সর্বশেষ আপডেট : ২৯ মিনিট ৫৯ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

ইউরোপে আটক ৪, অবৈধদের ফেরাতে চাপ

গলাকা’টা পাসপোর্ট নিয়ে ইউরোপে ঢুকতে গিয়ে ভেনিসের একটি এয়ারপোর্টে ধ’রা পড়েছেন ৪ বাংলাদেশি। তাদের এক বছরের কারাদ’ণ্ড দিয়ে স্থানীয় জে’লহাজতে পাঠানো হয়েছে। একটি সংঘবদ্ধ দলে ৬ বাংলাদেশি ভু’য়া পাসপোর্টে ইউরোপ যান। জে’লে পাঠানো ওই চার বাংলাদেশি সেই দলেরই সদস্য। অ’পর দু’জনের গ্রীসের ভু’য়া রেসিডেন্ট কার্ড থাকায় মুচলেকা দিয়ে আপাতত মুক্তি পেয়েছেন বলে জানা গেছে। হাতে লেখা পাসপোর্টের জামানায় ছবি পাল্টে একজনের পাসপোর্ট নিয়ে অন্যজন বিদেশে পাড়ি দিতে পারতেন। এটাকে গলাকা’টা পাসপোর্ট আখ্যা দিয়ে বহুবার বাংলাদেশ বিশ্ব মিডিয়ার শিরোনাম হয়েছে। কিন্তু মেশিন রিডেবল পাসপোর্টের যুগে ‘গলাকা’টা পাসপোর্ট’ নিয়ে কী’ভাবে তারা ইমিগ্রেশন পার হলেন তা ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষকে বিস্মিত করেছে- এমনটাই বলছিলেন ইতালির বাংলাদেশ দূতাবাসের এক কর্মক’র্তা।

এ নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে ইতালীয় সংবাদ মাধ্যম ভেনেজিয়াটুডে।
এতে বলা হয়, ইতালির সীমান্তরক্ষাকারী বাহিনী ৪ বাঙালি নাগরিককে ভু’য়া নথিপত্র প্রদানের কারণে গ্রে’প্তার করেছে। একইসঙ্গে আরও দুজনের কাছে গ্রীসের ভু’য়া বসবাসের অনুমোদন পাওয়া গেছে। রিপোর্ট বলছে, গ্রীষ্মকালীন সময়ে যখন বিমানবন্দরে যাত্রীদের অ’ত্যধিক চাপ দেখা যায় তখন সে সুযোগ নেয়ার চেষ্টা করেছেন ওই বাঙালিরা- এমনটাই জানিয়েছে ইতালির পু’লিশ। শেনজেনভুক্ত দেশগুলো থেকে আসা যাত্রীদের ভেরিফিকেশনের সময় ৬ বিদেশিকে শনাক্ত করা হয়- যাদের সবাই বাঙালি পুরুষ। তারা মিথ্যা নথিপত্র দেখিয়ে আন্তর্জাতিক সীমায় প্রবেশের চেষ্টা করছিল। ৪ জনকে গ্রে’প্তার করা হয়েছে কারণ তাদের কাছে নকল বা জাল পাসপোর্ট ছিল। অ’পর দুজনের পাসপোর্ট ঠিক থাকলেও তারা ভু’য়া রেসিডেন্সি কার্ড দেখিয়েছিলেন। তাদের বি’রুদ্ধে এরইমধ্যে অ’ভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। প্রথম ৪ জনকে তাৎক্ষণিকভাবে এক বছরের কারাদ’ণ্ড দেয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত ২৭ দেশে অ’বৈধভাবে থাকা বাংলাদেশিদের ফেরাতে ফের চাপে পড়েছে ঢাকা। ২০২০ সালে ইইউ’র সঙ্গে তাদের ফেরানো সংক্রান্ত এসওপি কার্যকরের পরও অ’বৈধ অ’ভিবাসীদের ফেরানোর বিষয়ে পর্যাপ্ত সহযোগিতা না করার কারণে ইউরোপীয় কমিশন বাংলাদেশিদের জন্য স্বল্পকালীন ভিসার বিষয়ে ‘সাময়িক বিধিনিষেধমূলক ব্যবস্থা’র প্রস্তাব করেছে। প্রস্তাবটি গত মাসে করা হয়েছে। বাংলাদেশ ছাড়া আরও দুটি দেশের ব্যাপারে এমন প্রস্তাব আনা হয়েছে। দেশ দুটি হলো ই’রাক এবং গাম্বিয়া। ইউরোপীয় কমিশনের বরাতে ‘শেনজেন ভিসা ইনফো ডট’কম’ জানিয়েছে, ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারিতে সংশোধিত ভিসা কোড কার্যকর হওয়ার পর থেকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের নতুন স্বল্পকালীন ভিসা নীতি অংশীদার দেশগুলোর সহযোগিতার সঙ্গে নিবিড়ভাবে যু’ক্ত। এই সহযোগিতা বলতে বুঝায়- অংশীদার দেশগুলো তাদের সেসব নাগরিকদের ফিরিয়ে নেবে, যাদের ইইউ অঞ্চলে থাকার অধিকার নেই।

প্রস্তাবে জো’র দিয়ে বলা হয়, প্রস্তাবিত বিধিনিষেধগুলো সেসব আবেদনকারীদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়- যারা ইইউ নাগরিকদের পরিবারের সদস্য অথবা অন্যান্য ব্যক্তি যাদের ইইউতে অবাধ চলাফেরার অনুমতি রয়েছে। উল্লেখ্য, ইউরোপীয় কমিশনের এমন প্রস্তাবের পর এখন ইউরোপীয় কাউন্সিলকে প্রস্তাবটি যাচাই বাছাই করে সেটি গ্রহণের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। প্রস্তাবটি অনুমোদিত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই বিধিনিষেধগুলো কার্যকর হতে শুরু করবে। স্ম’রণ করা যায়, ২০২০ সালের ১৬ই জানুয়ারি ঢাকায় আসে ইইউ কমিশনের একটি প্রতিনিধিদল। সেদিন জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপের বৈঠকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পশ্চিম ইউরোপ ও ইইউ দেখভালের দায়িত্বপ্রাপ্ত তৎকালীন মহাপরিচালক আন্দালিব ইলিয়াস ও ইউরোপীয় কমিশনের স্বরাষ্ট্র বিষয়ক মহাপরিদপ্তরের পরিচালক মাইকেট শাটার এ নিয়ে বিস্তৃত আলোচনা করেন। তাদের মুখ্য আলোচ্য ছিল ২০১৭ সালের ২১শে সেপ্টেম্বর নিউ ইয়র্কে সই হওয়া ইউরোপে অ’বৈধ হয়ে পড়া বাংলাদেশিদের ফেরানো সংক্রান্ত চুক্তি ‘স্ট্যান্ডার্ড অ’পারেটিং প্রসিডিউর বা এসওপি’র পূর্ণ বাস্তবায়ন।

সেই চুক্তির আওতায় অনেকেই দেশে ফিরেছেন। তাদের পুনর্বাসনে ইইউ প্রতিশ্রুত প্রণোদনাও মিলেছে। কিন্তু আচ’মকা কেন অসহযোগিতার অ’ভিযোগ তুললো ইইউ কমিশন সে বিষয়ে বিস্তারিত খোঁজ নিচ্ছে সেগুনবাগিচা। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত সরকারের তরফে এ নিয়ে কোনো প্রতিক্রিয়া দেখানো হয়নি। তবে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এটা নিশ্চিত করেছে যে, কেবল ইউরোপ নয়, বিশ্বের কোথাও কোনো বাংলাদেশি অ’বৈধভাবে থাকুক সরকার তা চায় না। ইউরোপীয় কমিশনের পরিসংখ্যান দপ্তর ইউরোস্ট্যাটের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে ২০০৮ সাল থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত ৯৩ হাজার ৪৩৫ জন বাংলাদেশি ইউরোপের দেশগুলোতে অ’বৈধভাবে প্রবেশ করেছেন বলে উল্লেখ রয়েছে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  • 47
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    47
    Shares
নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: