সর্বশেষ আপডেট : ১৬ মিনিট ১০ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১০ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

করোনায় মারা গেছে মেয়ে, খবর শুনে হাসপাতালে মায়ের মৃত্যু

করো’না আ’ক্রান্ত হয়ে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতা’লে চিকিৎসাধীন ছিলেন আকলিমা খাতুন (৬০)। উপসর্গ ও অনান্য শারীরিক জটিলতা নিয়ে রাজবাড়ী সদর হাসপাতা’লে চিকিৎসাধীন ছিলেন তার মা আলিয়া বেগম (৭৮)। মঙ্গলবার (১০ আগস্ট) সকালে করো’নার কাছে হেরে যান আকলিমা। মে’য়ের মৃ’ত্যুর খবর হাসপাতা’লে চিকিৎসাধীন মাকে জানানো হলে তিনিও মা’রা যান। পরে তাদের একসঙ্গে পাশাপাশি কবরে দাফন করা হয়। এমন হৃদয়বিদারক ঘটনা ঘটেছে রাজবাড়ী সদর উপজে’লার রামকান্তপুর ইউনিয়নের রায়নগর গ্রামে।

পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, আকলিমা খাতুনের করো’নার উপসর্গ দেখা দিলে প্রথমে রাজবাড়ী সদর হাসপাতা’লে ভর্তি করা হয়।পরে শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতা’লের করো’না ইউনিটে ভর্তি করা হয়। এদিকে আকলিমা’র মা আলেয়া বেগম করো’নার উপসর্গ এবং বার্ধক্যজনিত জটিলতা নিয়ে রাজবাড়ী সদর হাসপাতা’লে করো’না ইউনিটে চিকিৎসাধীন ছিলেন। তার শারীরিক অবস্থা মোটামুটি ভালো ছিল।

কিন্তু মঙ্গলবার করো’নার কাছে হেরে যায় মে’য়ে আকলিমা। সকাল ১০টায় ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতা’লে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃ’ত্যু হয়। পরে তার ম’রদেহ রামকান্তপুর ইউনিয়নের রায়নগর গ্রামে নিয়ে আসা হয়। মা আলেয়া তখনো জানতেন না তার আদরের মে’য়ে আকলিয়া আর নেই। আকলিমা’র পরিবার তার দাফনের ব্যবস্থা করছিল। ঠিক তখন মে’য়ের মৃ’ত্যুর খবর মাকে জানানো হয়। এর কিছু সময় পর আলেয়া স্ট্রোক করে মা’রা যান। এরপর তার ম’রদেহটিও বাড়িতে আনা হয়। পাশাপাশি কবরে মা-মে’য়েকে দাফন করা হয়।

আকলিমা-মোস্তাক দম্পতির কোনো সন্তান ছিল না। মোস্তাক খুলনায় একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করতেন। চাকরি থেকে অবসর নেওয়ার পর তারা রামকান্তপুর রায়নগর গ্রামে বসবাস করতেন।

সদর উপজে’লা আওয়ামী লীগের সভাপতি রমজান আলী খান ঢাকা পোস্ট’কে বলেন, আকলিমা করো’না আ’ক্রান্ত হলে তার মা আলেয়া সেবা-যত্ন করে আসছিল। পরে আকলিমা’র শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে প্রথমে সদর হাসপাতাল ও পরে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতা’লে ভর্তি করা হয়। সেখানেই সে চিকিৎসাধীন ছিল। মে’য়ের সেবা-যত্ম করে আলেয়াও করো’না আ’ক্রান্ত হন।

আলেয়া রাজবাড়ী সদর হাসপাতা’লে চিকিৎসাধীন ছিলেন। সকাল ১০টায় আকলিমা মা’রা গেলে তার দাফন-কাফনের ব্যবস্থা শুরু করা হয়। পরে আকলিমা’র মৃ’ত্যুর সংবাদটি মাকে জানানো হলে দুপুর একটার দিকে তিনিও মা’রা যান। পরে আরও একটি কবর খোঁড়া হয়। একসঙ্গে জানাজা নামাজ শেষে পাশাপাশি কবরে তাদের দাফন করা হয়েছে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  • 76
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    76
    Shares

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: