সর্বশেষ আপডেট : ৪ ঘন্টা আগে
মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ শ্রাবণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

মামুনুলের অনেক তথ্য-প্রমাণ পুলিশের হাতে

রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে বারবার উসকানিমূলক বক্তব্য দিয়ে গেছেন হেফাজতে ইস’লামের যুগ্ম মহাসচিব ও বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের মহাসচিব মা’ওলানা মামুনুল হক। আর এসব উসকানিতে ব্যবহার করেছেন ধ’র্ম। তাঁর বক্তব্যের জেরেই ঢাকা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, নারায়ণগঞ্জ, চট্টগ্রামসহ কয়েকটি এলাকায় তা’ণ্ডব চালায় হেফাজতের অনুসারীরা। ধারাবাহিক ত’দন্ত, ডিজিটাল আলামত এবং কয়েকজন হেফাজত নেতাকে জিজ্ঞাসাবাদে পু’লিশ মামুনুলের ব্যাপারে অনেক তথ্য-প্রমাণ পেয়েছে।

মোহাম্ম’দপুর থা’নায় হা’মলা ও চু’রির মা’মলায় তাঁকে গ্রে’প্তার করে রি’মান্ডে নেওয়া হলেও গোয়েন্দা পু’লিশের (ডিবি) ত’দন্তাধীন আরো ১৭ মা’মলায় তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। তাঁর বি’রুদ্ধে ঢাকায় ১৮টিসহ অন্তত ৫০টি মা’মলা রয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, মামুনুল হক নাশকতার কর্মসূচির ব্যাপারে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে মুখ খুলছেন না। গ্রে’প্তারের আগেই সরিয়ে ফেলেছেন তাঁর মোবাইল ফোন। তবে দুই গো’পন বিয়ে স্বীকার করে জানিয়েছেন, বিষয়টি নিয়ে বাইরে বিতর্কের মতোই পরিবারেও ঝামেলা হয়েছে। প্রথম স্ত্রী’ রাগ করে বাসা ছেড়েছেন।

গত রবিবার মোহাম্ম’দপুরের জামিয়া রহমানিয়া আরাবিয়া মাদরাসা থেকে গ্রে’প্তারের পর তেজগাঁও থা’না কমপ্লেক্সে রাখা হয় মামুনুলকে। রাতেই সেখান থেকে নেওয়া হয় মিন্টো রোডের ডিবির কার্যালয়ে। গতকাল সোমবার মোহাম্ম’দপুর থা’নায় হা’মলা-ভাঙচুর, মোবাইল ফোন-টাকা চু’রি ও ধ’র্মীয় কাজে ইচ্ছাকৃত গোলযোগ তৈরির মা’মলায় তাঁর সাত দিনের রি’মান্ড মঞ্জুর করেছেন ঢাকা মহানগর হাকিম দেবদাস চন্দ্র অধিকারীর আ’দালত। গত বছরের ৭ মা’র্চ জি এম আলমগীর শাহীন মা’মলা’টি করেন। ডিবি কার্যালয়ে তাঁকে মোহাম্ম’দপুর থা’না পু’লিশ ও ডিবি আলাদাভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করছে।

ঢাকা মহানগর পু’লিশ কমিশনার (ডিএমপি) মোহা. শফিকুল ইস’লাম বলেন, ‘সুনির্দিষ্ট তথ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে মামুনুলকে গ্রে’প্তার করা হয়েছে। হেফাজত করলেই গ্রে’প্তার করা হচ্ছে—এমন নয়। অন্যদের ব্যাপারেও প্রমাণ আছে। তারা ধ’র্মীয় অনুভূতির কথা বলে উসকানি দিয়ে সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে চেয়েছে। কোনো সংগঠনের হয়ে রাষ্ট্র ও সরকারকে চ্যালেঞ্জ করলে সরকার ছাড় দেবে না।’ তিনি আরো বলেন, ‘যারা নাশকতার সঙ্গে জ’ড়িত তাদের সবাইকেই গ্রে’প্তার করা হবে।’

ডিবি পু’লিশের যুগ্ম কমিশনার মাহবুব আলম কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘২০১৩ সালের নাশকতার ঘটনায় ঢাকায় দায়েরকৃত ১৫টি মা’মলা আমাদের কাছে ত’দন্তাধীন। এসব মা’মলায় মামুনুল আ’সামি। এ ছাড়া সম্প্রতি পল্টন ও মতিঝিল থা’নায় দায়ের করা দুটি মা’মলার ত’দন্তভা’র আম’রা পেয়েছি। এসব মা’মলায়ও মামুনুল আ’সামি। আম’রাও তাঁর রি’মান্ডের আবেদন করব।’

ডিএমপি সূত্র জানায়, মোহাম্ম’দপুরের মা’মলা’টি ছাড়াও মতিঝিল বিভাগের ডিবির কাছে ১৪টি, লালবাগ বিভাগে দুটি এবং তেজগাঁও বিভাগের একটি মা’মলায় তিনি আ’সামি। ২০১৩ সালের ১৫টি মা’মলার মধ্যে সাতটিতে তিনি এজাহারনামীয় আ’সামি। সম্প্রতি করা পল্টন থা’না

ও মতিঝিল থা’নার দুটি মা’মলায় তাঁর নাম আছে। এ ছাড়া নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ, সোনারগাঁ, ব্রাহ্মণবাড়িয়াসহ বিভিন্ন থা’নায় করা পাঁচটি মা’মলার এজাহারে নাম আছে। এই ২৩টি মা’মলাসহ আগের এবং সাম্প্রতিক অর্ধশত মা’মলায় তিনি আ’সামি হচ্ছেন বলে জানায় সূত্র। হেফাজতে ইস’লামের দাবি মতে, ২০১৩ সালে সারা দেশের ৩৩টি মা’মলায় মামুনুলের নাম আছে।

পু’লিশের সূত্র জানায়, রবিবার তেজগাঁও থা’না কমপ্লেক্স থেকেই মামুনুলকে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করা হয়েছে। এ সময় তাঁর কাছে মোবাইল ফোন পাওয়া যায়নি। তবে সম্প্রতি ফাঁ’স হওয়া অডিও রেকর্ড, তাঁর ফোনকল রেকর্ডসহ কিছু ডিজিটাল প্রমাণ এরই মধ্যে পু’লিশের হাতে চলে এসেছে। সেখানে সরকারবিরোধী এবং জামায়তপন্থী কিছু নেতাকর্মীর সঙ্গে মামুনুলের নিয়মিত যোগাযোগের তথ্য মিলেছে। উসকানি দেওয়া বক্তব্যের মাধ্যমে বারবার সরকারকে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেওয়ার পেছনে কাদের ইন্ধন আছে— এমন প্রশ্নে চুপ থাকছেন মামুনুল। তাঁর যোগাযোগের ব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। গতকাল রি’মান্ডের পর তেজগাঁও বিভাগের পু’লিশই মূলত মামুনুলকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। ডিবি পু’লিশও প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। জিজ্ঞাসাবাদে ব্যক্তিগত জীবনের বিতর্কিত বিষয়ে মামুনুল বলেছেন, জিডি হওয়ার ঘটনায় থাকা দুই নারীকেই তিনি ‘চুক্তিভিত্তিক’ বিয়ে করেছেন। তাঁদের সঙ্গে শর্ত ছিল বিয়ে প্রকাশ করা যাবে না। আত্মীয়স্বজন ও সমাজের কাছে তাঁদের প্রতিষ্ঠিত করা হবে না। তবে ভরণপোষণ দেওয়া হবে। রিসোর্ট’কা’ণ্ডের পর এসব বিয়ে প্রকাশ পেলে প্রথম স্ত্রী’ এতে ক্ষিপ্ত হয়ে বাবার বাড়ি চলে গেছেন বলে জানান মামুনুল। তিন বিয়ে ছাড়া আর কোনো বিয়ে নেই বলেও দাবি করেন মামুনুল।

সাধারণ আ’সামিদের মতোই মামুনুলকে ডিবির হাজতখানায় রাখা হয়েছে। সহকর্মী হেফাজত নেতাদের দেওয়া তথ্যের সঙ্গে তাঁর বক্তব্য যাচাই করা হবে বলে জানায় সূত্র।

গতকাল সকালে কড়া নিরাপত্তার মধ্যে মামুনুলকে আ’দালতে উপস্থাপন করে সাত দিনের রি’মান্ড আবেদন করা হয়। আবেদনে মা’মলার ত’দন্তকার্রী কর্মক’র্তা বলেন, ২০২০ সালের ৬ মা’র্চ রাতে সাতম’সজিদ রোডের সাত গম্বুজ ম’সজিদে আমল করাকালীন আ’সামি মানুনুল হক ও তাঁর ভাই মোহতামিম মাহফুজুল হকের নির্দেশে জামিয়া রহমানিয়া আরাবিয়া মাদরাসার ছাত্র আ’সামি ওম’র, ওসমান দুজন এসে জি এম আলমগীর শাহীনসহ তাঁর সঙ্গে থাকা অন্যদের আমল করতে নিষেধ করে, তাঁদের ধ’র্মীয় ভাবাবেগে আ’ঘাত করে এবং ম’সজিদ থেকে বের হয়ে যেতে বলে। তাঁদের ম’সজিদের ভেতরে কিল-ঘুষি মা’রতে থাকে। এতে বাদী গুরুতর র’ক্তাক্ত জ’খম হয়। এ সময় তাঁর কাছ থেকে একটি মোবাইল ফোন, সাত হাজার টাকা ও ২০০ ডলার নিয়ে যায় আ’সামিরা। মামুনুল আ’সামিদের চিনেন। তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদে চো’রাই যাওয়া মালামাল উ’দ্ধারের সম্ভাবনা রয়েছে।

এদিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া চট্টগ্রাম নারায়ণগঞ্জ, ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সাম্প্রতিক সহিং’সতায় হেফাজতে ইস’লামের নেতাকর্মীদের বি’রুদ্ধে দাযেরকৃত ২৩টি মা’মলার ত’দন্তভা’র পেয়েছে অ’প’রাধ ত’দন্ত বিভাগ (সিআইডি)। সিআইডির সিনিয়র সরকারী পু’লিশ সুপার জিসানুল হক এ তথ্য জানিয়েছেন। সিআইডি সূত্র জানিয়েছে, আজ মঙ্গলবার ত’দন্তের বিষয়ে সিআইডিপ্রধান সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলবেন।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: