সর্বশেষ আপডেট : ৭ ঘন্টা আগে
রবিবার, ৯ মে ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ২৬ বৈশাখ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

সংক্রমণ দমাতে যে ক্ষমতা চায় পুলিশ

২০১৮ সালের সংক্রামক রোগ (প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূল) আইনের সংশোধনীর প্রস্তাব করেছে পু’লিশ। প্রস্তাব অনুযায়ী, সংক্রমণে আ’ক্রান্ত ব্যক্তি যদি সরকারি আদেশ অমান্য করে রোগটি নির্মূলে সাহায্য না করে তাহলে তাকে ভ্রাম্যমাণ আ’দালতের মাধ্যমে জ’রিমানা করার ক্ষমতা চেয়েছে পু’লিশ। সম্প্রতি পু’লিশের পক্ষ থেকে আইনের কয়েকটি ধারা সংশোধন করার একটি প্রস্তাব গেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে। সেখান থেকে অনুমোদনের ভিত্তিতে এটি আইন মন্ত্রণালয়ে যাবে। তবে ১৩ এপ্রিল পর্যন্ত আইনটি সংশোধন হবে কি-না, এ বিষয়ে মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে কিছু জানানো হয়নি।

পু’লিশ সদরদফতরের দায়িত্বশীল এক কর্মকার্তা আইন সংশোধনের প্রস্তাবের বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। বাংলাদেশ পু’লিশের ইন্সপেক্টর জেনারেল (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদের পক্ষে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে চিঠিটি পাঠিয়েছেন পু’লিশ সদরদফতরের এআইজি (পরিকল্পনা এবং গবেষণা) মো. আব্দুর রাজ্জাক।

জ’রিমানা করার পাশাপাশি জনগণের উদ্দেশে সরকারের দেওয়া সব বিধিনিষেধ কার্যকর, কোয়ারেন্টাইনসহ সংক্রমণ রোগ প্রতিরোধে পরিচালিত কার্যক্রমে সক্ষমতা বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়েছে। আইনটি সংক্রমণ রোগ প্রতিরোধের হলেও সংশোধনীর প্রস্তাবে অধিকাংশ জায়গায় ‘করো’নাভাই’রাস’ সংক্রমণের রেফারেন্স দেওয়া হয়েছে।

সংশোধনী প্রস্তাবের মন্তব্য অংশে বলা হয়েছে, ‘করো’নার সময় লকডাউন-কোয়ারেন্টাইনসহ নানা সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করে পু’লিশ ও রেব। তবে তাদের অ’ভিযান চালানোর কোনো ক্ষমতা নেই। তাই মাঠপর্যায়ে অনেকসময় অনেক ধরনের কাজ করতে পু’লিশকে আইনগত জটিলতা ও বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়তে হয়। তাই আম’রা আইন সংশোধনের প্রস্তাবে পু’লিশকে সংক্রমণ রোগ প্রতিরোধ সংক্রান্ত অ’ভিযানের সক্ষমতা বাড়ানো ও সরাসরি জ’রিমানা করার ক্ষমতা চাওয়া হয়েছে।’

আইনের নতুন কিছু ধারা সংযোজনের প্রস্তাব দিয়েছে পু’লিশ সদরদফতর। প্রস্তাবনার মধ্যে রয়েছে- পু’লিশ কর্মক’র্তার দায়িত্ব পালনে বাধা ও নির্দেশ পালনে অসম্মতি প্রদানের অ’প’রাধ এবং দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে বাধা দিলে বা প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করাকে অ’প’রাধ হিসেবে গণ্য করা। এছাড়াও যদি কোনো ব্যক্তি এ আইনের (সংক্রামক রোগ আইন-২০১৮) অধীন কোনো অ’প’রাধ করলে অনূর্ধ্ব ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত অর্থদ’ণ্ডে দ’ণ্ডিত হবেন। কোনো ব্যক্তি যদি জ’রিমানার টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানান, তাহলে পু’লিশ কর্মক’র্তা একটি লিখিত অ’ভিযোগসহ ওই ব্যক্তিকে যথাযথ এখতিয়ার সম্পন্ন ম্যাজিস্ট্রেট আ’দালতে সোপর্দ করতে পারবেন।

এই আইনে অ’প’রাধ ও জে’ল-জ’রিমানা

এ আইনের ২৪ ধারায় ১-এ বলা আছে, যদি কোনো ব্যক্তি সংক্রামক জীবাণুর বিস্তার ঘটান বা বিস্তারে সহায়তা করেন অথবা রোগ শরীরে আছে জানা সত্ত্বেও অ’পর কোনো ব্যক্তি সংক্রমিত ব্যক্তি বা স্থাপনার সংস্প’র্শে আসার সময় সংক্রমণ ঝুঁ’কির বিষয়টি তার কাছে গো’পন করেন তাহলে ওই ব্যক্তির এ কাজটি অ’প’রাধ হিসেবে গণ্য হবে। ২-এ বলা আছে, যদি কোনো ব্যক্তি উপধারা (১) এর অধীন কোনো অ’প’রাধ করেন, তাহলে তিনি অনূর্ধ্ব ৬ (ছয়) মাস কারাদ’ণ্ডে বা অনূর্ধ্ব এক (এক) লাখ টাকা অর্থদ’ণ্ডে অথবা উভ’য় দ’ণ্ডে দ’ণ্ডিত হবেন।

২৫ ধারার ১-এর (ক) বলা আছে যদি কোনো ব্যক্তি মহাপরিচালক, সিভিল সার্জন বা ক্ষমতাপ্রাপ্ত কর্মক’র্তার ওপর অর্পিত কোনো দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে বাধা দেন বা প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেন এবং (খ) সংক্রামক রোগ প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূলের উদ্দেশে মহাপরিচালক, সিভিল সার্জন বা ক্ষমতাপ্রাপ্ত কর্মক’র্তার কোনো নির্দেশ পালনে অসম্মতি জানান তাহলে এটি অ’প’রাধ।

২-উপধারায় বলা আছে, যদি কোনো ব্যক্তি উপধারা ১-এর অধীন কোনো অ’প’রাধ করেন তাহলে তিনি অনূর্ধ্ব তিন মাস কারাদ’ণ্ডে বা অনূর্ধ্ব ৫০ হাজার টাকা অর্থদ’ণ্ডে কিংবা উভ’য় দ’ণ্ডে দ’ণ্ডিত হবেন।

২৬ ধারার ১-এ বলা আছে, যদি কোনো ব্যক্তি সংক্রামক রোগ স’ম্পর্কে সঠিক তথ্য জ্ঞাত থাকা সত্ত্বেও ইচ্ছাকৃতভাবে মিথ্যা বা ভুল তথ্য প্রদান করেন তাহলে উক্ত ব্যক্তির অনুরূপ কাজ একটি অ’প’রাধ হিসেবে গণ্য হবে। ২-এ বলা হয়েছে, যদি কোনো ব্যক্তি উপধারা ১-এর অধীন কোনো অ’প’রাধ করেন, তাহলে তিনি অনূর্ধ্ব দুই মাস কারাদ’ণ্ড বা অনূর্ধ্ব ২৫ হাজার টাকা অর্থদ’ণ্ডে অথবা উভ’য় দ’ণ্ডে দ’ণ্ডিত হবেন।

২৭ ধারায় বলা আছে, এই আইনের অধীন কোনো অ’প’রাধের অ’ভিযোগ দায়ের, ত’দন্ত, বিচার ও আপিল নিষ্পত্তির ক্ষেত্রে ফৌজদারি কার্যবিধির বিধানাবলি প্রযোজ্য হবে।

এই আইনে অ’প’রাধ করলে উক্ত ব্যক্তিদের জে’ল-জ’রিমানা করার এখতিয়ার নেই পু’লিশের। যা একান্তই নির্দিষ্ট মহাপরিচালক ও সিভিল সার্জন করতে পারবেন বলে আইনে উল্লেখ রয়েছে। এই আইনের অধীনে পু’লিশ জ’রিমানা করার ক্ষমতাটি চেয়েছে, যাতে করো’নার লাগাম টানতে এবং মানুষকে স্বাস্থ্যবিধি মানাতে আইনশৃঙ্খলার এ বাহিনী আরও কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারে।

উল্লেখ্য, দেশে করো’নার লাগাম টেনে ধরতে বুধবার (১৪ এপ্রিল) থেকে ২১ এপ্রিল পর্যন্ত কঠোর বিধিনিষেধ জারি আরোপ করেছে সরকার। এ সময়ে মানুষকে স্বাস্থ্যবিধি মানাতে মাঠে সক্রিয় ভূমিকা রাখবে পু’লিশ বাহিনী।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  • 30
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    30
    Shares
নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: