সর্বশেষ আপডেট : ৪ ঘন্টা আগে
রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১১ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

১৮’শ স্প্রিন্টারের তীব্র যন্ত্র’না নিয়ে বেঁচে আছেন মাহবুবা পারভীন

আজ ভ’য়াল ২১ আগস্ট। এরই মধ্যে কে’টে গেছে ১৭ টি বছর, ইতিহাসের এ দিনে ২০০৪ সালের ২১ শে আগস্ট ঢাকায় আওয়ামী লীগের সন্ত্রাস বিরোধী জনসভায় ঘটে গ্রেনেড হা’মলার মতো বর্বরোচিত ঘটনা। ইতিহাসের নেক্কারজনক সে ঘটনায় তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেত্রী ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সহ ৩’শতাধিক নেতা-কর্মী গুরুতর আ’হত হন, যাদের অনেকেই বেঁচে আছেন, কা’টাচ্ছেন দূর্বিসহ যন্ত্র’নাময় জীবন। সে ঘটনায় আওয়ামী লীগের নেত্রী আইভি রহমানসহ মা’রা যান ২৪ জন।

সেদিন অনেকের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন তৎকালীন ঢাকা জে’লা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক সাভা’রের মাহবুবা পারভীন। ভ’য়াবহ সে গ্রেনেড হা’মলায় আইভি রহমানের পাশে যে তিনজন নারী র’ক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে ছিলেন তাদেরই একজন পারভীন। র’ক্তাক্ত সংজ্ঞাহীন মাহবুবা পারভীনকে মৃ’ত ভেবে সেদিন লা’শ ঘরে ফেলে রাখা হয়েছিলো। সেখানে ৬ ঘন্টা পর তৎকালীন আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় নেতা আশিষ কুমা’র মজুম’দার নি’হতদের লা’শ শনাক্ত করতে গিয়ে মাহবুবা পারভীনকে জীবিত দেখতে পান।

এরপর তাকে দ্রæত হাসপাতা’লে নেয়া হয়। চিকিৎসা শুরুর ৭২ ঘন্টা পর তার জ্ঞান ফিরে এলেও দেশের চিকিৎসায় ভালো না হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য আওয়ামী দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা তখন মাহবুবা পারভীনকে কোলকাতার পিয়ারলেস হাসপাতা’লে পাঠান। সেসময় হাসপাতাল থেকেই জানানো হয় গ্রেনেড হা’মলায় আ’হত মাহবুবার শরীরে ১৮’শ স্প্রিন্টার মা’থা থেকে পায়ের পাতা পর্যন্ত জালের মতো ছড়িয়ে রয়েছে। চিকিৎসা শেষে ৩ মাস পর সুস্থ হয়ে দেশে ফিরে এলেও মাহবুবার শরীরে রয়ে যায় সেসব স্প্রিন্টার। সেসব স্প্রিন্টারের মধ্যে মা’থার স্প্রিন্টারগুলো তাকে প্রতিনিয়ত যন্ত্র’না দিয়ে যাচ্ছে। স্প্রিন্টারের যন্ত্র’না বেড়ে গেলে তিনি পাগলের মতো হয়ে যান, প্রতিরাতেই তাকে প্রায় জেগে কা’টাতে হয়। এর মাঝে সাভা’রের এনাম মেডিকেল কলেজ এন্ড হাসপাতা’লে অ’পারেশন করিয়ে মা’থা থেকে দুটি স্প্রিন্টার বের করা হয়। কলিকাতার পিয়ারলেস হাসপাতা’লে চিকিৎসাকালীন সময়ে ডাক্তার উন্নত চিকিৎসার জন্য তথন ব্যাংকক যাবার কথা জানিয়ে দিলেও তা আর হয়ে উঠেনি মাহবুবার।

এরি মধ্যে ২০১৬ সালের ১৫ নভেম্বর জীবন সঙ্গী ফ্লাইট সার্জেন্ট(অব:) এম এ মাসুদ স্টোক করে মা’রা যান। বর্তমানে দু’সন্তানের মধ্যে বড় ছে’লে আসিফ পারভেজ একটি বেসরকারী ব্যাংকে চাকুরী করছেন এবং ছোট ছে’লে রোওশাদ যোবায়ের পরিবার নিয়ে ডেনমা’র্কে পিএইচডি করছেন।

অদম্য মনোবল আর প্রচন্ড ইচ্ছে শক্তি নিয়ে বেঁচে থাকা মাহাবুবার প্রতিটি সময় যন্ত্র’নাময় ক’ষ্ট’কর হলেও বাংলার মাটিতে দেখে যেতে চান হা’মলাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শা’স্তি। মাহবুবা পারভীন আবেগ আপ্লুত কন্ঠে জানান, যাদের ষড়যন্ত্রে আজ তার জীবন যন্ত্র’নাময়, যাদের ষড়যন্ত্রে নিভে গেছে ২৪টি প্রা’ণ, যাদের ষড়যন্ত্রে তার মতো ৩’শতাধিক আ’হতের জীবনে স্বাভাবিক সুস্থ ভাবে বেঁচে থাকা অসম্ভব হয়ে গেছে, যাদের কারণে শরীরের স্প্রিন্টারের যন্ত্র’নায় কাতর থাকেন, রাতের ঘুম হারাম হয়ে গেছে সেইসব স’ন্ত্রাসীদের শা’স্তির দেখে যেতে চাই।

সেই স্মৃ’তিময় জীবনের ফ্রেমে ধ’রা ছবি গুলোকেই সঙ্গী করে অ’সুস্থ মাহবুবা বেঁচে আছেন। চার দেয়ালের ভিতরেই যেন জীবন থেমে গেছে মাহবুবার। বসে বসে স্মৃ’তির ফ্রেম দেখা, বই পড়া আর লা’ঠিতে ভর করে ঘরের ভিতর পায়চারী করেই সময় কাটে তার। এসবের মাঝেই দূর্বিসহ এক জীবনের যন্ত্র’নাদায়ক প্রতিটি মুহুর্ত কাটছে স্বর্প্ন পূরণের আশায়, দেখে যেতে চান ঘা’তক খু’নিদের বিচার। তাদের সকলের ফাঁ’সি দাবি করেন তিনি। তিনি তারেক জিয়া, খালেদা জিয়া সহ চক্রান্তে লিপ্ত সকলের ফাঁ’সির দাবি জানান। নিজের মৃ’ত্যুর পূর্বে তিনি বিচার দেখে যেতে চান অ’প’রাধীদের।

মাহবুবা পারভীন জানান, দূর্বিসহ সেদিনের কথা কিছুতেই ভুলতে পারেননি তিনি। আজও যেন চোখ বন্ধ করলেই ভেসে উঠে সেই ভ’য়াল দিনটির কথা। ঘুমের ঘরে আজও ভ’য়ে ফুপরে কেঁদে উঠেন, সেদিনের গ্রেনেড হা’মলার বিকট শব্দ, মানুষের ছোটা-ছুটি, র’ক্তাক্ত চারিধার, নিজের জ্ঞান হারিয়ে মাটিতে লুটে পড়ে যাবার পূর্বের সকল স্মৃ’তি ভ’য়ঙ্কর রুপে চোখে ভেসে উঠে চোখের পর্দায়। দূর্বিসহ সেই স্মৃ’তি ভুলে যেতে চাইলেও তা যেন তার পিছু ছাড়ছে না।

মাহবুবা পারভীন জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সার্বিক সহযোগিতায় তিনি বেঁচে আছেন। প্রতিমাসে চিকিৎসা খরচের জন্য ১০’হাজার টাকা দিচ্ছেন। এককালীন ১০লক্ষ টাকা সঞ্চয় পত্র করে দিয়েছেন। যে টাকা তিনি পান তা দিয়ে সংসার খরচ চালান। ইতিমধ্যে বসবাস করার জন্য ১৪’শত স্কয়ার ফিটের একটি ফ্ল্যাট পেয়েছেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রীর সহযোগিতার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে মাহবুবা জানান, মানবতার জননী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্নেহ ও ভালোবাসা নিয়েই বেঁচে আছেন। একসময় যাদের সাথে ঢাকা ও সাভা’রে রাজনীতি করেছেন, রাজপথে ছিলেন, মিছিল-মিটিং করেছেন তারা কেউ তার খবর রাখেন না। দেখলেও মুখ ফিরিয়ে নেন।

টগবগে উদ্যোমী মাহবুবা আজ অ’সুস্থ। বেঁচে থাকা জীবনের শেষ দিনগুলোতে একটু শান্তিতে ঘুমুতে চান, স্প্রিন্টারের তীব্র যন্ত্র’নায় পাগলপ্রায় মাহবুবা প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার সুদৃষ্টি কা’মনা করেছেন যেন তাকে উন্নত চিকিৎসার সু-ব্যবস্থা করেন। সুস্থ হয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরবেন এমনটাই প্রত্যাশা মাহবুবা পারভীনের।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  • 28
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    28
    Shares
নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: