সর্বশেষ আপডেট : ৯ ঘন্টা আগে
শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

যুক্তরাস্ট্রে ব্যাংকে নগদ ৬০০ ডলার লেনদেন হলেই নজরদারি

সামনে কঠিন সময় আসছে। যারা নগদে বা ক্যাশে আয় করেন, তাদের জন্য ভ’য়াবহ বিপদ। যারা ক্যাশে স্টাফদের বেতন দেন, তাদের জন্যও বিপদ। যারা ব্যাংকে লেনদেন করেন, তাদের জন্য আরো বড় বিপদ। ব্যাংকে যারা বিভিন্ন প্রয়োজনে অর্থ লেনদেন করেন, তারা কঠিন সমস্যায় পড়তে যাচ্ছেন। কারণ এক বছরে মাত্র ৬০০ ডলার কেউ জমা দিলে বা তুললেই ওই ব্যাংক হিসাব স’ম্পর্কে সংশ্লিষ্ট ব্যাংক আইআরএসের কাছে রিপোর্ট করবে। ওই ব্যাংকের হিসাবধারী ব্যক্তি ও কোম্পানির ব্যাপারে এতে করে খুব সহ’জে আইআরএস তথ্য পেয়ে যাবে। ফলে যেসব ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান নগদে অর্থ লেনদেন করে থাকে, তাদের জন্য ভ’য়াবহ বিপদ আসছে। যদিও অনেকেই মনে করছেন, এতে আ’মেরিকানদের ব্যক্তিগত স্বাধীনতা ও গো’পনীয়তা ক্ষুণ্ন হবে। ব্যাংক কর্তৃপক্ষও বিষয়টি এখনই সহ’জে মেনে নিতে নারাজ। পাশাপাশি অনেক ব্যবসায়ীও এটি মেনে নিতে রাজি নন।

বাইডেন প্রশাসন চাইছে, এই নিয়ম করার মাধ্যমে যারা ট্যাক্স ফাঁকি দেন কিংবা তাদের আয়ের পুরোপুরি হিসাব দেন না, সেই সব ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে চিহ্নিত করা। করো’নার কারণে সরকারের কাক্সিক্ষত লক্ষ্যমাত্রা ট্যাক্স থেকে আয় হয়নি, পাশাপাশি এসব খাত থেকে নজরদারির মাধ্যমে কর ফাঁকি দেওয়া ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে চিহ্নিত করা সম্ভব হলে এতে বিপুল পরিমাণ আয়কর আদায় করা সম্ভব হবে। সেটি হলে সরকারের ঋণ পরিশোধ করা যেমন সহ’জতর হবে, পাশাপাশি সরকারের ব্যয়ভা’র বহনের খরচেরও একটি বড় অংশ আয় হবে।

করো’নার কারণে অনেক প্রতিষ্ঠান নগদে অর্থ লেনদেন করে থাকে বলে সরকারের কাছে তথ্য আসে। বিশেষ করে, যারা বিভিন্ন ধরনের লোন নিয়েছেন ও আয় দেখিয়েছেন কিন্তু তাদের ট্যাক্স ফাইলে সেই পরিমাণ অর্থের আয় প্রদর্শিত হয়নি, এমন তথ্য জানার পর বিষয়গুলো নজরে আসে। করো’নার সময়ে যেসব তথ্য দিয়ে মানুষ বেকার ভাতাসহ বিভিন্ন লোন ও গ্র্যান্ট নিয়েছেন, সেসব ক্ষেত্রেও কারো কারো তথ্য আইআরএসের কাছে থাকা আয়ের হিসাবের সাথে মেলেনি। যাদের আয়ের সাথে মেলেনি, ওই সব ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের আগামীতে বিপদে পড়ার আশ’ঙ্কা রয়েছে।

সূত্র জানায়, আইআরএস এখন উচ্চবিত্ত থেকে শুরু করে যারাই ট্যাক্স দিচ্ছেন না বা সমুদয় আয়ের ট্যাক্স দেন না, এমন ব্যক্তিদের চিহ্নিত করে কর আদায় করার চেষ্টা করবে। বর্তমানে ১০ হাজার ডলার পর্যন্ত কেউ ব্যাংক হিসাবে অর্থ লেনদেন করলে আইআরএসকে ব্যাংক কর্তৃপক্ষকে জানানোর বাধ্যবাধকতা ছিল না। এর বেশি হলে রিপোর্ট করতে হতো। কিন্তু এখন সেটি ১০ হাজার ডলার লেনদেন নয়, মাত্র ৬০০ ডলার ব্যাংক হিসাবে নগদে লেনদেন হলেই সেই লেনদেনের বিষয় ও ব্যাংক হিসাব ব্যাংকধারীর ব্যক্তিগত ও বিজনেস হিসাবের ব্যাপারে আইআরএস তথ্য নেবে এবং তা মনিটরিং করবে। এই খবরে অনেকেই উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠার মধ্যে রয়েছেন।

জানা গেছে, এটি এখনো প্রস্তাবের পর্যায়ে রয়েছে। এই প্রস্তাব পাস হলে তা ২০২৩ সাল থেকে কার্যকর হতে পারে। এ ধরনের ঘোষণায় নিম্নবিত্তের মানুষেরা অনেকটাই আতঙ্কিত। কারণ অনেকেই এক ব্যাংক থেকে অর্থ তুলে এনে আরেক ব্যাংকে রাখেন অথবা নগদে তুলে এনে বাসা ভাড়া দেন বা অন্যান্য খরচ করেন। ফলে যারা ব্যাংক অ্যাকাউন্ট সকল প্রকার অর্থ লেনদেনের জন্য ব্যবহার করেন, তারা ভীত। তারা বিভিন্ন সিপিএ এবং এনরোল এজেন্টের কাছে ফোন করছেন, কথা বলছেন। ভ’য়ের কথা বলার পাশাপাশি তারা এটাও জানতে চাইছেন, ব্যাংকে এখন যে অর্থ আছে, তা তুলে ফেলবেন কি না? এ বিষয়ে এক এনরোল এজেন্ট বলেছেন, তিনি তার কাস্টমা’র ও গ্রাহকদের এখনই ব্যাংক থেকে অর্থ তোলার ব্যাপারে কোনো ধরনের পরাম’র্শ দিচ্ছেন না। তিনি বলছেন, এই প্রস্তাব পাস হলে যখন কার্যকর হবে তখন থেকে ৬০০ ডলার নগদে লেনদেন হলে সেটি রিপোর্ট হবে। তাই এখনই এ নিয়ে উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  • 4.1K
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    4.1K
    Shares

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: