সর্বশেষ আপডেট : ৫২ মিনিট ৫ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ শ্রাবণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

করোনার ভারতীয় ধরন ছড়িয়ে পড়তে পারে বাংলাদেশে

আতঙ্ক বাড়ছে করো’না ভাই’রাসের ভা’রতীয় ধরন (ভা’রত ভেরিয়েন্ট) নিয়ে। দ্রুত সংক্রমণশীল করো’নার এই ভেরিয়েন্টটির সংক্রমণ দেশে ছড়িয়ে পড়ার যথেষ্ট ঝুঁ’কি রয়েছে।

এটি ছড়িয়ে পড়লে পরিস্থিতি ভ’য়াবহ হতে পারে বলে আশ’ঙ্কা করা হচ্ছে।
করো’নার দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হওয়ার পর গবেষণায় দেখা গেছে, সংক্রমণের এই ধরনটি হচ্ছে ইউকে (যু’ক্তরাজ্য) ও দক্ষিণ আফ্রিকার ভেরিয়েন্ট। এ ধরনের প্রকোপ কিছুটা কমে এলেও ভা’রতের ভেরিয়েন্টটি নিয়ে ঝুঁ’কি ও আশ’ঙ্কা রয়েছে। ভা’রতে দ্রুত সংক্রমিত করো’নার এই ধরনটি বাংলাদেশেও ছড়িয়ে পড়তে পারে। আর এটা হলে পরিস্থিতি আরও বিপজ্জনক হয়ে উঠতে পারে বলে জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা আশ’ঙ্কা করছেন। এই ঝুঁ’কিপূর্ণ পরিস্থিতি এড়াতে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে রাখার ব্যবস্থাগুলো কার্যকর রাখার উপর গুরুত্ব দিচ্ছেন তারা।

শনিবার (০১ মে) সরকারি হিসাব মতে, ভা’রতে আগের ২৪ ঘণ্টায় নতুন সংক্রমিত হয়েছেন ৪ লাখ ১ হাজার ৯৯৩ জন। মা’রা গেছেন ৩ হাজার ৫২৩ জন। শুক্রবার (৩০ এপ্রিল) আ’ক্রান্ত হয়েছেন ৩ লাখ ৮৬ হাজার ৪৫২ জন এবং মৃ’ত্যু হয়েছে ৩ হাজার ৫শ জনের বেশি মানুষের। এর আগে ২৮ এপ্রিল মা’রা যায় ৩ হাজার ৬৪৭ জন।
সরকারি হিসাব অনুযায়ী মৃ’ত্যুর এই সংখ্যা জানা গেলেও বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থার ধারণা মৃ’ত্যুর সংখ্যা এর চেয়েও অনেক বেশি। হাসপাতা’লে জায়গা না পেয়ে অনেকেই বাড়িতে মা’রা যাচ্ছেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে এবং আরও অবনতির আশ’ঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। প্রতিবেশী দেশের এই পরিস্থিতি বাংলাদেশের জন্যও উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

ভা’রতীয় ও আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলোর তথ্যমতে, ভা’রতে তৈরি হওয়া করো’না ভাই’রাসের নতুন ধরনটির নাম গবেষকেরা দিয়েছেন ‘বি-ওয়ান-সিক্সসেভেনটিন’। গত অক্টোবরে এটি প্রথম শনাক্ত হয়।

এ বিষয়ে জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ এবং হেল্থ অ্যান্ড হোপ হাসপাতা’লের চেয়ারম্যান ডা. লেলিন চৌধুরী বাংলানিউজকে বলেন, ভা’রতের সঙ্গে বাংলাদেশে বিশাল সীমান্ত। যেকোনো সময় যে কোনোভাবে ভা’রতের এই ভ’য়াবহ ভেরিয়েন্টটি আমাদের দেশে ঢুকে যেতে পারে। যদিও ইতোমধ্যে সীমান্ত বন্ধ, বিমান বন্ধ রাখাসহ বিভিন্ন পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। কিন্তু সীমান্ত বন্ধ করে দেওয়া হলেও আম’রা চিন্তিত যে কিছু কিছু প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না। ভা’রতে ভ’য়াবহ পরিস্থিতি তৈরির কারণ হচ্ছে করো’নার এই ধরনটি দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। আগ্রাসী গতিতে মানুষকে সংক্রমিত করছে। সংক্রমণের ২/৩ দিন পরই ফুসফুস আ’ক্রান্ত করছে, অক্সিজেন লেভেল নেমে যাচ্ছে। ইউকে এবং দক্ষিণ আফ্রিকার ভেরিয়েন্টের চেয়ে ভা’রতের এই

ভেরিয়েন্টটি আরও দ্রুত ছড়ায় বলে মনে করা হচ্ছে।
দেশে করো’নার দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হওয়ার পর গত কয়েদিন ধরে সংক্রমণ কিছুটা কমে এসেছে। সংক্রমণের শতকরা হার কমে ১০ ভাগের কাছে নেমে আসে। সেই তুলনায় মৃ’ত্যুর সংখ্যা দ্রুত নিচে নামছে না। এখনও প্রতিদিন ৫০- এর বেশি মানুষের মৃ’ত্যু হচ্ছে।

এ বিষয়ে রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) উপদেষ্টা ও প্রতিষ্ঠানটির সাবেক প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মক’র্তা ডা. মোস্তাক হোসেন বাংলানিউজকে বলেন, ভা’রতের ভেরিয়েন্ট নিয়ে আশ’ঙ্কা আছে। কিন্তু আমাদের দেশের ভেতরের ভেরিয়েন্টটি নিয়েও তো এখনও আশ’ঙ্কা দূর হয়নি। সংক্রমণ কমেছে এতে এখনই স্বস্তিবোধ করার মতো কোনো অবস্থা তৈরি হয়নি। সংক্রমণ যাতে না ছড়ায় সে ব্যবস্থা নিতে হবে, সর্বোচ্চ চেষ্টা করতে হবে। যত বেশি সংক্রমণ হবে তত বেশি মৃ’ত্যু বাড়বে। ভা’রতে এত সংক্রমণের কারণেই এত মৃ’ত্যু। সারা বিশ্বের ভেরিয়েন্ট ভা’রতে চলে এসেছে। আমাদের এখানেও অনেকগুলো ভেরিয়েন্ট আছে। যত বেশি সংক্রমণ হবে ধরনেরও (ভেরিয়েন্ট) তত বেশি পরিবর্তন হবে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: