সর্বশেষ আপডেট : ৫৯ মিনিট ৫৬ সেকেন্ড আগে
মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১১ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

সিলেটে ভন্ড পীর প্রতারণা করে হাতিয়ে নিয়েছেন কয়েক কোটি টাকা

কাউকে ফ্ল্যাট, আবার কাউকে চাকরি দেওয়ার আশ্বা’স দিয়ে শতাধিক ভক্ত-মুরিদের কাছ থেকে ‘সিলেটি’ ভন্ড পীর হাতিয়ে নিয়েছেন প্রায় চার কোটি টাকা।

শুধু তা-ই নয়, ক্ষমতাসীন দলের ব্যানারে থাকতে ৬০ লাখ টাকার বিনিময়ে বাগিয়ে নেন নির্মাণ শ্রমিক লীগের সহ-সভাপতির পদ। তার বি’রুদ্ধে আছে সমকা’মিতার অ’ভিযোগও।

তিনি আর কেউ নন, ভক্তরা চেনেন ‘পীর চিশতি’ নামে। প্রকৃত নাম আব্দুল মুত্তালিব চিশতি। তার পৈত্রিক বাড়ি সিলেট বিভাগের সুনামগঞ্জ জে’লার ধ’র্মপাশা উপজে’লায়। আস্তানা করেন ঢাকার তুরাগ থা’না এলাকায় । দেশজুড়ে ওরস-মাহফিল করে জুটিয়েছেন হাজারও মুরিদ। ওরসে তার পরনে থাকে ধবধবে সাদা পাঞ্জাবি-পায়জামা। বয়ানের পাশাপাশি পীরের লম্বা মোনাজাতে পাগল হন ভক্তরা। পীরবাদ ও চিশতিয়া ত্বরিকার আড়ালে নিজ ভক্তদেরই বলি দেন তিনি!

শুধু প্রতারণায় ক্ষান্ত থাকেননি পীর চিশতি, ধ’র্মীয় লেবাসের আড়ালে সুদর্শন যুবক ভক্তদের সঙ্গে মিলিত হতেন সমকা’মিতায়। অ’নৈতিক এ কাজে আগ্রহীদের নিয়ে দুটি পেজ পরিচালনা করতেন তিনি। পীরবাদ, চিশতিয়া ত্বরিকাকে কৌশল হিসেব ব্যবহার করে গত নয় বছর ধরে চলে তার প্রতারণা আর অ’নৈতিক কাজকর্ম। তবে শেষ রক্ষা মেলেনি।

শুধু নরসিংদীর একটি গ্রাম থেকে সাত ভক্তকে ফ্ল্যাট ও চাকরি পাইয়ে দেওয়ার কথা বলে পীর চিশতি হাতিয়ে নেন ৩০ লাখ টাকা। প্রতারণার পথ সুগম করতে নির্মাণ শ্রমিক লীগের উচ্চ পদও বাগিয়ে নেন। অ’ভিযোগ আছে, এ পদ পেতে তিনি ঢাকা মহানগর দক্ষিণ মহিলা লীগের কোষাধ্যক্ষ শেখ আখতারি বেগম পারুলের সঙ্গে অর্থ লেনদেন করেছেন। গোয়েন্দা পু’লিশের (ডিবি) জিজ্ঞাসাবাদে এমন তথ্য উঠে এসেছে। যদিও টাকা লেনদেনের বিষয়টি অস্বীকার করেছেন পারুল।

গত ২৭ সেপ্টেম্বর রাতে রাজধানীর তুরাগ থা’না এলাকার একটি বাসা থেকে ঢাকা মেট্রোপলিটন গোয়েন্দা পু’লিশের (ডিবি) হাতে গ্রে’প্তার হন পীর চিশতি। তার বি’রুদ্ধে দুটি মা’মলা দায়ের করা হয়। ডিবি গুলশান বিভাগ সূত্রে জানা যায়, গ্রে’প্তারের পরদিন কথিত পীর চিশতিকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১০ দিনের রি’মান্ডের আবেদন জানিয়ে ঢাকা মহানগর হাকিম আ’দালতে সোপর্দ করা হয়।

প্রতারণার জন্য রাজনৈতিক পদ পেতে ম’রিয়া ছিলেন আব্দুল মোত্তা’লেব চিশতি। ডিবির জিজ্ঞাসাবাদে তিনি ঢাকা মহানগর দক্ষিণ মহিলা লীগের কোষাধ্যক্ষ শেখ আক্তারি বেগম পারুলকে ৬০ লাখ টাকা দেওয়ার কথা স্বীকার করেছেন। এতে আওয়ামী নির্মাণ শ্রমিক লীগে সহ-সভাপতির পদ মেলে তার। আর এ পদকেও প্রতারণার কাজে ব্যবহার করতে থাকেন তিনি।

আ’দালত একটি মা’মলায় চিশতির এক দিনের রি’মান্ড মঞ্জুর করেন। পরে আরেক মা’মলায় আরও এক দিনের রি’মান্ড শেষে গত ৫ অক্টোবর আ’দালতের নির্দেশে কারাগারে প্রেরণ করা হয় তাকে। ডিবি পু’লিশের জিজ্ঞাসাবাদে নিজের প্রতারণা স’ম্পর্কে চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছেন পীর আব্দুল মোত্তা’লেব চিশতি।

কথিত পীর চিশতি যাদের সঙ্গে প্রতারণা করেছেন, তাদের অনেকেই যোগাযোগ করেছেন ডিবি কার্যালয়ে। তাদেরই একজন মহসিন মিয়া (ছদ্মনাম)। তার ভাষ্য, নরসিংদীর রায়পুরার এক ভক্ত তাকে জানান, তাদের গ্রামে পীর আব্দুল মোত্তালিব চিশতির শ্বশুরবাড়ি। সেখানে তার জলসাও ছিল। সেখানে কাউকে প্রাই’মা’রি চাকরি, কাউকে উত্তরা দিয়াবাড়ীতে বাস্তুহারাদের নামে তৈরি করা সরকারি ফ্ল্যাট পাইয়ে দেওয়ার কথা বলে হাতিয়ে নিয়েছেন ৩০ লাখ টাকা। কিন্তু তাদের কেউ না পেয়েছেন চাকরি, না ফ্ল্যাট। ধরনা দিয়েও তারা ফেরত পাচ্ছেন না টাকা।

অন্যদিকে, আশুলিয়ার একটি গার্মেন্টসে চাকরিরত এইচএসসি পাস করা সিলেটের এক তরুণী মুঠোফোনে জানান, এনএসআইয়ে (ওয়াচার পদে) চাকরির জন্য নির্মাণ শ্রমিক লীগের মেহেদি নামের এক নেতার মাধ্যমে এক লাখ ৮৬ হাজার টাকা দিয়েছিলেন। সেই টাকা গেছে পীর মোত্তালিব ও শেখ আক্তারি বেগম পারুলের কাছে। কিন্তু চাকরি না হওয়ায় গরু ও জমি বেচার টাকা ফেরত পেতে ধরনা দিচ্ছেন ডিবি কার্যালয়ে।

ডিবি পু’লিশের জিজ্ঞাসাবাদে পীর আব্দুল মোত্তালিব চিশতি জানান, প্রতারণায় হাতিয়ে নেওয়া টাকার ভাগ দিতে হতো ঢাকা মহানগর দক্ষিণ মহিলা লীগের কোষাধ্যক্ষ শেখ আক্তারি বেগম পারুলকে।

ঢাকা মেট্রোপলিটন গোয়েন্দা পু’লিশের উত্তর বিভাগের উপ-কমিশনার মশিউর রহমান বলেন, প্রতি সপ্তাহে মোত্তালিব চিশতির বাসায় বসত ওরস-মাহফিল, যেখানে জিকিরের হিড়িক পড়ত নর-নারীদের। লম্বা বয়ান-মোনাজাতে ভক্ত-আশেকানদের মধ্যে মুগ্ধতা ছড়াতেন তিনি। সর্বসাকুল্যে পবিত্র কোরআনের তিনটি সুরা জানা কথিত পীর আব্দুল মোত্তালিব ধান্দাবাজি আর প্রতারণায় রাজনীতিকেও ব্যবহার করতে ছাড়েননি।

তিনি বলেন, আওয়ামী নির্মাণ শ্রমিক লীগের সহ-সভাপতির পদ বাগিয়ে বিভিন্ন সরকারি দফতরে যাতায়াত করতেন পীর চিশতি। কর্মক’র্তাদের সঙ্গে সেলফি তুলতেন। তাদের নাম ভাঙিয়ে চাকরির সুপারিশের কথা বলে হাতিয়ে নেন অর্থ। তার যাতায়াত ছিল শিক্ষা মন্ত্রণালয়, ভূমি মন্ত্রণালয়, গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় এবং স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে। একদিকে তিনি পীরবাদের বয়ান করতেন, আরেকদিকে রাজনৈতিক প্রচার-প্রচারণার জন্য সফর করতেন বিভিন্ন জে’লা-উপজে’লায়।

তিনি আরও বলেন, পীরবাদ ও রাজনৈতিক পদবি ব্যবহার করে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে মাস্টার রোলে চাকরি দেওয়া, রাজউকের বিভিন্ন প্রকল্পে নির্মাণাধীন ফ্ল্যাট স্বল্পমূল্যে বরাদ্দ দেওয়া, দেশের বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদ ও পৌরসভা’র চেয়ারম্যান, মেম্বার ও ওয়ার্ড কাউন্সিলর অথবা মেয়র প্রার্থীকে নৌকা প্রতীক পাইয়ে দেওয়ার নামে একেকজনের কাছ থেকে হাতিয়ে নেন ছয় থেকে ১০ লাখ টাকা। সব মিলিয়ে শতাধিক ভক্ত-মুরিদের কাছ থেকে হাতিয়ে নেন প্রায় চার কোটি টাকা। এ অর্থ দিয়ে তিনি শ্বশুরবাড়ি নরসিংদীর শি’বপুরে কিনেছেন ২৫ কাঠা জমি, নিজ এলাকায় কিনেছেন ২০ কাঠা জমি।

ডিবি পু’লিশের এ কর্মক’র্তা জানান, অ’ভিযানে তার কাছ থেকে মোবাইল ফোন জ’ব্দ করা হয়। সেখানে দেখা যায়, ‘ঢাকা গে কমিউনিটি’ নামের দুটি ওয়েব পেজ চালাতেন তিনি। পেজ দুটির মাধ্যমে প্রায় ১০০ বয় ফ্রেন্ডের (প্রে’মিক) সঙ্গে চালাতেন অস্বাভাবিক ও বি’কৃত যৌ’নাচার। ভণ্ড এ পীরের বি’রুদ্ধে ইতোমধ্যে দুটি মা’মলা দায়ের হয়েছে। শতাধিক প্রতারিত ভুক্তভোগী লোকচক্ষু ও লজ্জায় অ’ভিযোগ করতে সাহস দেখাচ্ছেন না।

ডিএমপির সাইবার অ্যান্ড স্পেশাল ক্রা’ইম ও ডিবি-উত্তরের যুগ্ম পু’লিশ কমিশনার মোহাম্ম’দ হারুন অর রশীদ বলেন, না বুঝে বা জেনে অনেকে বিশ্বা’স করে অ’নৈতিকভাবে টাকা লেনদেন করে থাকেন। সবাইকে অনুরোধ করছি, সতর্ক করছি, অ’নৈতিক লেনদেন করবেন না। এমন প্রতারণায় ভুক্তভোগীরাও দায় এড়াতে পারেন না।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  • 101
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    101
    Shares

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: