সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

আমার মা কি আইসিইউ’র জন্য মারা যাবে?

নারগিস আক্তারের আহাজারিতে ভা’রী হাসপাতা’লের বাতাস। চার হাসপাতাল ঘুরেও মায়ের জন্য একটা আইসিইউ বেড পাইনি। আমা’র মা কি আইসিইউ’র জন্য মা’রা যাবে? আমা’র মা’কে বাঁ’চান। নারগিসের এ আকুতিতে অসহায় আশপাশের মানুষজন। শুক্রবার দুপুরে মহাখালী ডিএনসিসি কোভিড হাসপাতা’লের সামনে অ’সুস্থ মা’কে নিয়ে টানা দুইঘণ্টা এম্বুলেন্সে বসে ছিল নারগিস। তার মা মনুদা বেগম শ্বা’সক’ষ্ট নিয়ে কাতরাচ্ছিলেন এম্বুলেন্সের ভিতরে। মায়ের পাশে বসে নারগিস তার শরীরে হাত বুলিয়ে দিচ্ছেন। চাঁদপুর থেকে আসা এই রোগীর আইসিইউ প্রয়োজন।

কিন্তু মহাখালী কোভিড হাসপাতালসহ চার হাসপাতা’লে গিয়েও মেলেনি তার আইসিইউ শয্যা। চিকিৎসকরা পরাম’র্শ দিয়েছেন যেখানে আইসিইউ সুবিধা আছে সেখানে নেয়ার জন্য। এই অবস্থায় অসহায় মে’য়ে মা’কে নিয়ে কোথায় যাবে বুঝতে পারছে না। আকুতি জানাচ্ছিল তাকে সহযোগিতা করার জন্য। কিন্তু মেলেনি আইসিইউ। পুনরায় এম্বুলেন্স নিয়ে ছুটে চলে অন্য হাসপাতা’লে আইসিইউ’র খোঁজে।

নারগিস আক্তার বলেন, পাঁচদিন ধরে মায়ের বুকে ব্যথা, শ্বা’সক’ষ্ট ও কাশি। প্রথমে তাকে চাঁদপুর একটি হাসপাতা’লে ডাক্তার দেখানো হয়। সেখান থেকে কিছু মেডিসিন দিয়ে দেন। তাতে কোনো উন্নতি না হওয়ায় নারায়ণগঞ্জের একটি হাসপাতা’লে নেয়া হয়। সেখান থেকে চিকিৎসক করো’না পরীক্ষার কথা বলেন। চিকিৎসকের কথা অনুযায়ী করো’না পরীক্ষা করানো হয়। রেজাল্ট পজিটিভ আসে। সেখান থেকে চিকিৎসকরা ঢাকায় হাসপাতা’লে চিকিৎসার জন্য আনতে বলেন।

নারগিস জানায়, শুক্রবার সকালে এম্বুলেন্স করে মা’কে ঢাকায় নিয়ে আসি। খুব জো’রে জো’রে শ্বা’স নিচ্ছে। প্রথমে সোহ্‌রাওয়ার্দী হাসপাতা’লে যাই। সেখানে কোনো আইসিইউ শয্যা খালি নেই। এরপর ঢাকা মেডিকেলে গেলে নরমাল অক্সিজেন দিয়ে ভর্তি করানো হয়। তারপর কিছুক্ষণ পরে ডক্তার এসে অবস্থা খা’রাপ দেখে বলেন রোগীর আইসিইউ প্রয়োজন। অন্য হাসপাতা’লে নিয়ে যান। যেখানে আইসিইউ পাবেন। আমাদের আইসিইউ শয্যা খালি নেই। এরপর পিজি হাসপাতা’লে খবর নিই। সেখানেও আইসিইউ শয্যা খালি নেই। সময় নষ্ট না করে মহাখালী করো’না ইউনিটে নিয়ে আসি। এখানেও রোগীকে ভর্তি নেয়া হয়নি। তাদেরও আইসিইউ শয্যা খালি নেই। শ্বা’সক’ষ্ট বেড়ে যাওয়ায় নরমাল অক্সিজেন দিলে তার কোনো কাজ হবে না বলে জানান হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এখন আম’রা কি করবো। মা’কে নিয়ে কোথায় যাবো। কেউ নেই আমা’র দেখার মতো। কয়েক হাজার টাকা শুধু এম্বুলেন্স ভাড়া লেগেছে। এ হাসপাতাল থেকে সে হাসপাতা’লে ছোটাছুটি করছি। কিন্তু আইসিইউ পাচ্ছি না। মা’কে কি বাঁ’চাতে পারবো না। এম্বুলেন্সের চালক এখানে কিছুক্ষণ বসে থাকায় অ’তিরিক্ত ভাড়া চাচ্ছেন। তার নাকি অনেক সময় নষ্ট হয়েছে। আমি এখন কোথায় যাবো। একদিকে মায়ের চিকিৎসার জন্য আইসিইউ পাচ্ছি না। অন্যদিকে এম্বুলেন্স চালক অ’তিরিক্ত ভাড়া চাচ্ছেন। এখন আবার মাকে নিয়ে ঢাকা মেডিকেলের দিকে যাচ্ছি। দেখি সেখানে গেলে চিকিৎসক কোন ব্যবস্থা করতে পারেন কিনা।

এদিকে মহাখালী ডেডিকে’টেড হাসা’পাতা’লের সামনে সকাল থেকে একটির পর একটি এম্বুলেন্স এসে ভিড়ছে শ্বা’সক’ষ্টের রোগী নিয়ে। কেউ সাধারণ শয্যায় ভর্তি হচ্ছেন আবার কেউ আইসিইউ শয্যা না পেয়ে অন্য হাসপাতা’লে ছুটছেন। সাভা’র থেকে এসেছেন ৬৫ বছর বয়সী মা নূরজাহান বেগমকে নিয়ে নুরুজ্জামান। সকাল থেকে আইসিইউ শয্যা পেতে মা’কে নিয়ে হাসপাতা’লে হাসপাতা’লে ঘুরছেন। দুই হাসপাতাল ঘুরেও মেলেনি তার আইসিইউ শয্যা। তিনি বলেন, ঈদের পর থেকে মায়ের জ্বর। মাঝে মাঝে বমি করে। কোম’রের হাড়ে সমস্যা আছে। সাভা’রে তাকে ডাক্তার দেখানো হয়। কিছু ধারাবাহিকভাবে ওষুধ খেতে বলেন। তারপর তিনদিন পরে হালকা শ্বা’সক’ষ্ট দেখা যায়। ডাক্তারের সঙ্গে কথা বললে ঢাকায় আসার পরাম’র্শ দেন। শুক্রবার সকালে তাকে হাসপাতা’লে নিয়ে আসা হয়। প্রথমে সোহ্‌রাওয়ার্দী হাসপাতা’লে নেয়া হয়। সেখানে আইসিইউ নেই বলে জানান চিকিৎসকরা। এরপর মহাখালী করো’না ইউনিটে নিয়ে আসি। ভেবেছিলাম এই হাসপাতা’লে আইসিইউ পাবো। কিন্তু এখানেও নেই। সাফিয়া খাতুন ৭০ বছর বয়স। কুমিল্লা থেকে মহাখালী করো’না ইউনিটে এসেছেন জ্বর ও শ্বা’সক’ষ্ট নিয়ে। পাশে থাকা মে’য়ে শিউলী আক্তার জানান, মায়ের ঈদের আগে থেকে জ্বর ও শ্বা’সক’ষ্ট। কুমিল্লায় ডাক্তার দেখানো হয়েছে। সেখান থেকে এই অবস্থা দেখে তারা ঢকাতে নিয়ে আসতে বলেছেন। এখনো তার করো’না পরীক্ষা করা হয়নি। শ্বা’সক’ষ্ট বেড়ে যাওয়ায় এই হাসপাতা’লে তাকে নরমাল অক্সিজেন দিয়ে রেখেছে। এখনো ভর্তি করারা ব্যাপারে কিছু বলেনি। সূত্র: মানবজমিন

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  • 30
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    30
    Shares
নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: