সর্বশেষ আপডেট : ১২ মিনিট ০ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ৫ ডিসেম্বর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

ইকবালকে কোরআন সরবরাহ করেছিল মাজারের কর্মী

কুমিল্লার নানুয়ার দিঘির পাড়ের পূজামণ্ডপে পবিত্র কোরআন শরিফ রাখায় প্রধান স’ন্দেহভাজন হিসেবে শনাক্ত ইকবাল হোসেনকে কোরআনটি সরবরাহ করেছিল মাজারের কর্মী।পূজামণ্ডপে কোরআন শরীফ রাখার ঘটনা ত’দন্তে গিয়ে আরও একটি সিসিটিভি ফুটেজ সামনে আসলে এই ঘটনাটি প্রকাশ পেয়েছে।

সিসিটিভি ফুটেজে দেখা যায়, নানুয়ারদিঘীর দারোগাবাড়ি মাজারের দুই কর্মীর একজন মাজার সংলগ্ন ম’সজিদে ইকবাল হোসেনের জন্য কোরআন শরিফ রেখে যাচ্ছে।

পু’লিশ সূত্র জানায়, ওই দুই কর্মী হলেন হাফেজ হু’মায়ুন এবং ফয়সাল।

তবে ১২ অক্টোবর রাত ১১টায় তাদের দুজনের মধ্য থেকে কে ম’সজিদের ভেতরে কোরআন রেখে গিয়েছিল তা তাৎক্ষণিকভাবে নিশ্চিত হওয়া যায়নি ।

আরেকটি ফুটেজে দেখা যায়, দিবাগত রাত ২টা ১২ মিনিটে ইকবাল ম’সজিদ থেকে কোরআনটি সংগ্রহ করছে। এরপর সে ম’সজিদ থেকে বেরিয়ে নানুয়ারদিঘী পূজামণ্ডপে হনুমান মূর্তির ওপর কোরআন শরিফ রেখে আসে।

ইকবালই যে মণ্ডপে কোরআন শরিফ রেখে এসেছিল, বুধবার সে কথা জানায় পু’লিশ। কিন্তু বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত তাকে গ্রে’প্তার করতে পারেনি তারা।

এর আগে পাওয়া একটি সিসিটিভি ফুটেজে দেখা যায়, ইকবাল ম’সজিদ থেকে বেরিয়ে আসছে এবং কিছুক্ষণ পরে মণ্ডপের হনুমান প্রতিমা’র গদা নিয়ে হেঁটে যাচ্ছে।

এদিকে, বৃহস্পতিবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কা’মাল বলেছেন, ‘এই মুহূর্তে মোবাইল ফোন ব্যবহার না করায় ইকবালকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। তবে শিগগিরই তাকে গ্রে’প্তার করা হবে।’

মন্ত্রী মনে করেন, কুমিল্লার ঘটনায় ইকবালকে কেউ প্র’রোচনা দিয়েছে। তাকে আ’ট’কের পর ঘটনার পেছনের কারণ বেরিয়ে আসবে।

দুর্গাপূজায় সারা দেশে উৎসবমুখর পরিবেশের মধ্যে গত ১৩ অক্টোবর ভোরে কুমিল্লার নানুয়ার দিঘির পাড়ের ওই মণ্ডপে পবিত্র কোরআন শরিফ পাওয়ার পর ছড়িয়ে পড়ে সহিং’সতা।

ওই মণ্ডপের পাশাপাশি আ’ক্রান্ত হয় নগরীর আরও বেশ কিছু পূজামণ্ডপ। পরে সহিং’সতা ছড়িয়ে পড়ে চাঁদপুর, নোয়াখালী, চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন জে’লায়। ওই দিন চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে হিন্দুদের ওপর হা’মলা করতে যাওয়া একদল ব্যক্তির সঙ্গে পু’লিশের সং’ঘর্ষ হয়। সেখানে নি’হত হন চারজন। পরদিন নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে হিন্দুদের মন্দির, মণ্ডপ ও দোকানপাটে হা’মলা–ভাংচুর চালানো হয়। সেখানে হা’মলায় নি’হত হয়েছিলেন দুইজন। এরপর রংপুরের পীরগঞ্জে হিন্দু বসতিতে হা’মলা করে ভাংচুর, লুটপাট ও ঘরবাড়িতে অ’গ্নিসংযোগ করা হয়েছে। হিন্দুদের মন্দির–মণ্ডপসহ বিভিন্ন স্থাপনায় হা’মলা হয়েছে দেশের আরও অনেক এলাকায়।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: