সর্বশেষ আপডেট : ১ মিনিট ৩৯ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১১ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

সেজান জুস কারখানা থেকে আরও হাড়-কঙ্কাল উদ্ধার

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে হাশেম ফুড অ্যান্ড বেভা’রেজ কারখানার ভেতরে তল্লা’শি চালিয়ে আরও একজনের মা’থার খুলিসহ পুরো শরীরের কঙ্কাল ও হাঁটুর নিচের অংশের হাড় উ’দ্ধার করা করেছে পু’লিশের অ’প’রাধ ত’দন্ত বিভাগ (সিআইডি)।

বৃহস্পতিবার (৯ সেপ্টেম্বর) বেলা ১১টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত পুড়ে যাওয়া ওই ভবনের চারতলায় সিআইডির নেতৃত্বে ফায়ার সার্ভিস ও থা’না-পু’লিশের সহায়তায় তল্লা’শি অ’ভিযান চালানো হয়। মঙ্গলবারও অ’ভিযান চালিয়ে ওই ভবনের চারতলা থেকে দুটি মা’থার খুলি ও হাড়ের অংশ উ’দ্ধার করেছিল সিআইডি। এই হাড়গুলো উ’দ্ধারের পর ডিএনএ টেস্টের জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতা’লে পাঠানো হয়েছে।

সিআইডির নারায়ণগঞ্জ অফিসের সহকারী পু’লিশ সুপার মো. হারুন অর রশিদ জানান, সেজান জুস কারখানার শ্রমিক মহিউদ্দিন, সাজ্জাদ ও লাবনির পরিবারের অ’ভিভাবকদের অ’ভিযোগ কারখানায় কর্ম’রত ওই তিন শ্রমিক আ’গুন লাগার পর থেকে নিখোঁজ রয়েছেন। ভবনে যাদের ম’রদেহ পাওয়া গিয়েছিল, তাদের মধ্যে এই তিনজনের ম’রদেহ শনাক্ত হয়নি। তাদের এই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে সিআইডি ফায়ার সার্ভিসকে চিঠি দেয়। মঙ্গলবার সকাল থেকে ফায়ার সার্ভিসের একটি টিম এবং রূপগঞ্জ থা’না পু’লিশের সহায়তায় ভবনটিতে অ’ভিযান চালিয়ে তল্লা’শি করা হয়। সেদিন ভবনের চতুর্থ তলা থেকে তিনটি হাড়ের অংশ উ’দ্ধার করা হয়।

সহকারী পু’লিশ সুপার আরও জানান, বৃহস্পতিবার দ্বিতীয় দফায় ওই ভবনের চারতলায় তল্লা’শি চালিয়ে মা’থার খুলিসহ পুরো শরীরের কঙ্কাল ও হাঁটুর নিচের অংশের হাড় উ’দ্ধার করা হয়েছে। যে স্থান থেকে এসব উ’দ্ধার করা হয়েছে, ধারণা করা হচ্ছে নি’হতরা ওই রুমে আশ্রয় নিয়েছিলেন। কিন্তু সেখান থেকে বের হতে পারেননি। রুমটি মূলত নারীদের পোশাক বদলানোর রুম।

তিনি বলেন, এগুলো এক ব্যক্তির কিনা কিংবা একাধিক ব্যক্তির, এমনকি নারী না, পুরুষের কিছুই বলা যাচ্ছে না। উ’দ্ধারকৃত দেহাবশেষ ডিএনএ পরীক্ষার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতা’লে পাঠানো হয়েছে। ডিএনএ রিপোর্টের পরই বিস্তারিত বলা যাবে।

গত ৮ জুলাই বিকেলে রূপগঞ্জ উপজে’লার কর্ণগোপ এলাকায় হাসেম ফুড অ্যান্ড বেভা’রেজ লিমিটেডের সেজান জুস কারখানার ১৪ নম্বর গুদামের ৬তলা ভবনে অ’গ্নিকা’ণ্ডের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় তাৎক্ষণিকভাবে ভবন থেকে লাফিয়ে পরে ৩ জন মা’রা যান এবং ১০ জন আ’হত হন। প্রায় ১৯ ঘণ্টা পর ফায়ার সার্ভিস আ’গুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

পরদিন বিকেলে আ’গুন নিভিয়ে ফেলার পর ৪৮ জনের পোড়া ম’রদেহ উ’দ্ধার করে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা। ঘটনার পর ৪ আগস্ট ডিএনএ পরীক্ষা শেষে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতা’লের ম’র্গ থেকে প্রথমে ২৬ জন ও পরবর্তীতে ২১ জনের পোড়া ম’রদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

এ ঘটনায় রূপগঞ্জ থা’নাধীন ভুলতা পু’লিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক নাজিম উদ্দিন বাদী হয়ে কারখানার মালিক আবুল হাসেমসহ ৮ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অ’জ্ঞাত আরও কয়েকজনকে আ’সামি করে রূপগঞ্জ থা’নায় মা’মলা দায়ের করেন। পরবর্তীতে মা’মলা’টি ত’দন্তভা’র সিআইডিতে হস্তান্তর করা হয়।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  • 39
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    39
    Shares
নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: