সর্বশেষ আপডেট : ৭ ঘন্টা আগে
মঙ্গলবার, ৬ জুন ২০২৩ খ্রীষ্টাব্দ | ২৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩০ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

বাড়ির আঙিনায় কেন সেই ৬ জনের কবর

বাড়ির আঙিনায় কবরের সারি। লা’শ চু’রির শ’ঙ্কায় বজ্রাঘাতে নি’হত একই পরিবারের ৬ জনকে কবর দেয়া হয়েছে বাড়ির সামনের আঙিনায়। সুরক্ষিত করতে ইটের দেয়াল দিয়ে প্রাচীর তৈরির কাজ চলছে কবরগুলোকে ঘিরে।

গ্রামবাসী বলছেন, লা’শ পাহারার সুবিধার্থে নেয়া হয়েছে এমন পদক্ষেপ। বুধবার রাতে নি’হতদের পারিবারিকভাবে নিজ নিজ এলাকায় জানাজা শেষে দাফন সম্পন্ন করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সদর উপজে’লার নারায়ণপুর ইউনিয়নের চর সূর্যনারায়ণপুর গ্রামে গিয়ে দেখা যায় শোকে মুহ্যমান এলাকাবাসী।

স্থানীয় গ্রামবাসী খাইরুল ইস’লাম ও শিমুল পারভেজ জানান, যারা মা’রা গেছেন তারা সবাই সদ্য বিবাহিত আল-মামুনের নিকটাত্মীয়। একই পরিবারে তার নানা, নানি, মামা, মামিসহ ৭ জন নি’হত হয়েছেন। ওই পরিবারে একটি ছে’লেসন্তান ছাড়া সেই পরিবারের কেউ বেঁচে নেই। অ’পর একটি পরিবারে ৩ বছরের একটি শি’শু ছাড়া আর কেউ জীবিত নেই। এমন ম’র্মা’ন্তিক ঘটনায় আম’রা পুরো গ্রামবাসী কাঁদছি।

আমিনুল ইস’লাম নামে আরেকজন জানান, বর মামুনের বোন ও দুলাইভাই এ ঘটনায় মা’রা যান। কিন্তু তার বোনের কোলে থাকা তিন বছরের সন্তানটি বেঁচে গেছে। আ’হত হলেও চিকিৎসার পর এখন সে সুস্থ আছে।

বরযাত্রী দলে থাকা মোফজ্জল হোসেন জানান, আম’রা রওনা দেয়ার পর থেকে থেমে থেমে বৃষ্টি হচ্ছিল। একদিকে উত্তাল পদ্মা নদী অন্যদিকে আকাশে ঘনকালো মেঘ। নদীর ঘাটে আসার সাথে সাথে বৃষ্টি বাড়তে থাকে। তখন নৌকায় থাকা সবাই তাড়াহুড়ো করে নদীর পাড়ে থাকা ছাউনি ঘরের দিকে যেতে থাকে। এমন সময় বজ্রপাত হয়। আর সাথে সাথে সবাই মাটিতে পড়ে যান। পরে দেখি অনেকেই মা’রা গেছেন। আর যারা বেঁচে আছেন তারা ছটফট করছেন। পরে তো সবাই মিলে হাসপাতা’লে নিয়ে গেছেন।

অ’পর এক নারী জানান, বৃষ্টির জন্য নদীর পাড়ে ছাউনি ঘরে আশ্রয় নেই। হঠাৎই বজ্রপাতের কারণে ওই ছাউনি ঘরে আ’গুন লেগে যায়। একটা আলোরছটা আমা’র ডান হাতে লাগে। পরে আমি জ্ঞান হারিয়ে ফেলি। জ্ঞান ফিরে দেখি আমা’র পাশে লা’শের সারি।

এদিকে বাড়ির আঙিনায় কবর দেয়ার বিষয়ে আলী হোসেন নামে এক প্রতিবেশী বলেন, আম’রা বাপ-দাদার আমল থেমে শুনেছি বজ্রপাতে নি’হতদের লা’শ চু’রি করে নেয়। সেজন্য বাড়ির আঙিনায় এবং রাস্তার ধারে একসঙ্গে লা’শগুলো দাফন করা হয়েছে। এতে সার্বক্ষণিক আম’রা লা’শগুলো পাহারা দিতে পারব। গত রাতেও আম’রা গ্রামবাসী পালাক্রমে লা’শগুলো পাহারা দিয়েছি; যাতে সেগুলো চু’রি করতে না পারে।

এদিকে সদ্যবিবাহিত আল মামুনের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায় বাড়ি ঘিরে মানুষের জটলা। একপর্যায়ে মামুন বলেন, এ ঘটনায় আমা’র পিতাসহ ১৫ জন আত্মীয় মা’রা গেছেন। বিয়ের আনন্দ এখন আমাদের বাড়িতে নেই। এই ক’ষ্ট আপনাদের বোঝাতে পারব না। মুহুর্তেই এতগুলো মানুষ পৃথিবী থেকে চলে গেল।

প্রসঙ্গত, বুধবার চাঁপাইনবাবগঞ্জের চর নারায়ণপুর থেকে পদ্মা নদীর খেয়াঘাটে নামতেই বজ্রপাতের শিকার হয়ে নি’হত হন বরযাত্রীদের ১৭ জন। আ’হত হন অন্তত ২১ জন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Comments are closed.

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: