সর্বশেষ আপডেট : ১১ ঘন্টা আগে
সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

করো’না পরিস্থিতেও স্বাস্থ্য খাতের ৯১ লক্ষ টাকা ফেরত, মৌলভীবাজার জে’লাজুড়ে সমালোচনার ঝড়


করো’না মহামা’রি পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক ২০২০-২১ অর্থ বছরে ‘সঙ্গনিরোধ ব্যয়’ খাতে মৌলভীবাজারে বরাদ্দ দেয়া হয়েছিল ২ কোটি ৭৭ লাখ ৫ হাজার ৮৮৮ টাকা। অথচ নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে খরচ হয়েছে ১ কোটি ৮৫ লাখ ৯৩ হাজার ৫৮৯টাকা। অর্থ বছর শেষ হওয়ায় ফেরত গেছে ৯১ লাখ ১২ হাজার ২৯৯ টাকা।

বিষয়টি জানাজানি হলে জে’লাজুড়ে শুরু হয় ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা। সচেতন মহল মনে করছেন, ফেরত দেয়া অর্থ সঠিকভাবে খরচ করলে জে’লায় স্বাস্থ্যখাতে আরও উন্নীতকরণ করা যেতো। তবে জে’লা সিভিল সার্জন বলেছেন, সরকারের বরাদ্দকৃত সুনির্দিষ্ট খাতের টাকা ভিন্ন খাতে খরচ করার এখতিয়ার আমাদের নেই।

সম্প্রতি দেশব্যাপী করো’না সংক্রমণের হারা বাড়ার সাথে সাথে মৌলভীবাজার জে’লার করো’না রোগীর সংখ্যাও প্রতিদিনই বাড়ছে। এ পর্যন্ত ৩ হাজারের বেশী করো’না রোগী শনাক্ত হয়েছে এ জে’লায়। মৃ’তের সংখ্যা ৩৭ ছাড়িয়েছে। জে’লা জুড়ে আতঙ্ক বাড়ছে। এরমধ্যে এই বরাদ্দের টাকা ফেরতের ঘটনায় বিভিন্ন মহলে আলোচনার জন্ম দিয়েছে।

সচেতন মহল মনে করেন, মৌলভীবাজার জে’লার কোন উপজে’লা হাসপাতা’লে নেই করো’না রোগীদের জন্য আইসিইউ কিংবা সিসিইউ বেড। নেই পর্যাপ্ত অক্সিজেন সিলিন্ডার। যদি ওই বরাদ্দের টাকা ফেরত না দিয়ে এসব খাতে খরচ করা যেতো তবে তৃণমূলে মানুষ এ সময় উন্নত চিকিৎসা সেবা পেতো।

সিভিল সার্জন ডা. চৌধুরী জালাল উদ্দিন মুর্শেদ বলেন, ‘কোয়ারেন্টাইন এক্সপেন্সিভ’ বা ‘সঙ্গনিরোধ ব্যয়’ খাতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় যে বরাদ্দ দিয়েছিলো তা সঠিকভাবে খরচ হয়েছে। তবে নির্দিষ্ট সময়ের ভিতরে এর চেয়ে বেশী খরচ না হওয়ায় তা মন্ত্রণালয়ে ফেরত গেছে। বরাদ্দগুলো সরাসরি জে’লার সকল উপজে’লা কমপ্লেক্সে সরাসরি যাওয়ায় এখানে জে’লা সিভিল সার্জন অফিসের তেমন কোন কাজ করার সুযোগ নেই। তাছাড়া সরকারি বরাদ্দের এক খাতের টাকা ভিন্ন খাতে খরচ করার এখতিয়ার কারো নেই।

জে’লা সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে জানা যায়, ২০২০-২১ অর্থবছরে সিভিল সার্জন কার্যালয়ে বরাদ্দ এসেছিল ৯ লাখ ৮৯ হাজার ৮৪৮ টাকা, এর মধ্যে ফেরত গেছে ৫ লাখ ৫৮ হাজার ২০৫ টাকা, কুলাউড়া উপজে’লা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বরাদ্দ এসেছিল ২৫ লাখ ১২ হাজার ৯৬০ টাকা, ফেরত গেছে ২০ লাখ ২৩ হাজার ২৯৫ টাকা, জুড়ী উপজে’লা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বরাদ্দ এসেছিল ১৫ লাখ ৯১ হাজার ২৪০ টাকা, ফেরত গেছে ৭ লাখ ৩৮ হাজার ৭শ টাকা, বড়লেখা উপজে’লা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বরাদ্দ এসেছিল ২১ লাখ ১৭ হাজার ৬৮০ টাকা, ফেরত গেছে ১৭ লাখ ২ হাজার ৯৭৫ টাকা, কমলগঞ্জ উপজে’লা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বরাদ্দ এসেছিল ১৯ লাখ ৬৫ হাজার ৫২০ টাকা, ফেরত গেছে ১৪ লাখ ৯৪ হাজার ৬শ টাকা ও শ্রীমঙ্গল উপজে’লা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বরাদ্দ এসেছিল ১৯ লাখ ৫০ হাজার ৫২০ টাকা, ফেরত গেছে ১২ লাখ ৩৯ হাজার ২০৪ টাকা, রাজনগর উপজে’লা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বরাদ্দ এসেছিল ১৮ লাখ ৫৪ হাজার ৭৬০ টাকা, ফেরত গেছে ১৩ লাখ ৫৫ হাজার ৩৮০ টাকা।

অন্যদিকে মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা সদর হাসপাতা’লে ৭৬ লাখ ৯১ হাজার ২শ এবং সদর উপজে’লা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ১ লাখ ২১ হাজার ৬০ টাকা বরাদ্দ আসলে পুরোটাই ব্যয় করা হয়।

এ বিষয়ে কুলাউড়া উপজে’লা স্বাস্থ্য কর্মক’র্তা ফেরদৌস আক্তার বলেন, কুলাউড়া হাসপাতা’লে করো’না রোগীদের পরিচর্যা করার জন্য উন্নত আইসিইউ কিংবা সিসিইউ বেড নেই। তাই জরুরী রোগীদের বেশীরভাগ জে’লা সদর হাসপাতাল অথবা সিলেটে প্রেরণ করা হয়। আর যারা আ’ক্রান্ত হয় তাদের বেশীরভাগ বাসায় হোম আইসোলেশনে চিকিৎসা নেন। তাই এ খাতে খরচের পরিমান এমনিতেই কম হয়েছে। অন্যখাতে খরচ করার সুযোগ ছিলো না।

আর রাজনগর উপজে’লা স্বাস্থ্য কর্মক’র্তা ডা. বর্ণালী দাশ জানান, প্রশিক্ষণ, টিকা প্রদান ও নমুনা সংগ্রহ বাবদ আমা’র উপজে’লায় টাকা খরচ করা হয়েছে।

জুড়ী উপজে’লা স্বাস্থ্য কর্মক’র্তা ডা. সম’রজিৎ সিংহ জানান, গত অর্থবছরে কয়েকজন ছুটিতে ছিলেন, আবার এখানে লোকবলও কম ছিল। যার কারণে পুরো টাকা ব্যয় করা সম্ভব হয়নি।

জে’লা সিভিল সার্জন ডা. চৌধুরী জালাল উদ্দিন মুর্শেদ বলেন, সুনির্দিষ্ট ব্যয়ের কোনো পরিকল্পনা দেয়নি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। যার কারণে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে সব টাকা খরচ করা সম্ভব হয়নি। মন্ত্রণালয় থেকে টাকা সরাসরি সংশ্লিষ্ট উপজে’লায় পাঠানো হয়েছে। যার কারণে ব্যয়ের বিষয়ে আমাদের কোনো এখতিয়ার ছিল না। নির্দিষ্ট সময়ের জন্য বরাদ্দকৃত টাকার হিসাব মন্ত্রণালয়কে বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে।

অ’পর দিকে, মৌলভীবাজারে করো’না রোগীদের উন্নত চিকিৎসার জন্য আম’রা ইতিমধ্যে ‘অক্সিজেন প্ল্যান্ট’ করার উদ্যোগ নিয়েছি। সপ্তাহ দুয়েকের মধ্যে তা বাস্তবায়ন হবে আশা করছি।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  • 24
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    24
    Shares

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: