সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ২ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

স্বামী হ’ত্যায় স্ত্রী’র যাব’জ্জীবন

বহুল আ’লোচিত ব্যবসায়ী কায়সার মাহমুদ হ’ত্যা মা’মলায় তার স্ত্রী’র যাব’জ্জীবন কারাদ’ণ্ড দিয়েছেন আ’দালত। এ সময় তাকে ৫০ হাজার টাকা জ’রিমানা ও অনাদায়ে এক বছর সশ্রম কারাদ’ণ্ড দেওয়া হয়।

বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) দুপুরে এ রায় ঘোষণা করেন জে’লা ও দায়রা জজ আ’দালতের বিচারক ড. জেবুন নেছা।

গত সোমবার যু’ক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে আজ এ রায়ের দিন ধার্য করেন আ’দালত। রায় প্রদানের সময় একমাত্র আ’সামি নি’হতের স্ত্রী’ শাহনাজ আক্তার নাদিয়া আ’দালতে উপস্থিত ছিলেন। এর আগে গত ১৫ সেপ্টেম্বর এ মা’মলার সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী হাফেজ আহম্ম’দ জানান, এ মা’মলায় যু’ক্তিতর্ক উপস্থাপনের সময় আ’সামিপক্ষে ছিলেন আইনজীবী আহসান কবির বেঙ্গল।

গত ১৫ সেপ্টেম্বর কায়সার হ’ত্যা মা’মলার প্রথম ত’দন্তকারী কর্মক’র্তা মো. আলমগীর হোসেন আ’দালতে সাক্ষ্য দেন। এর আগে গত ১৪ ফেব্রুয়ারি এ মা’মলার দ্বিতীয় ত’দন্তকারী কর্মক’র্তা এসআই মো. কা’ম’রুল ইস’লাম খান ও লা’শ বহনকারী কনস্টেবল আবদুল মতিন সাক্ষ্য দেন।

এ মা’মলার বাদী প্রফেসর আবুল খায়ের, ম্যাজিস্ট্রেট ও ত’দন্তকারী কর্মক’র্তাসহ ১৭ জনের সাক্ষ্য নেওয়া হয়। কায়সার হ’ত্যা মা’মলায় ২৯ জনকে সাক্ষী করা হয়েছে।

জে’লা ও দায়রা জজ আ’দালতের বেঞ্চ সহকারী মো. আলতাফ হোসেন বলেন, ২০১৩ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর রামপুর ভূঁইয়াবাড়ি সড়কস্থ নজির সওদাগরবাড়ির প্রফেসর আবুল খায়েরের ছে’লে কায়সার মাহমুদের সঙ্গে আনন্দপুর ইউনিয়নের বন্দুয়া দৌলতপুর গ্রামের আবুল কাশেমের মে’য়ে শাহনাজ নাদিয়ার বিয়ে হয়।

বিয়ের কয়েক মাস পর তাদের মধ্যে মনোমালিন্য দেখা দেয়। ২০১৪ সালের ২৫ মা’র্চ শাহনাজ নাদিয়া কুমিল্লা বাসস্ট্যান্ডসংলগ্ন লতিফ টাওয়ারে তার বাবার বাসায় বেড়াতে যান। ১১ এপ্রিল বিকালে চর্ম’রোগ বিশেষজ্ঞ ডাক্তার দেখানোর জন্য কায়সারদের বাসায় আসেন। কাওসারসহ নাদিয়া ডাক্তার দেখানোর জন্য বাসা থেকে বের হন।

পরে আর কাওসারের বাসায় ফেরা হয়নি। ওই দিন রাতে ফা’লাহিয়া মাদ্রাসা’সংলগ্ন কবরস্থানের পাশে রাত সাড়ে ৯টার দিকে কাওসারকে দুর্বৃত্তরা উপর্যুপরি ছু’রির আ’ঘাত করে পালিয়ে যায়। তখন তার সঙ্গে স্ত্রী’ নাদিয়াও ছিলেন।

পরে তাকে উ’দ্ধার করে ফেনী জেনারেল হাসপাতা’লে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃ’ত ঘোষণা করেন। ময়নাত’দন্ত শেষে ১২ এপ্রিল দুপুরে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়। ওই দিন রাতে তার বাবা প্রফেসর আবুল খায়ের বাদী হয়ে শাহনাজ নাদিয়া ও তাদের বাড়ির মো. হারুনকে আ’সামি করে মা’মলা করেন।

মা’মলা ত’দন্তকারী কর্মক’র্তা এসআই মো. আলমগীর হোসেন বাসা থেকে শাহনাজ নাদিয়াকে গ্রে’প্তার করে ১৩ এপ্রিল বিকালে আ’দালতে ১৬৪ ধারা জবানব’ন্দি নেয়। শাহনাজ নাদিয়া ১৬৪ ধারা জবানব’ন্দিতে কায়সারকে হ’ত্যার কথা স্বীকার করেন তিনি। তিনি কায়সারকে একাই হ’ত্যা করেছেন বলে আ’দালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানব’ন্দি দেন।

মা’মলা ত’দন্তকারী কর্মক’র্তা এসআই মো. আলমগীর হোসেন চাঁদপুর বদলি হওয়াতে ২০১৪ সালের ৭ জুন মা’মলা ত’দন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয় এসআই কা’ম’রুল ইস’লামকে। এ মা’মলার অ’পর আ’সামি বন্দুয়া দৌলতপুর গ্রামের মৃ’ত মো. হাফেজের ছে’লে মো. হারুন একই বছর আগস্ট মাসে দুর্বৃত্তদের হাতে খু’ন হয়।

ত’দন্তকারী কর্মক’র্তা মো. হারুন ও নাদিয়াকে অ’ভিযু’ক্ত করে ২০১৫ সালের ৩০ অক্টোবর আ’দালতে অ’ভিযোগপত্র প্রদান করে। বাদী প্রফেসর আবুল খায়ের আ’দালতে আ’পত্তি জানালে পুনঃত’দন্ত করার নির্দেশ দেন আ’দালত। পরে ত’দন্তকারী কর্মক’র্তা এসআই কা’ম’রুল ইস’লাম নাদিয়াকে অ’ভিযু’ক্ত করে আ’দালতে অ’ভিযোগপত্র প্রদান করেন।

আ’দালতের বেঞ্চ সহকারী মো. আলতাফ হোসেন জানান, গত ২৪ মা’র্চ সাক্ষ্যগ্রহণের শেষ হওয়ার তারিখ ধার্য করে আ’দালত। করো’নার কারণে আ’দালতের কার্যক্রম বন্ধ থাকায় গত ১৫ সেপ্টেম্বর এ মা’মলার সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  • 3
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    3
    Shares
নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: