সর্বশেষ আপডেট : ৩ ঘন্টা আগে
রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ২ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

‘আমি বীরপ্রতীককে চিনি না, ওকে ঘাড় ধরে বের করে দে’

সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজারে চিকিৎসা সেবা চাওয়ায় রোগীর এক স্বজনকে লা’ঞ্ছিতের অ’ভিযোগ উঠেছে উপজে’লা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডা. সিফাত আরা সাম’রিনের বি’রুদ্ধে।

ঘটনা সূত্রে জানা যায়, শনিবার ভোর ৫টায় উপজে’লার সুরমা ইউনিয়নের টেংরাটিলা (আজবপুর) গ্রামের বাসিন্দা বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মজিদ বীরপ্রতীক মৃ’ত্যুবরণ করেন। মৃ’ত্যুর খবর পেয়ে জ্ঞান হারান তার বড় ছে’লে মেজবাউল গণি সুমন। এ অবস্থায় তাকে সকাল সাড়ে ৯টার দিকে নিয়ে যাওয়া হয় দোয়ারাবাজার উপজে’লা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে।

এ সময় জরুরি বিভাগে কোনো ডাক্তার না পেয়ে হাসপাতা’লের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. সিফাত আরা সাম’রিনের কোয়ার্টারে নিয়ে যাওয়া হয় রোগীকে। এ সময় সেবার বদলে উল্টো রোগী ও রোগীর স্বজনদের তিরস্কার করে বের করে দেওয়ার অ’ভিযোগ পাওয়া গেছে। পরে জরুরি বিভাগের উপসহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার ডা. হাসান মাহমুদের কাছে সেবা নেন তারা।

রোগীর স্বজন সদ্য প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মজিদ বীরপ্রতীকের ভাগ্নি শাহানা আক্তার কা’ন্নাজ’ড়িত কণ্ঠে বলেন, সাম’রিন ম্যাডামের বাসায় গিয়ে বললাম হাসপাতা’লে কোনো ডাক্তার নাই, আমি বীরপ্রতীক আব্দুল মজিদের বড় ছে’লেকে নিয়ে এসেছি, উনার অবস্থা খুব খা’রাপ, এই মুহূর্তে একটু ট্রিটমেন্টের দরকার।

কথা শুনে ডাক্তার সিফাত আরা সাম’রিন আমাকে বলেন, বেরিয়ে যা, বেরিয়ে যা, এখানে কেন আসছিস? আমি বীরপ্রতীককে চিনি না।

এ সময় রুমে থাকা এক নারীকে তিনি বলেন, ওরে ঘাড় ধই’রা বের কই’রা দরজা দিয়ে দে, অফিস টাইম এখন না, বেরিয়ে যা, বেরিয়ে যা।

শাহানা আক্তার বলেন, এই ডাক্তারের খা’রাপ আচরণের সুষ্ঠু বিচার চাই আমি। এখানে ডাক্তাররা যেভাবে অবহেলা করে তা বলার মতো না।

রোগী মেজবাউল গণি বলেন, আমা’র আব্বা মা’রা যাওয়ার খবর শুনে আমি অ’সুস্থ হয়ে পড়লে ডাক্তারের শরণাপন্ন হই। ডাক্তার আমা’র ফুফাতো বোনের সঙ্গে খা’রাপ আচরণ করে তাকে ঘর থেকে বের করে দিতে আয়াকে নির্দেশ দেয়। তাই ঊর্ধ্বতন কর্মক’র্তাদের প্রতি আমা’র অনুরোধ, রোগীরা যাতে কোনো ডাক্তারের কাছ থেকে যেন এরকম কোনো ব্যবহার না পায়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে আরএমও ডা. সিফাত আরা সাম’রিন বলেন, আমি ৭ দিনের ছুটিতে আছি। আমা’র বাসার হাউজ কিপারকে নির্দেশ দেওয়া আছে বাসায় যাতে কাউকে ঢুকতে না দেওয়া হয়। সকালে আমা’র বেডরুমে একজন ঢুকে পড়লে আমি আমা’র হাউজ কিপারকে একটু বকাঝকা করেছি। রোগীর সঙ্গে খা’রাপ ব্যবহার করিনি।

উপজে’লা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা সফর আলী বলেন, চিকিৎসা সেবা চাইতে গিয়ে ডাক্তার কর্তৃক মুক্তিযোদ্ধা সন্তান লা’ঞ্ছিত হবার খবর শুনে ম’র্মাহত হয়েছি। আম’রা বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে জীবন বাজি রেখে যু’দ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছি। এই দেশে আমাদের সন্তানরা অযথা লা’ঞ্ছিত হবে তা হতে দেব না। প্রয়োজনে সব মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে আবার মাঠে নামব।

যোগাযোগ করা হলে সিভিল সার্জন ডা. শামস উদ্দিন বলেন, বিষয়টি ইতোমধ্যে জানতে পেরেছি। এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নিচ্ছি। সূত্র-যুগান্তর

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  • 3
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    3
    Shares
নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: