সর্বশেষ আপডেট : ৭ ঘন্টা আগে
শনিবার, ৩১ জুলাই ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ শ্রাবণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

পৃথিবী দখলে নেমেছে করোনার ডেল্টা ধরন, ছড়িয়েছে ৮০টিরও বেশি দেশে

বিবর্তনের ধারায় ভারতে উৎপত্তি হলেও নভেল করোনা ভাইরাসের ডেল্টা ধরন (বি.১.৬১৭) এখন মাথাব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে গোটা বিশ্বের বিজ্ঞানীদের। গত বছর বিশ্বজুড়ে করোনার প্রবল আঘাতের সঙ্গে প্রাণপণ লড়াই করেছে প্রতিটি দেশ। এর মধ্যে বেশ কয়েকটি টিকা চলে আসায় ভাইরাসটির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে অস্ত্র পান চিকিৎসকরা। কিন্তু শুধু ধনী দেশগুলো ছাড়া বাকি দেশ ও অঞ্চলে পর্যাপ্ত টিকা না পৌঁছানোয় পূর্ণতা পায়নি সে লড়াই। বরং দক্ষিণ এশিয়া, লাতিন আমেরিকাসহ এখনো অনেক অঞ্চলে সংক্রমণ বেড়েই চলেছে। উদ্ভব হয়েছে করোনার নতুন নতুন ধরনের। তবে করোনার ব্রিটিশ ও আফ্রিকান ধরনের সঙ্গে লড়াই করে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের দেশগুলো সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আনার যে সাফল্য দেখিয়েছিল তা নিয়ে আশাবাদী হয়ে উঠেছিল বাকি বিশ্ব। কিন্তু সব হিসাব আর পূর্বের সাফল্য যেন ভেস্তে দিতে চলেছে অতিসংক্রামক হিসেবে পরিচিত করোনার ভারতীয় বা ডেল্টা ধরন। কারণ মাঝখানে সংক্রমণ কমতে থাকা দেশগুলোতে আবারও বাড়তে শুরু করেছে রোগীর সংখ্যা ও মৃত্যু। ইতোমধ্যে এই ধরন যেভাবে বিদ্যুৎগতিতে ছড়িয়ে পড়েছে বিশ্বের ৮০টিরও বেশি দেশে, তাতে বলাই যায় এটি যেন পৃথিবী দখলের মিশনে নেমেছে।

ভারতকে বিপর্যস্ত করে ডেল্টা ধরন এখন ত্রাস চালাচ্ছে প্রতিবেশী বাংলাদেশে। ইতোমধ্যে বাংলাদেশে এই ধরনের কমিউনিটি ট্রান্সমিশনের প্রমাণ মিলেছে। গবেষণায় পাওয়া গেছে, বর্তমানে বাংলাদেশে সংক্রমণের ৮০ শতাংশের পেছনেই দায়ী করোনার ডেল্টা ধরন। বাংলাদেশ ছাড়াও ভারতের পার্শ্ববর্তী নেপাল, পাকিস্তান, শ্রীলংকাতেও মিলেছে এই ধরনে আক্রান্ত রোগীর উপস্থিতি। তার মধ্যেই মহাহুমকি হিসেবে খবর পাওয়া গেছে, ভাইরাসটির এই প্রজাতি থেকে বিবর্তিত হয়ে আরও শক্তিশালী হয়ে ওঠা ধরন ডেল্টা প্লাসের, যা এরই মধ্যে ছড়িয়ে পড়েছে ভারতের তিনটি রাজ্যে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, চলতি মাসের শুরুর দিকেও যুক্তরাষ্ট্রে শনাক্তের হার ৬ শতাংশের কাছাকাছি নেমে এসেছিল। কিন্তু ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের প্রভাবে গত সপ্তাহ থেকে আবার দেশটিতে শনাক্তের সংখ্যা ১০ শতাংশের বেশিতে পৌঁছে গেছে। এর আগে করোনার এই ধরনকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ‘ভ্যারিয়েন্ট অব কনসার্ন’ হিসেবে ঘোষণা করেছে। সংস্থার প্রধান বিজ্ঞানী সৌম্য স্বামীনাথন বলেছেন, পুরো বিশ্বেই এখন করোনার ডেল্টা ধরন দাপট দেখাচ্ছে। আর তা হয়েছে ভাইরাসটির সংক্রমিত হওয়ার বাড়তি সক্ষমতার কারণে।

জানা গেছে, করোনার ডেল্টা ধরন এরই মধ্যে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে হুমকি তৈরি করেছে। বিভিন্ন ব্রিটিশ গণমাধ্যম বলছে, এরই মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রে করোনার ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট শক্তি দেখাচ্ছে। গত সোমবারও দেশটিতে ১০ হাজারের বেশি নতুন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে, যাদের অধিকাংশই ডেল্টা ধরনে আক্রান্ত। অথচ ব্যাপক টিকাদান কার্যক্রমের কারণে দুই মাস আগেও যুক্তরাজ্যে করোনা পরিস্থিতি অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে চলে এসেছিল। পরিস্থিতি বিবেচনায় বিশেষজ্ঞদের দাবি, ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টই যুক্তরাজ্যে করোনার তৃতীয় ঢেউ নিয়ে এসেছে। ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট ভালোভাবেই ছড়িয়েছে ফ্রান্স, ডেনমার্ক, ইতালি, জার্মানি, স্পেনসহ ইউরোপের অন্য দেশগুলোতেও। দ্য ওয়ালস্ট্রিট জার্নাল জানায়, হঠাৎ করে ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত রোগী বাড়তে থাকায় পর্তুগাল রাজধানী লিসবনে নতুন করে বিধিনিষেধ আরোপে বাধ্য হয়েছে। জার্মানিতে গত মাসেও সংক্রমণের গড় সাপ্তাহিক হার ১৩ শতাংশে নেমে এসেছিল। কিন্তু এ মাসে ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের প্রভাবে বেড়েছে দেশটিতে রোগীর হার। ফ্রান্স, স্পেন, ইতালিতেও এই ভ্যারিয়েন্টের কারণে সংক্রমণ বাড়ছে। ফ্রান্সের স্বাস্থ্যমন্ত্রী অলিভার ভিরান বলেছেন, আমরা করোনা এবং মহামারীকে ধ্বংসের পর্যায়ে আছি। তাই কোনোভাবেই ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টকে ভয়াবহ হয়ে উঠতে দিতে পারি না। এর জন্য যা করা প্রয়োজন আমরা তাই করব।

এশিয়ায় করোনার এই ভারতীয় ধরনের প্রকোপ আরও বেশি। চীন, সিঙ্গাপুর, ফিলিপাইন, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, ভিয়েতনাম, রাশিয়া, কাজাখস্তান, উজবেকিস্তান, তাজিকিস্তান, কিরগিজস্তান, পাকিস্তান, আফগানিস্তান, নেপাল, বাংলাদেশসহ আরও দেশে প্রচুর এই ধরনে আক্রান্ত রোগী পাওয়া যাচ্ছে। মধ্যপ্রাচ্যের সৌদি আরব, আরব আমিরতসহ আরও কয়েকটি দেশেও এটি পাওয়া গেছে। দুই ডোজ টিকা নিয়েও ইসরায়েলে ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত হয়েছেন অনেকে। ভ্যারিয়েন্টটি এতই শক্তিশালী যে, করোনার দক্ষিণ আফ্রিকান ধরনকে সরিয়ে এটি পৌঁছে গেছে আফ্রিকার দেশগুলোতেও। ইতোমধ্যে নামিবিয়া, সিয়েরালিওন, লাইবেরিয়া, ঘানা, কঙ্গোতে মিলেছে এই ভাইরাসের ধরন।

শুধু লাতিন আমেরিকাতেই বেশি সুবিধা করতে পারছে না ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট। সেখানে এখনো শক্তিশালী করোনার ব্রাজিলিয়ান ধরন। যার কারণে ব্রাজিল, আর্জেটিনা, পেরু, ইকুয়েডরসহ বিভিন্ন দেশে অব্যাহত আছে আক্রান্ত ও মৃত্যু। তারপরও দেশগুলোতে কিছু সংখ্যক হলেও ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত রোগী পাওয়া গেছে।

এদিকে ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের দাপটের মধ্যেই ভারতে এটি রূপ পরিবর্তন করে আরও শক্তিশালী হয়েছে। বিজ্ঞানীরা ডেল্টার পরিবর্তিত এই রূপের নাম দিয়েছেন ডেল্টা প্লাস (বি.১.৬১৭.২)। গত ৭ জুন পর্যন্ত ভারত ছাড়াও কানাডা, জার্মানি, রাশিয়া, নেপাল, সুইজারল্যান্ড, পোল্যান্ড, পর্তুগাল, জাপান এবং যুক্তরাষ্ট্রে পাওয়া গেছে ডেল্টা প্লাস ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত রোগী। সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুসারে, দেশটিতে এখন পর্যন্ত অন্তত ৪০ জনকে ডেল্টা প্লাস ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত পাওয়া গেছে। ধারণা করা হচ্ছে, আরও অনেকে এই ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত। কারণ ডেল্টার থেকে ডেল্টা প্লাস অনেক বেশি ভয়ঙ্কর ও সংক্রামক। ভারতের বিভিন্ন গবেষণা প্রতিষ্ঠান বলছে, ডেল্টা প্লাস এত বেশি ভয়ঙ্কর যে, এটি ছড়ালে দেশে প্রতিদিন আক্রান্ত হতে পারে ৫ লাখের বেশি মানুষ। ইতোমধ্যে ডেল্টা প্লাসের বিস্তার রুখতে মধ্যপ্রদেশ, মহারাষ্ট্র ও কেরালাকে সতর্ক করেছে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার। দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় মনোনীত ২৮ ল্যাবরেটরির একটি দলের মতামত অনুসারে, ডেল্টা প্লাসের সংক্রমণ বৃদ্ধির হার ডেল্টা ধরনের চেয়ে অনেক বেশি। এটি মানুষের ফুসফুসকে দ্রুত আক্রমণ করে এবং মনোক্লোনাল অ্যান্ডিবডির একচেটিয়া কার্যকারিতা ক্রমশ হ্রাস পায়।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: