সর্বশেষ আপডেট : ১৫ মিনিট ৪৬ সেকেন্ড আগে
বুধবার, ৮ ডিসেম্বর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

বাংলাদেশে এক সপ্তাহে আক্রান্ত-মৃত্যু বেড়েছে প্রায় ৫০ শতাংশ

দেশে মাত্র এক সপ্তাহের ব্যবধানে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত নতুন রোগী বেড়েছে ৪৯ দশমিক ১৫ শতাংশ। একই সময়ে মৃত্যু বেড়েছে ৪৮ দশমিক ৬১ শতাংশ। আর গতকাল শনিবার পর্যন্ত করোনায় মারা যাওয়াদের সংখ্যা ১৪ হাজার ছাড়িয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে গত শুক্রবার রাতে সরকার দেশজুড়ে কঠোর লকডাউনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। এ বিষয়ে গতকাল মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে প্রজ্ঞাপন জারির কথা থাকলেও তা হয়নি।

সরকারের একটি দায়িত্বশীল সূত্র বলছে, আগামীকাল সোমবার থেকে সীমিত পরিসরে ‘লকডাউন’ শুরু হবে। তখন থেকেই সারা দেশে গণপরিবহন চলাচল বন্ধ হয়ে যাবে। এই সময়ে আর্থিক প্রতিষ্ঠান খোলা থাকবে। আর বৃহস্পতিবার থেকে সাত দিনের সর্বাত্মক লকডাউন শুরু হবে।

লকডাউন নিয়ে গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খানের সভাপতিত্বে সরকারের উচ্চপর্যায়ের একটি সভা হয়। সভায় উপস্থিত একাধিক সূত্র জানিয়েছে, অর্থবছরের শেষ সময় হওয়ায় সরকারি সিদ্ধান্তে কিছুটা পরিবর্তন আনা হয়েছে। শিল্পকলকারখানা লকডাউনের আওতার বাইরে থাকতে পারে। সীমিত পরিসরে ব্যাংকিং সেবাও চালু থাকতে পারে। জরুরি সেবা ছাড়া আর সবকিছু সর্বাত্মক লকডাউন শুরুর পর বন্ধ হয়ে যাবে।

গণমাধ্যম এবং গণমাধ্যমের কর্মীদের চলাচল লকডাউনের আওতার বাইরে থাকবে। লকডাউনের বিস্তারিত আজ রোববার প্রজ্ঞাপন দিয়ে স্পষ্ট করা হবে বলে জানান তারা।

রাজধানী ঢাকার সংক্রমণ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী, ২২ জুন থেকে ঢাকার আশপাশের চার জেলাসহ মোট সাত জেলায় লকডাউন চলছে। ৩০ জুন পর্যন্ত মানিকগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ, গাজীপুর, মাদারীপুর, রাজবাড়ী ও গোপালগঞ্জে লকডাউন দিয়ে কার্যত রাজধানী ঢাকাকে সারা দেশ থেকে বিচ্ছিন্ন রাখার চেষ্টা ছিল। তবে সে চেষ্টা কতটা কার্যকর হচ্ছে, তা নিয়ে প্রশ্ন ওঠার মধ্যেই দেশজুড়ে লকডাউনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

এদিকে দেশে করোনা সংক্রমণের ৬৮তম সপ্তাহ গতকাল শেষ হয়েছে। এই সপ্তাহে গড়ে প্রতিদিন পাঁচ হাজারের বেশি নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে। করোনায় সংক্রমিত হয়ে গড়ে প্রতিদিন মারা গেছেন প্রায় ৮৪ জন। এর আগের সপ্তাহে প্রতিদিন নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছিল ৩ হাজার ৩৬৩ জন করে। আর প্রতিদিন গড়ে মৃত্যু হয়েছিল ৫৬ জনের। তারও আগের সপ্তাহে প্রতিদিন গড়ে নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছিল ২ হাজার ১৬৭ জন। আর মৃত্যু হয়েছিল গড়ে ৩৮ জনের।

জনস্বাস্থ্যবিদেরা বলছেন, সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ থেকে বাংলাদেশ এখন অনেক দূরে। লকডাউন কার্যকর করার পর সংক্রমণের গতি ধীর হতেও সপ্তাহ দুয়েক সময় লাগে। সে হিসাবে আরও বেশ কিছুদিন সংক্রমণ ঊর্ধ্বমুখী থাকার আশঙ্কা রয়েছে। সে সঙ্গে মৃত্যুও বাড়তে পারে। লকডাউনের পাশাপাশি সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আনতে নমুনা পরীক্ষা বাড়ানো, শনাক্ত হওয়া রোগীদের আইসোলেশনে রাখা, তাদের সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিদের খুঁজে বের করে কোয়ারেন্টিনের ব্যবস্থা এবং সবার স্বাস্থ্যবিধি বিশেষত মাস্ক পরা নিশ্চিত করতে হবে। না হলে লকডাউনের একটি নির্দিষ্ট সময় পর আবারও সংক্রমণ বেড়ে যাবে।

দেশে করোনাভাইরাসের প্রথম সংক্রমণ শনাক্ত হয় গত বছরের ৮ মার্চ। চলতি বছরের মার্চ থেকে দেশে সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হয়। সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে গত ৫ এপ্রিল থেকে বিধিনিষেধ আরোপ করেছিল সরকার। এর প্রভাবে এপ্রিলের মাঝামাঝি সময় থেকে সংক্রমণ কমতে শুরু করেছিল। পবিত্র ঈদুল ফিতরের পর মে মাসের মাঝামাঝি সময় থেকে সংক্রমণে আবার ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা তৈরি হয়। ঈদের পর সীমান্তবর্তী জেলাগুলোতে দ্রুত সংক্রমণ বাড়তে শুরু করে। এখন দেশের প্রায় সব জেলাতেই সংক্রমণ বাড়ছে। তথ্যসূত্র: আমাদের সময়

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  • 27
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    27
    Shares

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: