সর্বশেষ আপডেট : ১১ মিনিট ৫৬ সেকেন্ড আগে
বুধবার, ২৮ জুলাই ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১৩ শ্রাবণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

ই’মামের সঙ্গে ‘চতুর্থ’ সংসারের স্বপ্ন দেখেছিলেন ২৬ বছরের আসমা

রাজধানীর দক্ষিণখানের সরদারবাড়ি জামে ম’সজিদের ই’মাম মা’ওলানা আবদুর রহমানের (৫৪) সঙ্গে পর’কী’য়ায় জড়িয়ে চতূর্থ বিয়ের স্বপ্ন দেখছিলেন নি’হত আজহারের স্ত্রী’ আসমা আক্তার (২৬)।

দুজন পরিক’ল্পিতভাবে আজহারকে সরিয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা করেন। তাঁদের বিয়ে হলে তা আবদুর রহমানের জন্য হতো দ্বিতীয়, আসমা’র চতুর্থ। ত’দন্তসংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

আজহারের হ’ত্যার ঘটনায় আসমা ও আবদুর রহমানকে গতকাল বুধবার পাঁচ দিনের রি’মান্ডে পাঠিয়েছেন ঢাকা মহানগর হাকিম বেগম নিভানা খায়ের জেসীর আ’দালত। এর আগে গত মঙ্গলবার ভোরে দক্ষিণখানের সরদারবাড়ি জামে ম’সজিদের সেপটিক ট্যাংক থেকে আজহারের ছয় টুকরা লা’শ উ’দ্ধার করা হয়।

রেবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন গতকাল বলেন, ‘আবদুর রহমান ও আসমা’র বিয়ে করার কথা ছিল। আজহারকে হ’ত্যা করতে দুজন পরিকল্পনা করেন বলে তাঁরা জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছেন।’

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ২০১৪ সালে টাঙ্গাইলের এক কৃষকের সঙ্গে বিয়ে হয় আসমা’র। পরে তাঁকে ডিভোর্স দিয়ে ২০১৫ সালে বিয়ে করেন নি’হত আজহারের বড় ভাইকে। এরপর আজহারের সঙ্গে পর’কী’য়ায় জড়ান। ২০১৬ সালে দুজন পালিয়ে ঢাকায় এসে বিয়ে করেন। আজহার গার্মেন্টে চাকরি নেন। ২০১৭ সালে তাঁদের ছে’লে হয়। চার বছরের এই শি’শু আরিয়ানকে আরবি শেখাতে গত জানুয়ারিতে আবদুর রহমানকে নিয়োগ দেওয়া হয়। এরপর দুজনের স’ম্পর্ক গড়ে ওঠে। বিষয়টি টের পেরে গত ফেব্রুয়ারির একদিন আবদুর রহমানকে ঘর থেকে বের করে দেন আজহার। পরে অন্যের নামে কেনা মোবাইলের সিমে দুজনের কথা হতো। এই সময়ের মধ্যে অন্য বাড়িতে গিয়ে চার দিন তাঁরা একান্তে সময় কাটিয়েছেন বলে জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছেন আবদুর রহমান ও আসমা।

রেব সূত্র জানায়, গত রমজানের আগেই আজহারকে হ’ত্যার পরিকল্পনা করেন তাঁরা। প্রথমে ভাড়াটে খু’নির কথা ভাবা হয়। পরে আবদুর রহমান নিজেই হ’ত্যার দায়িত্ব নেন। সে অনুযায়ী গত ১৯ মে তিনি আজহারকে ডেকে এনে হ’ত্যা করে লা’শ ছয় টুকরা করে সেফটিক ট্যাংকে ফেলে দেন। এরপর সব ধুয়েমুছে ম’সজিদে নামাজ পড়ান। ধ’রা পড়ার আগ পর্যন্ত তিনি চার দিন নামাজ পড়ান। এ সময় নামাজে প্রতিবারই তিনি ভুল করেন।

আবদুর রহমানের বাড়ি গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায়। তাঁর এক ছে’লে ও এক মে’য়ে আছে। ৩৩ বছর ধরে দক্ষিণখান এলাকার ম’সজিদে নামাজ পড়াচ্ছেন। জিজ্ঞাসাবাদে তিনি রেবকে জানিয়েছেন, তিনি আসমাকে প্রচণ্ড ভালোবেসে ফেলেছিলেন। তাঁর কথা রাখতে গিয়ে আজহারকে হ’ত্যা করেছেন। তা না হলে আসমা নিজেই আজহারকে হ’ত্যা করবেন বলে হু’মকি দিয়েছিলেন। নিজেও ম’রবেন এবং তাঁকেও (আবদুর রহমান) মা’রবেন। অন্যদিকে আসমা রেবকে জানিয়েছেন, আজহারের আচার-আচরণ তাঁর ভালো লাগছিল না। এ কারণে তিনি পর’কী’য়ায় জড়ান।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: