সর্বশেষ আপডেট : ৭ ঘন্টা আগে
শুক্রবার, ৩০ জুলাই ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১৫ শ্রাবণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

সিলেটে করোনায় ‘গরীবের ডাক্তার’ মঈন হারানোর এক বছর

ডা. মো. মঈন উদ্দিন। করো’নায় সিলেট তথা সারা দেশে মা’রা যাওয়া চিকিৎসকদের মধ্যে প্রথম ব্যক্তি। গতবছরের আজকের (১৫ এপ্রিল) দিনে না ফেরার দেশে চলে যান সিলেটের এই স্বনামধন্য চিকিৎসক। যেহেতু তিনিই ছিলেন সিলেটের প্রথম করো’না আ’ক্রান্ত ব্যক্তি সে হিসেবে কিভাবে তিনি করো’নাভাই’রাসে আ’ক্রান্ত হলেন তার তথ্য এখনো অজানা। তবে করো’নার শুরু দিকে যখন অনেক চিকিৎসক রোগীদের সেবা থেকে দূরে থেকেছিলেন সে সময়েও বিপর্যস্ত মানুষের পাশে জীবনের ঝুঁ’কি নিয়ে দাঁড়িয়েছিলেন তিনি। হয়তো এভাবেই তিনি আ’ক্রান্ত হয়ে থাকতে পারেন। আ’ক্রান্তের ১০ দিনের মা’থায় সবাইকে ছেড়ে না ফেরার দেশে পাড়ি জমান সুনামগঞ্জের ছে’লে মঈন।

গত বছরের ৮ মা’র্চ দেশে প্রথম করো’না রোগী শনাক্ত হয়। করো’নায় আ’ঘাত হানার শুরুতে সারা দেশের মতো সিলেটেও তখন থমথমে অবস্থা বিরাজ করছিল। অস্বাভাবিক এই পরিস্থিতিতে রোগীর সেবায় নিয়োজিত ছিলেন ডা. মঈন।

আ’ক্রান্তের পর শুরুতে তাঁকে বাসায় রেখেই চিকিৎসার সিদ্ধান্ত হয়। কিন্তু ৭ এপ্রিল তাঁর অবস্থার অবনতি হলে সিলেটে শহিদ শামসুদ্দিন আহম’দ হাসপাতা’লের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) ভর্তি করা হয়। অবস্থা আরো খা’রাপ হতে থাকলে পরিবারের সিদ্ধান্তে পরদিন বিকেলে তাঁকে ঢাকার কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতা’লে স্থা’নান্তর করা হয়। কিছুদিন সেখানে চিকিৎসা চলে। ১৫ এপ্রিল তার অবস্থা খা’রাপ হতে থাকে। পরে ঐদিন ভোর ৬টা ৪৫ মিনিটে না ফেরার দেশে চলে যান।

ডা. মঈন উদ্দিনের মৃ’ত্যুর খবরে সিলেটজুড়ে শোকের ছায়া নেমে আসে। সিলেটের এই চিকিৎসককে প্রথমে ঢাকায় দাফন করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হলেও পরিবারের ইচ্ছায় পরবর্তীতে সেটি পরিবর্তন করে গ্রামের বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে রাত সাড়ে ৮ টায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বিধিমালা অনুসরণ করে জানাজা শেষে তাঁর নিজ গ্রামে বাবা-মায়ের কবরের পাশে চিরনিদ্রায় শায়িত করা হয় ডা. মঈন উদ্দিনকে। করো’নায় দেশের প্রথম এই চিকিৎসকের মৃ’ত্যুর পর সরকার ঘোষিত ক্ষতিপূরণের ৫০ লাখ টাকা তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

ডা. মঈন উদ্দিনের জন্ম সিলেটের সুনামগঞ্জ জে’লার ছাতক উপজে’লার নাদামপুর গ্রামে। সেখানেই মাধ্যমিক পর্যন্ত পড়াশোনা করে ভর্তি হন সিলেটের ঐতিহ্যবাহী মুরারি চাঁদ (এমসি) কলেজে। সেখানে উচ্চ মাধ্যমিক শেষ করার পর ঢাকা মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস ডিগ্রি অর্জন করেন। বিসিএস উত্তীর্ণ হয়ে ছাতক উপজে’লা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যোগ দেন। পরে পদোন্নতি পেয়ে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজে যোগ দেন।

ডা. মঈন উদ্দিনের বাবা মুনশি আহম’দ উদ্দিন ছিলেন একজন পল্লী চিকিৎসক। স্ত্রী’ চৌধুরী রিফাত জাহানও একজন চিকিৎসক। তিনি নগরীর পার্কভিউ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতা’লের ফিজিওলজি বিভাগের প্রধান ও সহযোগী অধ্যাপক। এই চিকিৎসক দম্পতির ১১ ও ৮ বছর বয়সের দুটি ছে’লে সন্তান আছে।

শুধু চিকিৎসা ক্ষেত্রেই না, সামাজিক বিভিন্ন কাজেও বরাবরই নিজেকে সম্পৃক্ত রাখতেন গরীবের ডাক্তার বলে পরিচিত মঈন উদ্দিন। ওসমানীতে থাকাকালে স্নেহমাখা ব্যবহারের জন্য তার সহকর্মী, শিক্ষর্থী, রোগীসহ সকলের কাছে চ’মৎকার একজন মানুষ হয়ে উঠেন মেডিসিন, এফসিপিএস, কার্ডিওলজি বিষয়ে এমডি ডিগ্রিধারী মেধাবি এই চিকিৎসক। সবচেয়ে বড় যে পরিচয় ছিলো তাঁর সেটি হলো ‘গরিবের ডাক্তার।’ আর এ পরিচয়ে আজও অম’র ডা. মো. মঈন উদ্দিন।

সুত্রঃ সিলেট ভ’য়েস

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: