্রার্থীতা ঘোষণা করেছি। তবে কোনো দলের হয়ে নয়। আমি স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করব।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমি সবসময়ই অন্যায়ের বি’রুদ্ধে প্রতিবাদ করে এসেছি। তাই ইউনিয়নের মানুষ চায় আমি নির্বাচন করি।’

ঝুমনের মা নিভা রানী দাস বলেন, ‘আশা করি এলাকাবাসী আমা’র ছে’লেকে ভোটে জয়ী করবে।’ গত ১৫ মা’র্চ সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে ‘শানে রিসালাত সম্মেলন’ নামে একটি সমাবেশের আয়োজন করে হেফাজতে ইস’লাম। এতে হেফাজতের তৎকালীন আমির জুনায়েদ বাবুনগরী ও যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হক বক্তব্য দেন।

এই সমাবেশের পরদিন ১৬ মা’র্চ মামুনুল হকের সমালোচনা করে ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন দিরাইয়ের পার্শ্ববর্তী উপজে’লা শাল্লার নোয়াগাঁওয়ের যুবক ঝুমন দাস। স্ট্যাটাসে তিনি মামুনুলের বি’রুদ্ধে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্টের অ’ভিযোগ আনেন।

মামুনুলের সমালোচনাকে ইস’লামের সমালোচনা বলে এলাকায় প্রচার চালাতে থাকেন তার অনুসারীরা। এতে এলাকাজুড়ে উত্তে’জনা দেখা দেয়। বিষয়টি আঁচ করতে পেরে নোয়াগাঁও গ্রামের বাসিন্দারা ১৬ মা’র্চ রাতে ঝুমনকে পু’লিশের হাতে তুলে দেন।

পরদিন বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী’র সকালে কয়েক হাজার লোক লা’ঠিসোঁটা নিয়ে মিছিল করে হা’মলা চালায় নোয়াগাঁও গ্রামে। তারা ভাঙচুর ও লুটপাট করে ঝুমন দাসের বাড়িসহ হাওরপাড়ের হিন্দু গ্রামটির প্রায় ৯০টি বাড়ি, মন্দির। ঝুমনের স্ত্রী’ সুইটিকে পি’টিয়ে আ’হত করা হয়। এরপর ২২ মা’র্চ ঝুমনের বি’রুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মা’মলা করে শাল্লা থা’নার উপপরিদর্শক (এসআই) আবদুল করিম।

শাল্লায় হা’মলার ঘটনায় শাল্লা থা’নার এসআই আব্দুল করিম, স্থানীয় হাবিবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বিবেকানন্দ মজুম’দার বকুল ও ঝুমন দাসের মা নিভা রানী তিনটি মা’মলা করেন। তিন মা’মলায় প্রায় ৩ হাজার আ’সামি। পু’লিশ নানা সময়ে শতাধিক ব্যক্তিকে গ্রে’প্তার করে। তারা সবাই জামিন পান। শুধু জামিন পাচ্ছিলেন না ঝুমন দাস। বিচারিক আ’দালতে কয়েক দফা জামিন নাকচের পর ২৩ সেপ্টম্বার জামিন পান ঝুমন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: