সর্বশেষ আপডেট : ৫৯ মিনিট ১০ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

আফগানিস্তানে বেড়ে গেছে বোরকা বিক্রি, দাম বেড়েছে কয়েক গুণ

আ’ফগা’নিস্তানে ক্ষমতায় বসেছে তা’লেবান। এক মাসের বেশি সময় ধরে চলছে তাদের এই উত্থান। ক্ষমতায় বসার সঙ্গে সঙ্গে শান্তিপূর্ণ পরিবেশের প্রতিশ্রুতি দিলেও কয়েক যুগ আগে তা’লেবান শাসনের সময়টা ভুলতে পারছে না মানুষ। ইস’লামি শাসনের নামে কঠোর আইনে দেশ পরিচালনা করেছিল তারা।

গণমাধ্যম গার্ডিয়ানের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, তা’লেবানের কাবুল অ’ভিযানের খবরেই বেড়ে গেছে বোরকা বিক্রি। কারণ, আগের তা’লেবান শাসনের সময় বোরকা পরা ছিল বাধ্যতামূলক। ২০০১ সালে মা’র্কিন অ’ভিযানে তা’লেবান সরকারের পতন হয়। এরপর আ’ফগা’ন নারীদের বাধ্যতামূলক বোরকা পরার বিষয়টি উঠিয়ে দেওয়া হয়। তবে ধ’র্মীয় ও ঐতিহ্যগত কারণে অনেকেই বোরকা পরতেন। আবার যাঁরা চাইতেন, তাঁরা আধুনিক ও নিজের পছন্দের পোশাক পরতে পারতেন।

তবে আবার তা’লেবানের হাতে গেছে ক্ষমতা। আ’ফগা’নিস্তান তা’লেবানদের দখলে যাওয়ায় অবধারিতভাবে নারীদের স্বাধীনতা হ’রণ হবে। আ’ফগা’ন নারীরা তা জানেন। আর জানেন বলেই কাবুল হু হু করে বেড়েছে বোরকার ব্যবসা। দোকানিরা দ্য গার্ডিয়ানকে জানান, এত দিন রাজধানীর আশপাশের নারীরা দলে দলে বোরকা কিনেছেন। এখন কাবুলের নারীরা বোরকা কিনছেন।

ক্রেতারা জানাচ্ছেন, যে বোরকা কিছুদিন আগেও ২০০ আ’ফগা’নি মুদ্রায় বিক্রি হচ্ছিল, তা এখন ২ থেকে ৩ হাজার আ’ফগা’ন মুদ্রায় বিক্রি হচ্ছে।

আয়লা নামের এক নারী জানান, কাবুলে নারীদের মধ্যে ভ’য় যেমন বেড়েছে, রোবকার দামও তেমন বেড়েছে।

ম’রিয়ম নামের এক নারী জানান, তাঁর স্বামী তাঁকে বোরকা নিতে বাধ্য করেছেন। তিনি বলেন, ‘এখন যে ধরনের পোশাক পরি, তা পরিবর্তন করতে বলেছেন আমা’র স্বামী। বোরকা পরা শুরু করতে বলেছেন, যাতে আমি বাইরে থাকলে তা’লেবান আমা’র প্রতি মনোযোগ না দেয়।’

নীল রঙের বোরকা দিয়ে বিশ্বে আ’ফগা’ন নারীদের চিহ্নিত করা হয়। কিছুটা ভা’রী কাপড়ে তৈরি এই বোরকা মা’থা থেকে পা পর্যন্ত সম্পূর্ণ ঢেকে রাখে। চোখের সামনে থাকে নেটের কাপড়। এখন আ’ফগা’নিস্তানে বোরকার বিক্রি এতটা বেড়ে গেছে যে দোকানে যেভাবে সারি সারি বোরকা ঝুলিয়ে রাখা হচ্ছে, তাতে মনে হচ্ছে, সেখানে ভা’রী পর্দা লাগানো হয়েছে।

১৯৯৬ সালে প্রেসিডেন্ট বুরহানুদ্দিন রব্বানির সরকারকে উৎখাত করে রাজধানী কাবুল দখল করে তা’লেবান। ক্ষমতায় আসার পর কঠোর ইস’লামি শরিয়া আইনের প্রবর্তন করে তারা। ১৯৯৮ সালের মধ্যে আ’ফগা’নিস্তানের ৯০ শতাংশ এলাকা তা’লেবানের নিয়ন্ত্রণে চলে যায়। তা’লেবানের শাসনে দেশটির সাধারণ মানুষের জীবন অনেকটা সংকুচিত হয়ে পড়ে। দিন দিন নতুন নতুন বিধিনিষেধ যু’ক্ত হতে থাকে। মু’সলিম পুরুষদের দাড়ি রাখা এবং নারীদের বোরকা পরা বাধ্যতামূলক করা হয়। টেলিভিশন দেখা, গান শোনা ও সিনেমা দেখা নিষিদ্ধ হয়। ১০ বছর বয়সী মে’য়েদের পড়ালেখা নিষিদ্ধ করে তা’লেবান সরকার। তা’লেবানের শাসনামলে অনেক নারীকে বাইরে বের হওয়া ও বোরকা না পরার জন্য নি’র্যা’তনের শিকার হতে হয়েছে, এমন অ’ভিযোগও রয়েছে। আবার নতুন করে তা’লেবান সরকার ক্ষমতায় এল। এ অবস্থায় অ’তীতের সেই ভীতি তাড়া করছে নারীদের মনে।

অবশ্য গতকাল রোববার কাবুল দখলের পর তা’লেবান মুখপাত্র বলেন, নারীরা ঘরের বাইরে যেতে পারবে। কাজ ও শিক্ষা কার্যক্রমে অংশ নিতে পারবে।

তবে ইতিমধ্যে তা’লেবান নিয়ন্ত্রণে থাকা কয়েকটি প্রদেশে চাকরিজীবী নারীদের চাকরি থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। কিছু জায়গায় নারীদের বোরকা পরতে বাধ্য করা হয়েছে, এমন খবরও পাওয়া গেছে। গত সপ্তাহে হেরাত শহর তা’লেবান বাহিনীর দখলে যাওয়ার পর অনেক বয়স্ক নারীই পরিবারের ছোট মে’য়েদের জন্য বোরকা কিনতে বের হন।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  • 191
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    191
    Shares
নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: