সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
শনিবার, ২ জুলাই ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৮ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

গতিহীন সিলেটবাসীর স্বপ্নের ছয় লেন মহাসড়ক!

সিলেট-ঢাকা মহাসড়ক ছয় লেনে সম্প্রসারণ করার কাজের ঠিকাদার নিয়োগের জন্য দরপত্র দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। সার্ভিস লেনসহ এই সড়ক হবে ২০৯ কিলোমিটার। প্রকল্পসংশ্লিষ্টরা বলছেন, ১৭ হাজার কোটি টাকার এই মহাসড়ক সম্প্রসারণকাজের জন্য এখনো জমির বন্দোবস্ত হয়নি। বেশি সমস্যা হচ্ছে সরকারি জমি পেতে। সময়মতো জমি না পেলে প্রকল্প শেষ হতেও দেরি হবে, এতে খরচও বেড়ে যাবে।

প্রকল্পের উপ-প্রকল্প পরিচালক রুকুনুজ্জামান বলেন, জমি পাওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে এবং ইউটিলিটি স্থানান্তরের জন্য সংশ্লিষ্টদের চিঠি দেওয়া হয়েছে। কিন্তু এখনো তেমন কোনো কাজ হয়নি।

প্রকল্পসংশ্লিষ্টরা বলছেন, জমি না পাওয়ায় মহাসড়কের পাশ থেকে পল্লী বিদ্যুৎ, তিতাস গ্যাস, পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি, বিটিসিএল, ওয়াসা ও পৌরসভা তাদের সেবাগুলোও সরাতে পারছে না।

ঢাকা-সিলেট বর্তমানে দুই লেনের সড়ক। যানবাহনের চাপ এই মহাসড়ক সামলাতে পারছে না। এতে একদিকে যেমন সড়ক দুর্ঘটনা বৃদ্ধি পাচ্ছে, অন্যদিকে বিভিন্ন স্থানে যানজট লেগে যাচ্ছে। এ রুটের যাত্রীদের পড়তে হচ্ছে ভোগান্তিতে। এ কারণে চলতি বছরের ১৬ ফেব্রুয়ারি একনেক বৈঠকে এই সড়ক সম্প্রসারণ প্রকল্পের অনুমোদন দেওয়া হয়। এর আগে ২০১৮ সালের ২২ ডিসেম্বর সিলেটে এক জনসভায় শেখ হাসিনা ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক চার লেন করার প্রতিশ্রুতি দেন।

প্রকল্পসংশ্লিষ্টরা বলছেন, এশিয়ান হাইওয়ে নেটওয়ার্ক, বিমসটেক করিডর, সার্ক করিডর আঞ্চলিক সড়ক নেটওয়ার্কে সংযুক্ত হতে ‘সাসেক ঢাকা-সিলেট করিডর সড়ক উন্নয়ন’ প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। তা ছাড়া, এ মহাসড়কের কাজ শেষ হলে প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে যোগাযোগ উন্নয়নের মাধ্যমে আঞ্চলিক আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য বৃদ্ধি পাবে।

প্রকল্পের নথিপত্রে দেখা গেছে, পুরো প্রকল্পটির ছয়টি প্যাকেজে ও ১৩ লটে বাস্তবায়ন করা হবে। এরই মধ্যে প্রকল্পের দুটি প্যাকেজের দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে। এই প্যাকেজের আওতায় ৬৭ দশমিক ৮৫ কিলোমিটার মহাসড়ক। যেটা কাঁচপুর থেকে নরসিংদীর বিসিক হয়ে ভৈরব বাজার পর্যন্ত যাবে। প্রথম প্যাকেজের কাজের মধ্যে নরসিংদী এলাকায় জমি অধিগ্রহণ ও ইউটিলিটি সার্ভিস সরাতে বেশি সমস্যা দেখা দিয়েছে।

এ প্রকল্প বাংলাদেশ সরকার ও এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের (এডিবি) যৌথ অর্থায়নে করা হচ্ছে। মহাসড়ক নির্মাণে ব্যয় হবে প্রায় ১৬ হাজার ৯১৮ কোটি টাকা। এর মধ্যে সরকার দিচ্ছে ৩ হাজার ৬৭৩ কোটি টাকা এবং এডিবি ঋণ দিচ্ছে ১৩ হাজার ২৪৪ কোটি টাকা। পুরো প্রকল্প শেষ হবে ২০২৬ সালে। প্রকল্পের আওতায় ৬৬টি সেতু, কালভার্ট ৩০৫ টি, রেলওয়ে ওভারপাস ৮ টি, ফুটওভার ব্রিজ ২৬টি এবং ৩৭টি ইউটার্ন রয়েছে। ২০৯ কিলোমিটার মহাসড়কের রুট যাচ্ছে নারায়ণগঞ্জ, নরসিংদী, কিশোরগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, হবিগঞ্জ, মৌলভীবাজার এবং সিলেট জেলার ওপর দিয়ে। এর চার লেন হবে ৭ দশমিক ৩ মিটার এবং সার্ভিস লেন হবে ৫ দশমিক ৫ মিটার।

জানতে চাইলে বুয়েটের অধ্যাপক মো. হাদিউজ্জামান বলেন, প্রকল্প নেওয়ার আগে-পরে নথি চালাচালিতে কালক্ষেপণ হয়। এসব কারণে প্রকল্প বাস্তবায়নের মেয়াদ বেড়ে যায়। যেকোনো প্রকল্পের আগে এসব দিকেও গুরুত্ব দিতে হবে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Comments are closed.

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: