সর্বশেষ আপডেট : ৮ মিনিট ৫৩ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ২৫ জুলাই ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১০ শ্রাবণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

১৭ বছর সুবিধা ভোগের পর জানালেন তিনি মুক্তিযোদ্ধা নন


একাত্তরে বয়স মাত্র তিন বছর। অথচ ভু’য়া জন্মসনদ ও অন্যান্য কাগজপত্র তৈরি করে ২০০৪ সালে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে গেজেটভুক্ত হন নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জের শি’শু মুক্তিযোদ্ধা খ্যাত বিমল চন্দ্র মজুম’দার।

গত ১৭ বছর ধরে বীর মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে সব ধরনের সরকারি সুযোগ-সুবিধা ভোগ করে আসছিলেন তিনি। অবশেষে ২০২১ সালের ১২ এপ্রিল ভু’য়া মুক্তিযোদ্ধার ঘটনাটি ফাঁ’স হয়ে গেলে, তিনি নিজেই মুক্তিযোদ্ধা নন বলে উপজে’লা মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই কমিটিকে জানান।

আজ মঙ্গলবার উপজে’লা নির্বাহী কর্মক’র্তা (ইউএনও) মো. জিয়াউল হক মীর বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, সরকারি নির্দেশনা পেয়ে গেজেটপ্রাপ্ত স’ন্দেহভাজন বীর মুক্তিযোদ্ধাদের যাচাই-বাছাই কমিটিতে ডা’কা হয়। উপজে’লার চরহাজারী ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের মোহন্ত ডাক্তার বাড়ির মৃ’ত পরেশ চন্দ্র মজুম’দারের ছে’লে বিমল চন্দ্র মজুম’দার একাত্তর সালের মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন না বলে লিখিত স্বীকারোক্তি দিয়েছেন। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বিমল চন্দ্র মজুম’দার ২০০৪ সালে ভু’য়া জন্ম সনদ দিয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধার তালিকায় নিজের নাম অন্তর্ভুক্ত করেন। তিনি তাঁর প্রকৃত জন্মতারিখ ১৯৬৮ সালের ১ জানুয়ারি জন্মসনদ দিয়ে ১৯৯৯ সালে কোম্পানীগঞ্জের বামনী ডিগ্রি কলেজে সাচিবিক বিদ্যা বিষয়ে প্রদর্শক পদে নিয়োগ পান। কিন্তু ১ জানুয়ারি ১৯৫৭ সালের ভু’য়া জন্মসনদ ও মিথ্যা তথ্য দিয়ে ২০০৪ সালে বীর মুক্তিযোদ্ধার তালিকায় গেজেটভুক্ত হন তিনি। তাঁর মুক্তিযোদ্ধা ভাতা বই নম্বর-২৪৮। এ ছাড়া সন্তানের ক্ষেত্রেও তিনি এই সুবিধা নেন।

উপজে’লা সমাজসেবা অফিস সূত্র জানায়, তিনি ২০০৪ সাল মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হয়ে অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা পেলেও তাঁর মুক্তিযোদ্ধা ভাতা প্রাপ্তি শুরু হয় ২০১৪ সালে জুলাই মাস থেকে।

সোনালী ব্যাংক বসুরহাট শাখা সূত্রে জানা যায়, বিমল চন্দ্র মজুম’দারের মুক্তিযোদ্ধা হিসাব (হিসাব নম্বর-১৫০৭৪) নম্বরে মোট চার লাখ ৭৫ হাজার ৯৬২ টাকা জমা হয়েছে। সেখান থেকে দুই লাখ ২৮ হাজার ৫২৪ টাকা উত্তোলন করা হয়েছে। বর্তমানে এই হিসাবে দুই লাখ ৪৭ হাজার ৪৩৮ টাকা জমা আছে।

বিমল চন্দ্র মজুম’দার বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, ‘দুষ্ট লোকের প্র’রোচনায় আমি মিথ্যা তথ্য ও ভু’য়া কাগজ দিয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হয়েছিলাম। বর্তমানে আমি সেই তালিকা থেকে নাম বাদ দিতে আবেদনও করেছি।’ উত্তোলনকৃত মুক্তিযোদ্ধা ভাতা ফেরত দেওয়া প্রসঙ্গে প্রশ্ন করা হলে তিনি জানান, অ’নৈতিক পন্থায় উত্তোলনকৃত মুক্তিযোদ্ধা ভাতা ফেরত দেবেন।

উপজে’লা আওয়ামী লীগের সভাপতি (মুজিব বাহিনীর ডেপুটি কমান্ডার) ও বীর মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই কমিটির সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা খিজির হায়াত খান বলেন, ‘বিমল চন্দ্র মজুম’দার কখনোই মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন না। তখনকার সময়ে রাজনৈতিকভাবে তাঁকে বীর মুক্তিযোদ্ধা বানানো হয়েছে। এখনো কোম্পানীগঞ্জের মুক্তিযোদ্ধা তালিকায় অনেক ভু’য়া মুক্তিযোদ্ধা অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।’

উপজে’লা সমাজসেবা অফিসার মো. রাসেল আহমেদ বলেন, ‘বিমল চন্দ্র মজুম’দারের বীর মুক্তিযোদ্ধার বিষয়টি স’ন্দেহ হলে ২০১৯ সালে সোনালী ব্যাংক বসুরহাট শাখাকে তাঁর ভাতা উত্তোলন স্থগিত রাখতে নির্দেশনা দেওয়া হয়। এখন তাঁর ওই হিসাব নম্বরে দুই লাখ ৪৭ হাজার ৪৩৮ টাকা জমা আছে। বিমলের মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে উত্তোলনকৃত টাকা উ’দ্ধারের বিষয়ে সরকারি নির্দেশ মোতাবেক আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: