সর্বশেষ আপডেট : ২ ঘন্টা আগে
শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

পরমাণু শক্তি আমরা শান্তির জন্য ব্যবহার করবো: প্রধানমন্ত্রী

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে বিদ্যুৎ বিতরণের জন্য সঞ্চালন লাইন নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘পরমাণু শক্তি আম’রা শান্তির জন্যই ব্যবহার করবো। পরমাণু শক্তি দিয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন হবে। সেটা গ্রামের মানুষের কাছে যাবে। তাদের আর্থ-সামাজিক উন্নতি হবে।’

রবিবার (১০ অক্টোবর) রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের (আরএনপিপি) প্রথম পারমাণবিক চুল্লিপাত্র স্থাপন কাজের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভিডিও কানফারেন্সের মাধ্যমে এ কাজের উদ্বোধন করেন তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আশা করি, ২০২৩ সালের মধ্যে এখান থেকে বিদ্যুৎ সরবরাহ এবং ২০২৪ সালে দ্বিতীয় ইউনিট শুরু করতে পারবো।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘রূপপুর বিদ্যুৎকেন্দ্র হয়ে যাওয়ার পর আম’রা দক্ষিণাঞ্চলে জায়গা খুঁজছি। দক্ষিণাঞ্চলে শক্ত মাটির জায়গা পাওয়া খুবই কঠিন। তারপরও বিভিন্ন দ্বীপসহ ওই অঞ্চলে জ’রিপ করছি। আরেকটা বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ করবো, যেখানে ভালো জায়গা পায়। আমা’র ইচ্ছা, পদ্মা’র ওপারেও করবো। আশা করি, এ ব্যাপারে কোনও অ’সুবিধা হবে না।’ তিনি বলেন, ‘সেখানে যদি আম’রা আরেকটা পরমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ করতে পারি। তাহলে বিদ্যুতের জন্য আর কোনও অ’সুবিধা হবে না। তারপরও আম’রা বহু’মুখী বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ করে যাচ্ছি এ জন্য যে, বিদ্যুৎ সুবিধা যেন মানুষ পায় এবং অব্যাহত থাকে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আম’রা ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে উন্নত ও সমৃদ্ধ দেশ হিসাবে গড়তে চাই। এখন উন্নয়নশীল দেশের ম’র্যাদা পেয়েছি। কিন্তু এখানে থেমে গেলে চলবে না। ৪১ সালে উন্নত বাংলাদেশ গড়বো। ২০৭১ সালে স্বাধীনতার শতবর্ষ উদযাপন হবে। নিশ্চয় নতুন প্রজন্ম একটি সুন্দর, উন্নত, সমৃদ্ধশালী ও আধুনিক প্রযু’ক্তিসমৃদ্ধ দেশ হিসাবে স্বাধীনতার শতবর্ষ উদযাপন করবে।’

তিনি বলেন, ‘আম’রা ২১০০ সাল পর্যন্ত ডেলটা প্ল্যানও করে দিয়েছি। যাতে এই দেশকে আর কোনোদিন পিছিয়ে পড়তে না হয়। আর যেন কোনও শকুনির থাবা না পড়ে বাংলাদেশের ওপর। উন্নতি ও অগ্রগতি অ’প্রতিরোধ্য গতিতে যাতে এগিয়ে যায় সেটাই আম’রা চায়।’

দেশের ৯৯ ভাগ মানুষ বিদ্যুৎ সুবিধা পাচ্ছে বিষয়টি আবারও জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মানুষের যতটা আর্থিক সচ্ছলতা আসবে, তাদের চাহিদাও বাড়তে থাকবে। তাছাড়া আম’রা ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তুলছি। সেখানে শিল্পায়ন হবে। যত বেশি শিল্পায়ন হবে, ততবেশি বিদ্যুতের চাহিদাও তৈরি হবে। সেটাকে মা’থায় রেখে বিদ্যুৎ উৎপাদন ও সঞ্চালনের পরিকল্পনা আম’রা নিয়েছি।’

বেসরকারি খাতে বিদ্যুৎ উৎপাদন আইন প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, ‘এই আইন করে আম’রা বেসরকারি খাতটা উন্মুক্ত করে দিয়েছি। শিল্পপতিরা যাতে ছোট ছোট বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ করতে পারে। সেটাও আম’রা অনুমোদন দিয়েছি। সে ক্ষেত্রে আম’রা এটা বিশেষ আইনও করি।এই ব্যবস্থা নেওয়ার ফলে দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়ছে।’

পরমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণে রাশিয়ার সহযোগিতার কথা তুলে ধরে সরকার প্রধান বলেন, ‘আমি যখন রাশিয়ায় যায়, তাদের রাষ্ট্রপতি পুতিনের সঙ্গে বিষয়টি আলাপ হয়। তিনি আমাদের পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র করে দেবেন-এ কথাটা বলেন। তাদের সাবেক প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গেও আলাপ হয়।’ তিনি বলেন, ‘সেখানে আমা’র কতগুলো প্রশ্নও ছিল এর নিরাপত্তা ও বর্জ্য ব্যবস্থাপনা নিয়ে। কারণ বাংলাদেশ ঘনবসতিপূর্ণ। এখানে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা সম্ভব না। আমাদের যে চুক্তি হয়,তাতে এটাও নিশ্চিত করা হয়। বর্জ্য ব্যবস্থাপনা সবসময় রাশিয়াই করবে।’

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের মাধ্যমে আনবিক কমিশনে কর্ম’রতদের অ’ভিজ্ঞতা হয়েছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘আম’রা রাশিয়াতে প্রশিক্ষণ দিচ্ছি। ভা’রতেও দিচ্ছি। কারণ সেখানে একই রকম আরেকটি বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ হচ্ছে। আর এখানে কাজ করতে গিয়ে আমাদের দেশের মানুষ বিভিন্ন রকম অ’ভিজ্ঞতা পাচ্ছে।’

রূপপুর বিদ্যুৎকেন্দ্রের নিরপাত্তার বিষয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘এখানে থেকে চার স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা আম’রা করেছি। পারমাণবিক চুল্লির কাছে যারা কাজ করবে তাদেরও অ’ভিজ্ঞতা ও প্রশিক্ষণের দরকার।’

তিনি বলেন, ‘পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের মাধ্যমে পরিবেশ দূষণ হয় না। এখনে সব আধুনিক প্রযু’ক্তি ব্যবহার হচ্ছে। তাই খুব একটা দুর্ঘ’টনা ঘটার সুযোগ নেই।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমাদের মাটি খুবই নরম। এখানে চুল্লি বসাতে গেলে ওজন নিতে হয়। সেটার জন্য এই মাটিটাকেও নতুনভাবে তৈরি করতে হয়েছে। নদী ড্রেজিং করতে হয়েছে। সেই ভলগা থেকে পদ্মা আম’রা পাড়ি দিচ্ছি। সেটাতে আমাদের ভবিষ্যৎ ব্যবসা-বাণিজ্যের দুয়ার খুলে গেলো বলে মনে করি।’

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  • 40
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    40
    Shares
নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: