সর্বশেষ আপডেট : ৪ মিনিট ৪৪ সেকেন্ড আগে
সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি ব’ন্দিদের দেশে ফেরাতে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে- হাইকমিশনার

মালয়েশিয়ায় অ’বৈধ হয়ে কিংবা বিভিন্ন কারণে গ্রে’প্তার হয়ে কারাভোগের পর ডিটেনশন সেন্টারে আ’ট’ক সহস্রাধিক বাংলাদেশি অ’ভিবাসী। কারাদ’ণ্ডের মেয়াদ শেষ হলে অ’ভিবাসীদের নিজ দেশে ফেরত পাঠানোর পূর্ব পর্যন্ত এই ডিটেনশন ক্যাম্পে আ’ট’ক রাখা হয়। দেশে ফেরত পাঠাতে যে তথ্য-উপাত্ত দরকার হয় সেগুলো নিশ্চিত হলেই নিজ দেশে ফেরত পাঠানো হয়।

কিন্তু বিভিন্ন কারণে অনেক সময় এই প্রক্রিয়া বিলম্ব হয়। সংশ্লিষ্ট ব’ন্দিদের দ্রুত নিজ দেশে ফেরত পাঠাতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুরে নিযু’ক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত গো’লাম সারোয়ার। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মালয়েশিয়ায় এসব বাংলাদেশি ব’ন্দি অ’বৈধ হয়ে অথবা দেশটির অ’ভিবাসন আইন লঙ্ঘনের কারণে গ্রে’প্তার হয়ে কারাভোগ করেন।

তবে বেশিরভাগ ব’ন্দি ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ার পর অ’বৈধ হিসাব আ’ট’ক হন। আবার এক কোম্পানির নামে ভিসা নিয়ে অন্য কোম্পানিতে কাজ করলেও তাদের আ’ট’ক করা হয়, যাকে বলে ছালা কিরজা।

একটানা কম্পিউটারে কাজ! চোখকে চাপমুক্ত রাখতে করণীয়
করো’নায় টানা লকডাউন, এসওপি বিধিনিষেধের কারণে ব’ন্দিদের নিজ দেশে প্রত্যাবর্তন প্রক্রিয়া ব্যাহত হয়েছে। কম-বেশি ১৬৭৮ জন বাংলাদেশি দেশে ফেরার অ’পেক্ষায় আছেন।

এ সময় ফ্লাইট শিডিউল নিয়মিত ছিল না। স্বাভাবিক বিমান চলাচল এখনো স্থগিত রয়েছে। শুধুমাত্র স্পেশাল ও চাটার্ড ফ্লাইটগুলো যাতায়াত করছে। সংশ্লিষ্ট দূতাবাস থেকে প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টস একজন ব’ন্দির পক্ষে দেশটির ইমিগ্রেশন ও ডিটেনশন সেন্টারে না পৌঁছালে ব’ন্দি প্রত্যাবর্তন প্রক্রিয়া বিলম্ব হয়। অনেক সময় দূতাবাস থেকে এসব তথ্যাদি পৌঁছাতে বিলম্ব হয়। তাছাড়া সর্বশেষ যে জটিলতা সৃষ্টি হয় সেটা হলো বিমানের টিকিট নিয়ে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে একজন প্রবাসী দেশটির আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে যখন আ’ট’ক হন তখন খালি হাতে আ’ট’ক হন। এয়ার টিকিট ক্রয় করার মতো সাম’র্থ্য থাকে না।

এ কারণে অনেক ব’ন্দি আছেন টিকিট না সংগ্রহ করতে পেরে মাসের পর মাস, বছরের পর বছর ডিটেনশন সেন্টারে আ’ট’ক থাকেন। তাই বাংলাদেশি কমিউনিটি ও প্রবাসীদের পরিবারের দাবি সরকারি ভাবে যেন এই বিমান টিকিটের ব্যবস্থা করা হয় তাহলে ভোগান্তি অনেকটা কমবে। এ ব্যাপারে হাইকমিশনার গো’লাম সারোয়ার আরও জানান, করো’নায় বিভিন্ন বিধিনিষেধ যেমন স্ট্যান্ডার্ড অ’পারেটিং সিস্টেম (এসওপি) এর কারণে মালয়েশিয়া কর্তৃপক্ষ আমাদের ব’ন্দি বাংলাদেশি ভাইবোনদের সঙ্গে দেখা করার অনুমতি দেয়নি

তাছাড়া আন্তর্জাতিক রীতি অনুযায়ী দূতাবাস চাইলেই ব’ন্দিদের সঙ্গে দেখা করতে পারে না। স্থানীয় কর্তৃপক্ষের লিখিত অনুমোদন লাগে, যেটা একটু সময় সা’পেক্ষও বটে। তবে সম্প্রতি আম’রা হাইকমিশন থেকে সকল কারাগার/ডিপোর্টেশন সেন্টার ভিজিট শুরু করেছি। ইন্‌শাআল্লাহ শিগগিরই আম’রা প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া আরও বেগবান করতে পারবো।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  • 14
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    14
    Shares
নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: