সর্বশেষ আপডেট : ২ ঘন্টা আগে
শুক্রবার, ৩০ জুলাই ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১৫ শ্রাবণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

ইমামের আগেও দুই পরকীয়া ও তিন বিয়ে ছিল আসমার!

দক্ষিণখানের সরদার বাড়ি জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা আব্দুর রহমানের আগে দুই পরকীয়া ছিল আসমার। ইমামের সঙ্গে পরিকল্পনা করে যে স্বামীকে (আজহার) হত্যা করলেন তার সঙ্গেও বিয়ে হয় পরকীয়া করে।

আজহারের সঙ্গে বিয়ের আগে আরো তিনটি বিয়ে ছিল আসমার।

শুক্রবার (২৮ মে) বিকেলে রাজধানীর দক্ষিণখানে নৃশংসভাবে হত্যার শিকার আজহারের গ্রামের বাড়ি টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার এলেঙ্গা পৌরসভার রাজাবাড়ি গ্রামে গিয়ে পরিবারের লোকজনের সঙ্গে কথা বলে এ তথ্য জানা যায়।

আসমা হত্যার পরিকল্পনার জন্য ইমামের সঙ্গে ৭১ বার মোবাইল ফোনে কথা বলেন বলেও জানা যায় পরিবারসূত্রে।

নিহত আজহারের বাবা জুলহাস উদ্দিন জানান, তার ৫ ছেলে ও দুই মেয়ের মধ্যে আজহারুলকে খুব আদর করতো সবাই। লেখাপড়ায়ও খুব ভালো ছিল। ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে মেজো ছেলে সাহাবুদ্দিনের সঙ্গে আসমার বিয়ে হয়। বিয়ের দু-তিন মাস পর তারা জানতে পারেন এর আগেও একই উপজেলার দুর্গাপুর ইউনিয়নে এক ছেলের সঙ্গে আসমার বিয়ে হয়েছিল। কিন্তু সেই বিয়ের দু’দিন পরই আসমা চলে আসে স্বামীর সংসার ছেড়ে।

এরপর আসমা ওই স্বামীর ছোট বোনের স্বামীর সঙ্গে পরকীয়া করে পালিয়ে বিয়ে করে। সেই বিয়েও মাত্র এক থেকে দেড় মাস টেকে। এসব কিছু গোপন রেখে আসমার বাবা আশরাফ আলী তার ছেলের সঙ্গে আসমার বিয়ে দেন। তবে বিয়ের পর এত কিছু জেনেও জুলহাস উদ্দিনের পরিবার আসমাকে ছেলের বউ হিসেবে মেনে নিয়েছিলেন।

তিনি জানান, কিন্তু ছয় মাস যেতে না যেতেই তার বাড়ির মেজ বউ আসমা ও তার আরেক ছেলে আজহারুল বাড়ি থেকে উধাও হয়ে যান। পরে তিনি জানতে পারেন সাহাবুদ্দিনকে তালাক দিয়ে আসমা আজহারুলকে বিয়ে করেছে। এরপর থেকে তাদের সঙ্গে আর যোগাযোগ রাখেননি জুলহাস উদ্দিন ও তার পরিবারের লোকজন।

‘হঠাৎ করেই রোজার আগে খবর পান অসুস্থ হয়ে পড়ায় আজহারুলকে হাসাপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পরে তিনি ঢাকায় গিয়ে আজহারুল ও আসমাকে গ্রামের বাড়িতে নিয়ে আসেন। বাড়িতে রেখেই আজহারুলকে চিকিৎসা দেওয়া হয়। একটু সুস্থ হলে হঠাৎ করেই ১৭ মে আসমা আজহারুলকে ঢাকায় যেতে চাপ দিতে থাকে। এ কারণে আজহারুল পরদিন ১৮ মে ঢাকায় যেতে রাজি হন। এই অসুস্থার মধ্যে ঢাকা যাওয়া নিয়ে আজহারুলকে তার মা কয়েকবার বাধাও দেন। কিন্তু আসমার পীড়াপীড়িতে শেষ পর্যন্ত ঢাকায় রওয়ানা হন আহজারুল। এসময় আসমা তার স্বামী আজহারুলকে ৫শ টাকাও দেন গাড়িভাড়া হিসেবে।

আজহারুলের চাচাতো ভাই মো. হাফিজ উদ্দিন জানান, (মঙ্গলবার) ১৮ মে আজহারুর ঢাকা যাওয়ার পর আসমা তাদের বাড়িতেই ছিলেন। পরদিন বুধবার (১৯ মে) আজহারুলের মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। এরপর আসমা তার বাবা আশরাফ আলীকে নিয়ে ঢাকায় চলে যান। দু’দিন পর তারা দু’জন ফিরে আসেন এবং আশরাফ আলী তার মেয়েকে শ্বশুর বাড়ি রেখে তড়িঘড়ি করে চলে যান। ২৫ মে তারা জানতে পারেন দক্ষিণখানের সরদার বাড়ি জামে মসজিদের সেপটিক ট্যাংক থেকে আজহারুলের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

‘খবর পাওয়ার অ্যাম্বুলেন্সযোগে পরিবারের লোকজন ঢাকায় রওয়ানা হলে রাস্তা থেকেই র্যা ব আসমাকে গ্রেফতার করে নিয়ে যায়। পরে তারা জানতে পারেন এই হত্যার সঙ্গে আসমা ও ইমাম জড়িত। ’

আজহারুলের ভাতিজা লিসান উদ্দিন জানান, র্যা বের মাধ্যমে জানতে পারেন আসমা মোবাইল ফোন ব্যবহার করতেন এবং মোবাইল ফোনটি আজহারুলের বাড়িতেই রয়েছে। একথা শুনে পরিবারের সবাই হত্যার পরিকল্পনা করার জন্য ব্যবহৃত মোবাইল ফোন খোঁজাখুজি করতে থাকেন। কিন্তু কোথাও না পেয়ে বাড়ির পাশের জঙ্গলে ব্যাটারি ও সিমবিহীন একটি মোবাইল ফোন পান। পরে সেটি র্যা বের কাছে জমা দেন তারা।

তিনি জানান, আসমা যে নম্বর দিয়ে ইমামের সঙ্গে কথা বলেছেন সেই সিমকার্ডটি এখনো উদ্ধার হয়নি। তাদের ধারণা আজহারুলকে হত্যার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পরপরই সিমকার্ডটি কোথাও ফেলে দিয়েছেন আসমা আক্তার।

আজহারুলের হত্যার সঙ্গে জড়িত আসমা ও মসজিদের ইমাম মাওলানা আব্দুর রহমানের ফাঁসির দাবি জানিয়েছেন নিহতের পরিবার।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: