সর্বশেষ আপডেট : ১৩ মিনিট ২৬ সেকেন্ড আগে
মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১১ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

অভিবাসন-প্রত্যাশীদের সংকট কাটছে না

যু’ক্তরাষ্ট্রে অ’ভিবাসী হওয়ার স্বপ্ন অনেক মানুষের। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে এখানে মানুষ পাড়ি জমান সোনার অ’ভিবাসন-প্রত্যাশীদের হরিণ ধ’রার আশায়। সেই সোনার হরিণ কেউ ধরতে পারেন, কেউ পারেন না। যারা একবার যু’ক্তরাষ্ট্রে আসেন, তারা অ’পেক্ষা করেন দিনের পর দিন। যারা অ’ভিবাসনের প্রত্যাশা নিয়ে এখানে আসেন, তারা বিভিন্ন ধরনের উদ্যোগ নেন। এসব ক্ষেত্রে সাফল্য আসে, তবে আবেদনকারীদের ভীষণ কঠিন সময়ের মধ্য দিয়ে যেতে হয়। নথিপত্রহীন মানুষ আশা করছেন, বাইডেনের শাসনামলে অন্তত বৈধ স্ট্যাটাস পেতে পারেন। সেই আশায় অনেক মানুষ অ’পেক্ষা করছেন। ড্রিমা’ররাও গ্রিনকার্ড পাওয়ার জন্য অ’পেক্ষা করছেন। পরিবারের জন্য যারা আবেদন করেছেন, তারাও অ’পেক্ষা করছেন যাতে দ্রুত তার পরিবারের সদস্যরা এখানে আসতে পারে। আসলে করো’না অনেক কিছু পিছিয়ে দিয়েছে। এখন সব মানুষের অ’পেক্ষা করা ছাড়া কোনো উপায় নেই।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এ দেশে অনেকেরই বৈধ অবস্থা প্রমাণের জন্য নথিপত্র নেই। অনেকেই অ্যাসাইলাম কেস করেছেন। অ’পেক্ষা করছেন কেসের শুনানির জন্য। যারা শুনানির জন্য অ’পেক্ষা করছেন, তারা এখনো আশার আলো দেখছেন না। কারণ কিছুদিন হলো কোর্ট খুলেছে। আগের চেয়ে কর্মকা’ণ্ড বেড়েছে। প্যান্ডামিকের সময়ে ভা’র্চুয়ালি চলেছে। এ কারণে ডেট পড়ছে অনেক দেরিতে।

ইউএসসিআই’এস করো’নার কারণে স্বাভাবিক গতিতে কাজ করতে পারেনি। তবে তারা কাজ অব্যাহত রাখে ও সীমিত পরিসরে কাজ চালিয়ে রেখেছে। লকডাউন উঠে যাওয়ার পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে শুরু করার পর তারা অফিস খুলে দেয়। কাজের গতিও বাড়িয়ে দেয়। অফিস সময়ের পরও কাজ করছে। তার পরও ২০২০ সালের মা’র্চ থেকে চলতি বছরের এই সময় পর্যন্ত অনেক ব্যাকলগ তৈরি হয়েছে। এটা কা’টাতে সময় লাগছে। এ জন্য নথিপত্র জমা দেওয়ার সময় বারবার বাড়িয়েছে। ২০২২ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত সময় বাড়ানো হয়েছে। এই সময়ের মধ্যে বিভিন্ন ক্যাটাগরির আবেদনকারীরা নথি জমা দিতে পারবেন।

এদিকে বেশ কয়েকটি সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছরের মা’র্চ-এপ্রিলে সিটিজেনশিপের জন্য অনেকে আবেদন করেছেন কিন্তু এখনো ইন্টারভিউয়ের ডেট পাননি। যারা আবেদন করার পর ফিঙ্গারপ্রিন্টের জন্য ডাক পেয়েছিলেন, তারা ফিঙ্গারপ্রিন্ট দিয়ে অ’পেক্ষা করছেন। তবে এরই মধ্যে অনেকেই সিটিজেনশিপ পেয়েছেনও। এখন অ’পেক্ষমাণ আবেদনকারীদের শিডিউল ঠিক করা হচ্ছে ও ইন্টারভিউ নেওয়া হচ্ছে।

বাইডেন প্রশাসন সিটিজেনশিপ অ্যাক্ট ২০২১ পাস করার পরিকল্পনা করেছে। কংগ্রেসে পাস হওয়ার পর সেটি এখন সিনেটে পাসের অ’পেক্ষায় রয়েছে। এই বিল পাস হলে অ’ভিবাসীদের অ’পেক্ষার পালা অনেকটাই শেষ হবে। কিন্তু এই বিল পাসের ব্যাপারে রিপাবলিকানদের আগ্রহ নেই। তারা বিলের বিভিন্ন বিষয়ে আ’পত্তি দিয়েছে। ডেমোক্র্যাটরা এই বিল রিকনসিলেশনের মাধ্যমে পাস করবেন, এমন কোনো সম্ভাবনাও তৈরি হয়নি। ডেমোক্র্যাটরা দুই দলের সমঝোতার ভিত্তিতে বিলটি পাস করানোর চেষ্টা করছেন।

এদিকে আ’মেরিকায় যারা বিভিন্ন ধরনের স্ট্যাটাস অ্যাডজাস্ট করার জন্য আবেদন করেছেন, তাদের আবেদনের বিষয়গুলোও অ’পেক্ষমাণ রয়েছে। এখন অনেকেই শিডিউল পাচ্ছেন। তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যারা আবেদন করেছেন, তারা দেরিতে হলেও ডেট পাবেন। এ ছাড়া যদি কারো আবেদনের দিনক্ষণ অনেক বেশি দিন হয়ে যায়, সে ক্ষেত্রে তারা ইউএসসিআিইএসের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন।

এদিকে অ’বৈধ অ’ভিবাসীদের মধ্যে আট লাখ মানুষকে বৈধ করার যে কথা শোনা গিয়েছিল, এ ব্যাপারেও এখনো পুরোপুরি কোনো সুরাহা হয়নি। এ-সংক্রান্ত বিল পাস না হলে তাদের ভাগ্যের শিকে আপাতত ছিঁড়ছে না।সৌজন্যঃ ঠিকানাইউএস

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  • 9
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    9
    Shares

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: