সর্বশেষ আপডেট : ৩০ মিনিট ২৬ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

কাবুল ছাড়া সব বড় শহর তালেবানের নিয়ন্ত্রণে

ঝড়ের গতিতে যেভাবে তা’লেবান আ’ফগা’নিস্তানের একের পর এক বড় বড় প্রাদেশিক শহর কব্জা করছে, তাতে রাজধানী কাবুলের পতনের আশ’ঙ্কায় আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে ঘানি সরকার। রোববার কোনো ল’ড়াই ছাড়াই আ’ফগা’নিস্তানের পূর্বাঞ্চলের গুরুত্বপূর্ণ শহর জালালাবাদ দখল করে নিয়েছে তা’লেবান। এই শহরটির পতনের মধ্য দিয়ে একমাত্র রাজধানী কাবুল ছাড়া দেশটির আর সব গুরুত্বপূর্ণ শহরে তা’লেবানের নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠিত হল।

শনিবার দেশটির উত্তরের শহর মাজার-ই-শরীফ দখল করে তা’লেবানরা। সরকারি বাহিনীগুলোর এমন বিপর্যয়ের পর আ’ফগা’নিস্তানের প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানির ওপর পদত্যাগের চাপ বাড়ছে।

কাবুলে নিয়ন্ত্রণ ধরে রাখতে লড়াই করবে নাকি আত্মসম’র্পণ করবে এই কঠিন সিদ্ধান্তের মুখোমুখি এখন আ’ফগা’নিস্তানের প্রেসিডেন্ট।

কাবুল থেকে দূতাবাসকর্মীসহ নিজ দেশের নাগরিকদের বাড়ি ফেরা নিশ্চিত করতে বৃহস্পতিবার তিন হাজার মা’র্কিন সে’না পাঠানোর ঘোষণা দিলেও তা’লেবানরা দ্রুত কাবুলের কাছাকাছ চলে আসায় শনিবার পাঁচ হাজার মা’র্কিন সে’নারা পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বাইডেন।

জালালাবাদের পতন হওয়ায় পা’কিস্তানের পেশোয়ার শহরের দিকে যাওয়া মহাসড়কটি তা’লেবানের নিয়ন্ত্রণে চলে গেছে। এটি স্থলবেষ্টিত আ’ফগা’নিস্তানের অন্যতম প্রধান একটি মহাসড়ক।

শনিবার আ’ফগা’নিস্তানের টেলিভিশনে প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনির ভাষণ প্রচারিত হয়েছে। ভাষণে আশরাফ গনি তা’লেবানের বি’রুদ্ধে ল’ড়াই চালিয়ে যাওয়ার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেছেন। সে’নাদের তা’লেবানের বি’রুদ্ধে এক্যবদ্ধ করছেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

তবে বিশ্লেষকরা বলছেন তা’লেবানের হা’মলায় বেসামাল হয়ে পড়েছেন প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি। দেশে তার কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই।

আ’মেরিকান ইউনিভা’র্সিটি অব আ’ফগা’নিস্তানের অধ্যাপক হারুন রহিমী বলেন, আ’ফগা’ন সরকার কোনো অবস্থাতেই সুবিধাজনক অবস্থায় নেই। তা’লেবানের একের পর এক অঞ্চল দখলে সরকারের অবস্থান নড়বড়ে হয়ে গেছে।

বিবিসি জানিয়েছে, আ’ফগা’নিস্তানের ২৪টি প্রদেশের মধ্যে ২৩টির রাজধানী এখন তা’লেবানদের দখলে।

আ’ফগা’নিস্তানের চতুর্থ বৃহত্তম শহর এবং বলখ প্রদেশের রাজধানী মাজার-ই-শরীফ দখল করে নেওয়ার কয়েক ঘণ্টা পরেই জালালাবাদ নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নেয় তা’লেবানরা, মাজার-ই-শরীফ আয়ত্বে নিতেও কোন সংঘাতের প্রয়োজন হয়নি।

বলখের একজন আইনপ্রণেতা আবাস ইব্রাহিমজাদা বার্তা সংস্থা এপিকে বলেন, জাতীয় আর্মি প্রথমে আত্মসর্মণ করে, এটা পরে সরকার নিয়ন্ত্রিত বাহিনীগুলোকে এবং অন্য মিলিশিয়া বাহিনীদের হাল ছেড়ে দিতে বাধ্য করে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  • 36
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    36
    Shares
নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: